আদালত অবমাননা করে টাঙ্গাইল ফতেপুর ফসলি জমিতে রাস্তা নির্মাণ

আদালত অবমাননা করে টাঙ্গাইল ফতেপুর ফসলি জমিতে রাস্তা নির্মাণ

প্রতিদিন প্রতিবেদক : আদালতের নিষেথাজ্ঞা অমান্য করে টাঙ্গাইল সদরের ফতেপুর গ্রামে ভূমিদশ্যূ মিঞা চাঁন অন্যোর আবাদি জমির উপর জোর পূর্বক ব্যাক্তিগত রাস্তা নির্মাণ করছেন।

এ ঘটনায় ক্ষুদ্ধ গ্রামবাসী প্রতিবাদ করলে তাদের সরকারি দলের প্রভাব খাটিয়ে বিভিন্ন নির্যাতন ও হয়রানী করে থাকেন।

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার দাইন্যা ইউনিয়নের ফতেপুর গ্রামের জমির মালিক, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সহ কাউকে কোন প্রকার অবহিত না করেই ফতেপুর মৌজার ১০৭২ দাগের ৪১ শতাংশের কাতে .০৭৫ শতাংশ জায়গা জোর পূর্বক দখল করেন।

পরে সেখানে ধানি জমির উপর দেওয়াল নির্মাণ করে মাটি দিয়ে ভরাট করে রাস্তাটি নির্মাণ করেছেন।

বার বার নিষেধ করা সত্বেও অবৈধ নির্মান কাজ চালিয়ে যাওয়ায় এই জমির মালিক বাধ্য হয়ে আইনের আশ্রয় নিয়েছে। জমিটির উপর বিজ্ঞ আদালত গত ৪ এপ্রিল ১৪৪ ধারা জারি করেন।

সরেজমিন জানা যায়, দাইন্যা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়াডের ফতেপুর গ্রামের ফতেপুর মৌজার ১০৮২ দাগে মাটি ভরাট করে বাড়ী নির্মানের কাজ করছেন মোঃ মিঞা চাঁন। পাশে ১০৭২ দাগে ৪১ শতাংশ জায়গা মালিক আব্দুল হামিদ মিঞার ধানের জমি।

এই জমি ২৯ জানুয়ারী ১৯৪৭ সালে হারান চন্দ্র সাহার কাছ থেকে সাব কওলা দলিলে ক্রয় করেন তিনি। এই ধানী জমির উপর .০৭৫ শতাংশ জায়গা নিয়ে চলাচলের জন্য ইতিমধ্যে জায়গার মালিক এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অজ্ঞাতেই রাস্তা নির্মান করে ফেলেছে মোঃ মিঞা চাঁন।

রাস্তার বাউন্ডারী নির্মান করা হয়েছে আরসিসি ঢালাই করে। আবাদী বোরো ধানের উপর মাটি ফেলা হয়েছে জায়গার মালিকের অজ্ঞাতে। বার বার নিষেধ করা সত্বেও তিনি নির্মান কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। জমির মালিককে বিভিন্ন ভাবে হুমকী এবং হয়রানী করা হচ্ছে বলে জানা যায়।

মিঞা চাঁন জানান, আমি একটি চুক্তি নামা তৈরী করেছি। চুক্তি নামা দেখতে চাইলে তিনি একটি সাদা কাগজের উপর লেখা একটি চুক্তি নামা নিয়ে আসেন। যেখানে জমির মালিকের কোন স্বাক্ষর নেই। নেই স্থানীয় কোন জনপ্রতিনিধির স্বাক্ষর। তার পছন্দের কিছু লোকের স্বাক্ষর নিয়ে একটি চুক্তি নামা তৈরী করেছেন সাদা কাগজে।

জমির মালিক মোঃ ইউসুব আলী জানান, শহরের বসবাস করায় গ্রামে বেশী আসা হয় না। সাম্প্রতি গ্রামে এসে দেখি মিঞা চাঁন অবৈধ ভাবে আমাদের আমাদের আবাদি ধানের জমির উপর রাস্তা নির্মাণ করছে।

বাঁধা দেয়ায় তিনি বিভিন্ন প্রভাব খাটিয়ে জীবননাশের হুমকী দেন। পরে আদালতে একটি মামলা দায়ের করলে আদালত জায়গার উপর ১৪৪ ধারা জারি করেন।

বর্তমানে জায়গার উপর ১৪৪ ধারা জারি থাকা সত্বে তারা কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। আমি আদালতের কাছে এর সুষ্ঠ বিচারের দাবী জানাচ্ছি।

স্থানীয় ৯ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মোঃ আবু সাইদ জানান, মিঞা চাঁন এর ১০৮২ দাগের জায়গা রয়েছে।কিন্তু ১০৭২ দাগের জায়গা তার নয়। তিনি জোর বলে অন্যের জায়গার উপর রাস্তা নির্মাণ করছেন।

দাইন্যা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ লাভলু মিঞা জানান, মিঞা চাঁন কোন ধরনের চুক্তির কাগজ দেখাতে পারছে না তাই অন্যের ফসলি জমির উপর রাস্তা নির্মাণ সম্পূর্ণ অবৈধ হয়েছে।

যেহেতু বিষয়টি নিয়ে আদালতে মামলা চলমান। তাই আদালত তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840