সংবাদ শিরোনাম:
রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫ নাগরপুরে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার রাজপথে, প্রতিবাদ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত এক স্কুল থেকে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেল জমজ দুই বোন মির্জাপুরে ধান চাল সংগ্রহ কার্যক্রমের উদ্বোধন টাঙ্গাইলে মাদ্রাসা ও কারিগরি প্রতিষ্ঠানের গার্ল-ইন- স্কাউটের সদস্যদের ডে ক্যাম্প
আদি টাঙ্গাইল বোখারী মসজিদটি জিম্মিদশা থেকে মুক্তির দাবী

আদি টাঙ্গাইল বোখারী মসজিদটি জিম্মিদশা থেকে মুক্তির দাবী

প্রতিদিন প্রতিবেদক : পৌর এলাকার আদি টাঙ্গাইল বোখারী মসজিদের সকল অর্থ আত্নসাত ও জিম্মি করে রেখেছেন আজাদ বোখারী। তিনি নিজেই মসজিদ কমিটির কর্মকর্তা এবং নিজেই ঈমাম ও নিজেই মুসুল্লি হয়ে নামাজ আদায় করছেন।

তার এহেন কার্যক্রমে অতিষ্ট এলাকাবাসী ও স্বজনরা মসজিদে নামাজ আদায় করতে পারছে না।তার বিরুদ্ধে এলাকার প্রায় দেড় শতাধিক মানুষ দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে মসজিটিকে মুসুল্লিদের নামাজ আদায় ও মসজিদের অর্থ উদ্ধার সহ তার জিম্মিদশা থেকে মুক্তির দাবীতে প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে একাধিক অভিযোগ করেছেন।

এর পরও বহাল তবিয়তে রয়েছেন তিনি। তার কারণে আদি টাঙ্গাইলের আদি মসজিদটি এখন মুসুল্লি শূণ্য ও পরিত্যাক্ত।

তবে এসকল অভিযোগ অস্বীকার করে মসজিদের এসি ও জমি ক্রয় সহ লক্ষ লক্ষ টাকার উন্নয়ন মূলক কাজ করেছেন দাবী করে তার বিরুদ্ধে অভিযোগকারীদের বিচার আওতায় আনার দাবী জানান আজাদ বোখারী।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সদর থানাধীন পৌর এলাকা ১২ নং ওয়ার্ডের, আদি টাঙ্গাইল বোখারী মসজিদটি বোখারী পরিবার দ্বারা পরিচালিত।

দক্ষিণ থানাপাড়ায় শেষ সিমানায় এবং আদি টাঙ্গাইল এর শুরুতেই মসজিদটি অবস্থিত।গত ১৩/৩/১৯৮৬ ইং তারিখে ১১৯৪৪ দলিল মূলে স্থানীয় শামসুল হক বোখারীর স্ত্রী মৃত জমিলা খাতুন পাঁচ শতাংশ ভূমি বোখারী মসজিদের নামে ওয়াকফ করে দেন।

বাকি জমি মসজিদ ফান্ড হতে নগদ মূল্যো ক্রয় করা হয়। পরে এলাকাবাসি ঐক্যবদ্ধ হয়ে ধর্মীয় অনুভূতি নিয়ে বিভিন্ন স্থান থেকে অনুদান ও সহযোগিতা উঠিয়ে মসজিদটি নির্মাণ করেন। মসজিদটি নির্মাণ সম্পূর্ণ হলে এলাকাবাসী বিভিন্ন ভাবে অনুদান আসে।

অপর দিকে আজাদ বোখারীর কোন প্রকার আয় রোজগার না থাকায় বিভিন্ন কৌশলে মসজিদ কমিটির সকল সদস্যকে বাতিল করে নিজে সাধারণ সম্পাদক, তার ছেলে তাওহীদকে ক্যাশিয়ার নিযুক্ত করেন। পরে মসজিদের উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন ভাবে আসা সকল অর্থ ও অনুদান পিতা-পূত্র মিলে হরিলুট শুরু করেন।

এমনকি মসজিদের উন্নয়নের কথা বলে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যাক্তির কাছ থেকে চাঁদা তুলে নিজের পকেট ভারি করেন।

ইতিপূবের্ তার এসব অনিয়ম ও দূনীতি এলাকাবাসী সহ মসজিদের ইমাম প্রতিবাদ করায় তাকে বরখাস্ত করে নিজেই ঈমাম হয়ে ইমামের বেতন ভাতা সহ মসজিদের সকল অর্থ লুট করছেন।

তিনি কোন আলেম নন, তিনি একজন নন মেট্রিক পাশ লোক। সাধু বেশে ভণ্ড প্রতারক, ফতোয়া বাজ, ত্রাস সৃষ্টিকারি। আজাদ বোখারী এবং তার পরিবারের পেশী শক্তির কারণে এলাকাবাসী বোখারী মসজিদে নামায আদায় করতে পারে না।

এজন্য পাশেই একটি টিনের ছাপড়া মসজিদ তৈরি করে সেখানে এলাকাবাসি নামায আদায় করে থাকে।তার বিরুদ্ধে কোন প্রতিবাদ করলে তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে তাকে বেদম মারপিট এবং জীবননাশের হুমকী প্রদান করেন।

সাবেক কাউন্সিলর রতন মিয়া মসজিদ ফান্ডে পাঁচ শতাংশ ভূমি দান করেন। সেই জমিতে কোয়াটার তৈরী করে ভাড়া দিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন আজাদ বোখারী।এছাড়াও আজাদ বোখারী মেয়ের প্রাইভেট শিক্ষককের মাসিক বেতনের পরিবতের্ মসজিদ কোয়াটারে থাকতে দিয়ে ভাড়া ধরেন।

আজাদ বোখারীর বড় বোন রেখা বোখারী জনসাথের্ মসজিদ ও রাস্তার বিষয়ে কথা বলায় তার হাতে থাকা লাঠি দিয়ে মাথায় আঘাত করে রাস্তায় ফেলে দেয়। এরপর বুকের মাঝে লাথি মারেন। পরে রেখা বোখারীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ব্যাপারে তিনি থানায় মামলা দায়ের করেন।

যেহেতু মসজিদটি আজাদ বোখারীর আয়ের প্রধান উৎস তাই মসজিদের ব্যাপারে কেউ কথা বললে তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয়।

এলাকাবাসী তার পক্ষে না থাকায় তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা সহ বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করেন। এক কথায় মসজিদটি আজাদ বোখারী তার ব্যক্তিগত সম্পত্তি ও প্রতিষ্ঠান বলে মনে করেন।

সমাজ সেবক কাজী মিন্টু সরকার,  সাবেক ব্যাংকার মো: চাঁন মিয়া, ব্যবসায়ী মো: কামরুজ্জামান, মো: সুরুজ মিয়া, মো: আনোয়ার হোসেন, দলীল লেখক মো: সরোয়ার হোসেন, হাজী মো: শহিদুর রহমান জানান, নন মেট্রিক পাশ আজাদ বোখারী তিনি কোন আলেম নন।

সাধু বেশে ভণ্ড প্রতারক, ফতোয়া বাজ এবং ত্রাস সৃষ্টিকারি। আমরা তার দ্রুত বিচারের দাবী জানাচ্ছি। একই সাথে তার কাছ থেকে মসজিদের আত্মসাতকৃত সকল অর্থ সহ মসজিদটি তার জিম্মিদশা থেকে উদ্ধারের প্রশাসনের কাছে জোর দাবী জানাচ্ছি। 

এ ব্যাপারে আজাদ বোখারী জানান, আমারা বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন উল্লেখ্য করে তিনি বলেন, এলাকার কিছু সখ্যাক লোক আমার মানের হানি করার জন্য আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্থানে নানা ধরনের মিথ্যা অভিযোগ করছেন। আমি ঔসব অভিযোগকারীদের বিচারের দাবী জানাচ্ছি।

তবে মসজিদ কমিটির সভাপতি, সম্পাদক ও কোষাধ্যাক্ষ সহ সকল পদের কার্যক্রম তিনি নিজেই পরিচালনা করেন স্বীকার করে তিনি জানান তারা পিতা-পূত্র মিলে মিলে দীর্ঘ দিন এ মসজিদটি পরিচালনা করে আসছেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840