আধুনিকতার ছোঁয়ায় হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যের গরুর হাল

আধুনিকতার ছোঁয়ায় হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যের গরুর হাল

হাফিজুর রহমান  : কৃষকের উন্নতির উপর নির্ভর করে আমাদের দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি। বাংলাদেশ কৃষিপ্রধান দেশ। কৃষি প্রধান দেশের মূল কারিগর হচ্ছেন কৃষক। কবি রাজিয়া খাতুন চৌধুরাণী তার ‘চাষী’ কবিতায় বলেছেন, ‘সব সাধকের বড় সাধক আমার দেশের চাষা, দেশ মাতারই মুক্তিকামী, দেশের সে যে আশা’ এক সময় সেই কৃষকের চাষাবাদ করার জনপ্রিয় উপকরণ ছিল গরু-লাঙ্গল-জোয়াল। কিন্তু কালের পরিক্রমায় ও যান্ত্রিকতার ছোঁয়ায় আমাদের দেশ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যের গরু, লাঙ্গল, জোয়াল দিয়ে হালচাষ।

দেশের অনেক কিছুতেই ডিজিটালের সু-বাতাস বইছে এবং মানুষ ডিজিটালাইজেশন সুবিধাগুলো পাচ্ছে অনেক সহজেই। সেই অগ্রযাত্রা থেমে নেই কৃষিভিত্তিক প্রযুক্তির ক্ষেত্রেও। দিন দিন নতুন যন্ত্র আবিষ্কারের ফলে সারাদেশ থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে বাঙ্গালী’র চিরচেনা সেই গরু, লাঙল, জোয়াল দিয়ে জমি চাষের চিত্র। জমি চাষের ঐতিহ্যবাহী একটি চিরায়িত পদ্ধতি ছিলো গরু-মহিষের কাঁধে জোয়াল বেঁধে লাঙল টেনে জমি চাষ। এটি ছিলো জমির উর্বরতা বৃদ্ধির মূল উপকরণ হিসেবে কৃষি পদ্ধতি।

বিলুপ্তপ্রায় গরুর হাল এখনো কিছু কিছু চোখে পড়ে টাঙ্গাইল জেলার মধুপুর ও ধনবাড়ী উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়। আধুনিক কৃষি প্রযুক্তির কলের ট্রাক্টর আর ট্রিলারের ভিঁড়ে হারিয়ে গেছে এই চিরচেনা দৃশ্যটি। একসময় দেখা যেত সেই কাক ডাকা ভোরে কৃষকরা গরু ও কাঁধে লাঙল-জোয়াল বয়ে নিয়ে বেরিয়ে পড়তো মাঠের জমিতে হালচাষ করার জন্য। বর্তমানে আধুনিকতার স্পর্শে ও বিজ্ঞানের নতুন নতুন আবিষ্কারের ফলে কৃষকদের জীবনে এসেছে নানা পরিবর্তন। আর সেই সাথে বর্তমান কৃষি মন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক এমপি’র চেষ্টায় পরিবর্তনেরই ছোঁয়া লেগেছে কৃষকের কৃষিজ জমিতে। সেই সাথে কৃষকের ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটছে।

এক সময় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অনেকেই নিজের হালচাষের পাশাপাশি অন্যের জমিতে টাকার বিনিময়ে হালচাষ করতেন। বর্তমানে প্রাকৃতিক নানান অসংগতির কারণে খরার প্রভাব পড়ায় তড়িৎ সময়ে জমি চাষে কৃষকরা পাওয়ার টিলারসহ আধুনিক যন্ত্রপাতি দিয়ে জমি চাষাবাদে আগ্রহী হয়ে পড়েছেন। তাই কৃষকরা এখন অন্য পেশায় ঝুঁকছেন। ফলে দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে গরু, মহিষ, লাঙল, জোয়াল দিয়ে জমিতে হাল চাষের পদ্ধতি।

ধনবাড়ী উপজেলার বীরতারা ইউনিয়নের বাজিতপুর শ্যামলার চর গ্রামের কৃষক আবুল হোসেন জানান, দির্ঘদিন থেকে হালচাষের কাজ করে আসছি। বাড়িতে হালচাষের গরু রয়েছে। এক জোড়া হালের গরু ক্রয়করতে ১লক্ষ ৩০ হাজার থেকে দেড় লক্ষাধীক টাকা লাগে। এছাড়া বাজারে গরুর খাবারের মূল্য বেশি, একজন হালিয়ার মজুরী ও পরিচর্যা ব্যয়ভার থাকায় গরুর হাল কেউ রাখতে চায়না। চাষের জন্য হালের কাজে উপকরণ হিসেবে কাঠের তৈরি লাঙল, বাঁশের তৈরি জোয়াল, মই ইত্যাদির নির্মাণ ব্যয় অনেক।

বানিয়াজান ইউনিয়নের কাওয়ামারা গ্রামের কৃষক বাদশা মিয়া জানান, ধানের বীজ তলা তৈরীতে গরু দিয়ে হাল চাষ করছি। গরীব মানুষ তাই আমি আমার হালের গরু দিয়ে হাল চাষ করে বীজ তলা তৈরী করছি। আর গরু দিয়ে হাল চাষ করলে জমিতে ফলন বেশী হয়।

মধুপুর পৌরসভার মেয়র সিদ্দিক হোসেন খান বলেন, বর্তমান কৃষি মন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক এমপি’র চেষ্টায় পরিবর্তনেরই ছোঁয়া লেগেছে কৃষিতে ও কৃষির বিপ্লব ঘটছে। তবে,আমাদের এই গ্রামীণ ঐতিহ্য গরু দিয়ে হালচাষ ও গরু পালন এগুলো টিকিয়ে রাখতে হবে। আমাদের আবারো গরু-লাঙ্গল-জোয়াল নিয়ে কাক-ডাকা ভোরে দেশীয় সংস্কৃতি টিকিয়ে রাখতে কৃষকদের মাঠে গিয়ে চাষাবাদ করা উচিত।

এখন নতুন নতুন আধুনিক বিভিন্ন মেশিন এসেছে, সেই মেশিন দিয়ে এখানকার লোকজন জমি চাষাবাদ করে। তাই গরু, মহিষ, লাঙল, জোয়াল নিয়ে জমিতে হাল চাষ করা এখন হারিয়ে যেতে বসেছে। তবে গরুর গাড়ি শুধু দেখা যায় বাঙালির ঐতিহ্য পহেলা বৈশাখ পালন করতে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840