সংবাদ শিরোনাম:
আসন্ন ঈদ উপলক্ষে টাঙ্গাইলে ব্যাপক যানজটের আশংকা

আসন্ন ঈদ উপলক্ষে টাঙ্গাইলে ব্যাপক যানজটের আশংকা

প্রতিদিন প্রতিবেদক : আসন্ন ঈদ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু সেতু- ঢাকা মহাসড়কের টাঙ্গাইল অংশে ব্যাপক যানঝটের আশংকা করছেন চালক ও যাত্রীরা।

দীর্ঘ দিন ধরে চলে আসা মহাসড়ক ছয় লেনের উন্নতি করনের কাজ ধীর গতিতে চলায় রমজানের শুরুতেই ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে যাত্রীদের।

মঙ্গলবার ভোর রাতে মহাসড়কের প্রায় ৪০ কিলোমিটার দীর্ঘ যানঝটের সৃষ্টি হয়। এতে মহাসড়কের দু’পাশে সহ্রাধিক যানবাহন আটকা পড়ে যাত্রীদের চরম দূভোগের স্বীকার হতে হয়।প্রায় ঘন্টাখানেক পর যানচলাচল স্বাভাবিক হয়।

বিশেষ করে এই মহাসড়কের চন্দ্রা হতে এলেঙ্গা পর্যন্ত সড়কে নির্মানাধীন ১১টি আন্ডার পাসের মধ্যে মাত্র ৩টি খুলে দেওয়া হয়েছে। সেগুলো হচ্ছে ঘারিন্দা আন্ডার পাস, দেওহাটা আন্ডার পাস ও কালিয়াকৈর অংশে কালিয়াকৈর আন্ডার পাস।

বাকি ৮টি আন্ডার পাসের নির্মান কাজ চলায়, সড়কের এই অংশের ঈদে যানজট লেগেই থাকে।এছাড়াও মহাসড়কের প্রায় অংশ গুলোতে রাস্তা ভাঙ্গা এবং খানা খন্দে ভরা থাকায় যান চলাচল করছে অত্যন্ত ধীর গতিতে।

ধীর গতির যান চলাচলের জন্য তৈরী হচ্ছে আলাদা ২টি লেন। এ জন্য যান চলাচলের সড়ক তৈরী জন্য জমি অধিগ্রহনে জটিলতা ও অধিগ্রহনকৃত জমিতে পিডিবির ইলেট্রিক পিলার সরানোর কাজ ধীর গতির কারনে সড়ক উন্নয়নের কাজ চলছে ধীর গতিতে।

এ বছরের ডিসেম্বর মধ্যে এই মহাসড়ক ৬ লেনে উন্নতি করনের কাজ শেষ হবার চুক্তি থাকলেও ধীত গতির কাজের জন্য তা সম্ভব হবে না বলেই ধারনা করছে সড়ক নির্মান সংশিষ্ট ব্যক্তিরা।

এতে করে এবছর ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের চরম ভোগান্তিতে পড়তে হবে বলে আশংঙ্কা রয়েছে।

সোহাগ পরিবহনের চালকের সহকারী মোঃ আমির জানান, এখন থেকেই যানঝট সৃষ্টি হচ্ছে। মাঝে মধ্যে ঘন্টাখানেক বসে থাকতে হয় জ্যামে।এছাড়াও মহাসড়কের বেশীর ভাগ অংশে খনা-খন্দ থাকায় যানবাহন ধীর গতিতে চলে যে কারণে ঈদে যানজট তৈরী হবার সম্ভবনা খুবই বেশী।

কারন এখন পর্যন্ত ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক নির্মান কাজ সম্পূর্ন্ন শেষ হয়নি।

এ সড়কে প্রতিদিন ব্যবসার কারনে চলাচলকারী প্রাইভেট কার চালক সিরাজগঞ্জের উজ্জল কুমার সরকার জানান, আমি প্রতিদিন এই সড়কে যাতায়াত করি। বিশেষ করে এখনই সন্ধ্যার পরে যানঝট সৃষ্টি হচ্ছে। ঈদে যদি বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া না হয়, তাহলে যাত্রীদের ঈদে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হবে।

ঢাকা-রংপুরের মধ্যে চলাচলকারী এসি বাস আগমনীর পরিবহনের যাত্রী ফাল্গুনী আমমেদ জানান, রংপুর থেকে ঢাকায় যাচ্ছি, বেশ ভালো ভাবেই যাচ্ছি কিন্তু রাস্তার কাজের যে অগ্রগতি তাতে ঈদে রংপুরে পরিবার নিয়ে ফেরার সময় কি অবস্থা হবে তাই ভাবছি।

গত বছর বেশ কষ্ট হয়েছিল, এবারও সে ধরনের কষ্ট স্বীকার করতে হবে বলে মনে হচ্ছে।

আশা করি, সরকার যত দ্রুত সম্ভব এই রাস্তার নির্মান কাজ শেষ করবে। এই রাস্তা ব্যবহার করে রাজশাহী ও রংপুর বিভাগে লোক জন যাতায়াত করে। তাই বিষয়টির গুরুত্ব সহকারে নিয়ে দ্রুত কাজ করা উচিৎ।

এই সড়ক নির্মান প্রতিষ্ঠান মীর আখতার লিমিটেডের বাঐখোলা, করটিয়া ও তারটিয়া আন্ডার পাস নির্মানের দায়িত্বে থাকা প্রধান প্রকৌশলী এহ্সান আহমেদ রাজু জানান, ঈদের সময় এই তিনটি আন্ডার পাসের দুটি লেন খুলে দেওয়া হবে। ঢাকা থেকে ঘরমুখো যাত্রীবাহী যান বাহনের চলাচলের জন্য আর একটি লেন খোলা রাখা হবে।

ঢাকার দিকে চলাচলের যানবাহনের জন্য বিশেষ একটি লেন থাকবে।

আশা করা যায়, আসন্ন ঈদে মহাসড়কে কোন ধরনের যানজট সৃষ্টি হবে না। তবে আন্ডার পাস গুলোর কাজ সম্পূর্ণ শেস না হওয়ায় যান চলাচলে কিছুটা অসুবিধা হচ্ছে।

টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, এবার ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের নিরাপদে ফিরতে এবং যানঝট নিরসনে টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৬০০ পুলিশ ও আনসার মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে মোতায়েত থাকবে।

এ ছাড়া বেশ কয়েকটি র‌্যাব ও পুলিশের ভ্রাম্যমান টহল দল থাকবে। এরা যাত্রীদের নিরাপত্তা দেওয়ার সাথে সাথে যানজট নিরসনেও কাজ করবে। আশা করি এবার ঈদে ঢাকা- টাঙ্গাইল মহাসড়কের টাঙ্গাইল অংশে কোন ধরনের যানজট সৃষ্টি হবে না।

টাঙ্গাইল রোডর্স এন্ড হাইওয়েজের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আমিমুল এহ্সান জানান, ধীর গতির যান চলাচলের সড়ক তৈরীর ভূমি অধিগ্রহনে জটিলতা ও অধিগ্রহনকৃত জমিতে পিডিবি’র ইলেট্রটিক পিলার সরানোর কাজ দেরি হওয়ায় আমাদের কাজের গতিও বাড়াতে পারছি না।

ইতিমধ্যে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে নিমানাধীন ১১টি আন্ডার পাসের মধ্যে ঘারিন্দা, দেওহাটা ও কালিয়াকৈর আন্ডার পাস যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে।

বাকি গুলোর খুব দ্রুত খুলে দেওয়া হবে। আশা করি ঈদে মহাসড়কে কোন প্রকার যানঝট সৃষ্টি হবে না।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840