ঋতু পরিবর্তনে শিশুদের সর্দি-কাশি

ঋতু পরিবর্তনে শিশুদের সর্দি-কাশি

স্বাস্থ্য ডেস্ক: যে কোন ঋতু পরিবর্তনের সময় শিশুদের অসুস্থ হতে দেখা যায়। বিশেষ করে ঋতু পরিবর্তনে সর্দি- কাশিতে বেশি আক্রান্ত হয় শিশুরা। মূলত শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বড়দের তুলনায় কম থাকে এবং পরিবেশের সাথে নিজেকে খাপ খাইয়ে নিতে সময় লাগে। অন্য দিকে ঋতু পরিবর্তনকালীন সময়ে ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস, ছত্রাক জীবাণু প্রাকৃতিক ভাবেই সক্রিয় হয় এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম সম্পন্ন উপযুক্ত পোষক (ঐড়ংঃ) পেলে তাকে আক্রান্ত করে।

ঋতু পরিবর্তনে সক্রিয় হয় এমন ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়ার মধ্যে নিউমোকক্কাই, ম্যানিনগোকক্কাই, হিমোফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা উল্লেখযোগ্য। তবে ভাইরাস সংক্রমণের হার সর্বাধিক। এডেনোভাইরাস, রাইনোভাইরাস, রেসপাইরেটরী সিনসাইটিয়াল ভাইরাস, ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস বিশেষ উল্লেখযোগ্য। জীবাণুগুলো সাধারণত হাঁচি কাশির মাধ্যমে ছড়িয়ে থাকে।

লক্ষণঃ জ্বর, শরীর ব্যাথা, শরীর ম্যাজম্যাজ করা, মাথা ব্যাথা, নাক দিয়ে পানি পড়া, কাশি, গলা ব্যাথা, খাবারে অনীহা, অতিরিক্ত কান্নাকাটি ইত্যাদি লক্ষণ এর পাশাপাশি তীব্র সংক্রমণে শ্বাসকষ্ট হতে দেখা যায়।

চিকিৎসা ও পরামর্শঃ
১.ঋতু পরিবর্তনের সময় পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে নেয়ার জন্য পর্যাপ্ত ব্যাবস্থা গ্রহণ করা উচিৎ। যেমন শীত থেকে গরম কালের পরিবর্তনের ক্ষেত্রে পর্যাপ্ত আলো বাতাসের ব্যাবস্থা করা, নিয়মিত গোছল করা, আরামদায়ক সুতি কাপড় পরিধান করা ইত্যাদি ব্যাবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
২. জ্বর আসলে ডাক্তারের পরামর্শে বয়স ও ওজন অনুসারে প্যারাসিটামল ঔষধ সেবন করা যেতে পারে এবং বার বার কুসুম গরম পানি দ্বারা ভেজা গামছা দিয়ে স্পঞ্জিং করতে হবে। আমরা অনেকে শুধু কপালে জলপট্টি ব্যবহার করি। এটা ঠিক নয়।
৩. বাচ্চাদের সর্দি হলে নাক বন্ধ হয়। যে কারনে শ্বাসকষ্ট শুরু হতে দেখা যায়। তাই নাকে সর্দি থাকলে, নাক পরিস্কার রাখতে হবে। নাক বন্ধ থাকলে, নরমাল স্যালাইন সলিউশন ব্যবহার করা যেতে পারে।
৪. কাশি হলে প্রথমে কুসুম গরম পানি খাওয়ানোর অভ্যাস করা, ৬ মাসের উপরের বাচ্চাদের মধু খাওয়ানো, তুলসীপাতার রস, আদা চা, লেবু চা ইত্যাদি বেশ উপকারের। তবে ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কাশির সিরাপ দেয়া উচিৎ নয়। কারন কাশির ধরনের ভিন্নতার উপর কাশির সিরাপ নির্ধারিত হয়।
৭. সাধারণ সর্দি কাশি প্রাথমিক চিকিৎসাতে ৫-৭ দিনের মধ্যে প্রাকৃতিক ভাবেই ভালো হয়ে যায়। তবে কিছু ক্ষেত্রে নিউমোনিয়া, ব্রংকিওলাইটিসের মতো জটিল আকার ধারণ করতে পারে। সেক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। আমরা যা করি, তা হলো কোন বিশেষজ্ঞর পরামর্শ ছাড়াই বাচ্চাকে যত্রতত্র এন্টিবায়োটিক খাওয়াই। এটা ঠিক নয়। মনে রাখবেন বাচ্চার ঠান্ডা কাশির কারন যদি ভাইরাসজনিত হয় তাহলে আপনার এন্টিবায়োটিক কোন কাজেই আসেনি, বরং কোন কোন ক্ষেত্রে ক্ষতি করেছে। অতএব চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া এন্টিবায়োটিক নয়।
প্রতিরোধঃ
১. পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা, হাত ধোয়ার অভ্যাস, হাঁচি কাশিতে রুমাল বা টিস্যু ব্যবহার ও সচেতনতা সর্দি কাশি প্রতিরোধে সবচেয়ে বড় সহায়ক।
২. জাতীয় টিকা দান কার্যক্রমের আওতায় নিউমোনিয়ার টিকা গ্রহণ।
লেখক- ডাঃ মোঃ কায়সার মাহমুদ, নবজাতক ও শিশু রোগ বিষয়ক চিকিৎসক

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840