এনজিও বন্ধ হওয়ার শঙ্কায় গ্রাহকরা, প্রতারনার আরেক নাম বহুমুখী দেশ উন্নয়ন সংস্থা

এনজিও বন্ধ হওয়ার শঙ্কায় গ্রাহকরা, প্রতারনার আরেক নাম বহুমুখী দেশ উন্নয়ন সংস্থা

বিশেষ প্রতিবেদক: টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গাতে একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা (এনজিও) “বহুমুখী দেশ উন্নয়ন সংস্থার” বিরুদ্ধে গ্রাহকদের সাথে প্রতারণা, এনজিও বিধিমালা লঙ্গল, সরকারি অনুদানের অর্থ নয়ছয়সহ নানা অভিযোগ ওঠায় ওই সংস্থাটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন প্রায় ৪ সহ¯্রাধিক গ্রাহক।

জনা যায়, ওই এনজিওর মালিক (নির্বাহী পরিচালক) আব্দুল হালিম ও ম্যানেজার আনোয়ার হোসেন পরস্পরের যোগসাজশে স্থানীয় লোকজনদেরকে প্ররোচিত করে তাদের কাছ থেকে সঞ্চয় ও এফডি আর এর নামে বিপুল পরিমান অর্থ হাতিয়ে নেন। সম্প্রতি বড়বাশালিয়া এলাকার বেশ কিছু গ্রাহকের সঞ্চয় ও এফ ডি আরের টাকা ফেরত না দেয়া ও তাদের সঞ্চয় ও এফ ডি আরের বই কৌশলে জমা নিয়ে তাদের সাথে প্রতারণা করার বিষয়টি “টাঙ্গাইল প্রতিদিন “পত্রিকায় প্রকাশ হওয়ায় ওই সংস্থার ৪ সহগ্রাধিক সদস্য তাদের জমানো টাকার নিরাপত্তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করছেন। ওই এনজিও’র গ্রাহকদের ধারনা যে কোন সময় বহুমুখী দেশ উন্নয়ন সংসদ উধাও হয়ে যেতে পারে বা তাদের প্রতারণার জন্য সরকার ওই সংস্থার কার্যক্রম বন্ধ করে দিতে পারেন।

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বহুমুখী দেশ উন্নয়ন সংসদের নির্বাহী পরিচালক আব্দুল হালিম এনজিও বিধিমালা লঙ্গন করে দীর্ঘদিন যাবত ওই সংস্থার নির্বাহী পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। একইভাবে তারা কয়েকজন ব্যক্তি (যারা পরিচালনা পরিষদে আছেন) তারা এনজিও’র আড়ালে মহাজনী সুদের ব্যবসা পরিচালনা করছেন। আব্দুল হালিম ও তার সহযোগীরা চড়াসুদে অর্থ লগ্নী ও স্বর্ণালংকার বন্ধক রেখে মহাজনী সুদের কারবার করে গত কয়েক বছরে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলেও গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বহুমুখী দেশ উন্নয়ন সংসদ নামে ওই এনজিওর ক্ষতিগ্রস্ত বড়বাশালিয়া গ্রামে গ্রাহকরা দীর্ঘদিনেও তাদের জমানো সঞ্চয় ও এফ ডি আরের টাকা ফেরত না পাওয়ায় ওই এনজিওর প্রতি স্থানীয়দের বিরূপ ধারনার সৃষ্টি হয়েছে। ওই এলাকার মানুষেরা মনে করছেন, যদি সরকারের হস্তক্ষেপে এস ডি এস, ডেসটিনি, আধারের আলো’র মতো বন্ধ হয়ে যায় তবে এলাকার গ্রাহকদের ভোগান্তির শেষ থাকবেনা।

এ ব্যাপারে দেশ উন্নয়ন বহুমুখী সংসদের নির্বাহী পরিচালক আব্দুল হালিম “টাঙ্গাইল প্রতিদিন “কে বলেন, আপনারা তো আমাদের বিরুদ্ধে লিখছেনই, যত পারেন লিখেন। এলেঙ্গা পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বরকত বলেন, বড়বাশালিয়ার জনৈক ব্যক্তি ওই এনজিওতে টাকা পান এবং তার পাওনা টাকা পরিশোধ না করায় ওই ব্যক্তি আমাকে জানালে কয়েক মাস আগে আমি হালিম সাহেবকে পাবলিকের টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য বলেছি, কিন্ত তারা ওই টাকা পরিশোধ করেন নাই। তারপরও পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর আমি পুনরায় হালিমকে পাওনাদারদের টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য তাগিদ দিলে হালিম বলেছেন জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে তারা টাকা পরিশোধ করবেন। আমি গরিব মানুষদের জমানো টাকা দ্রুত ফেরত দেওয়ার দাবী জানাচ্ছি।

টাঙ্গাইল সমাজ সেবা অফিসের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ শাহ আলম বলেন, ক্ষুদ্র ঋন বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেওয়ার কর্তৃপক্ষ হচ্ছে মাইক্রো ক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটি। তারা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার মালিক তবে ওই এনজিও টি সমাজ সেবা অধিদপ্তরের রেজিস্ট্রেশন ভূক্ত তাই ওরা যদি সত্যি কোন অনিয়ম করে থাকে তাহলে ওদের রেজিস্ট্রেশন বাতিলের জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে আমি চিঠি লিখবো।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840