সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে ১৬ সরকারি প্রতিষ্ঠানে উড়ছে না জাতীয় পতাকা টাঙ্গাইলে ওয়ালটনের নন স্টপ মিলিয়নিয়ার অফার উপলক্ষে র‌্যালী কালিহাতীতে আওয়ামীলীগ-সিদ্দিকী পরিবার মুখোমুখি টাঙ্গাইলের তিন উপজেলায় মাঠ-ঘাট চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ভাইয়ের মৃত্যু রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫
কতৃপক্ষের অবহেলায় টাঙ্গাইলের সাথে লাখো মানুষের যোগাযোগ বন্ধ

কতৃপক্ষের অবহেলায় টাঙ্গাইলের সাথে লাখো মানুষের যোগাযোগ বন্ধ

প্রতিদিন প্রতিবেদক : ব্রীজটি দীর্ঘ দিন ধরে ঝুকিপূর্ণ ছিল। ঝুকিপূর্ণ জেনে ব্রীজের উপর ব্রীজ তৈরী করেন উপজেলা এলজিইডি কতৃপক্ষ ও উপজেলা প্রশাসন।

এতে ঝুকি আরো বেড়ে গিয়ে সদরের সাথে যোগাযোগের একমাত্র রাস্তা হওয়ায় ভয়ে প্রতিদিন সহ্রাধিক যানবাহন ও লাখো মানুষ ঝুকি নিয়ে চলাচল করতো।

শনিবার সকালে বাসাইল-টাঙ্গাইল সড়কের নাকাছিম এলাকায় লাঙ্গুলিয়া নদীর ওপর নির্মিত বেইলী ব্রিজটি দেবে গিয়ে বাসাইল ও সখীপুর উপজেলার সাথে টাঙ্গাইলের সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

চরম ভোগান্তিতে পড়েছে পথচারী সহ দুই উপজেলার লাখো মানুষ।

তবে বড় ধরনের কোন দূর্ঘটনা না ঘটনায় বেঁচে গেলেন লাখো পথচারী।

ব্রীজটি দেবে যাওয়ার পর থেকেই রাস্তার দু’পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

বর্তমানে ব্রিজটির উভয় পাশে গাড়ি রেখে যাত্রীরা পায়ে হেঁটে বিকল্প ভাবে যাতায়াত করছেন।

বাসাইল, সখীপুর উপজেলা ছাড়াও উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সাধারণ মানুষের টাঙ্গাইল শহরে পৌঁছানোর একমাত্র সড়ক এটি। এছাড়াও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানজট হলে বিকল্প হিসেবে এই সড়কটিও ব্যবহার করা হয়।

সরেজমিনে জানা যায়, ব্যস্ততম সড়কটির নাকাছিম এলাকায় লাঙ্গুলিয়া নদীর ওপর নির্মিত ব্রিজটি গত ১৩ ফেব্রুয়ারি দেবে যায়। পরেরদিন ১৪ ফেব্রুয়ারি ব্রিজটির ওপর সংশ্লিষ্টরা বেইলী ব্রিজ নির্মাণ করেন।

এই বেইলী ব্রিজটি পূনরায় শনিবার (১৮ মে) পাটাতন দেবে যায়। ফলে এই সড়কে যাতায়াতরত সকল প্রকার যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। পরে সংশ্লিষ্টরা সকাল থেকেই ব্রিজটির মেরামতের কাজ শুরু করেছেন।

বাসাইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী শহীদুল ইসলাম জানান, ‘বেইলী ব্রিজটির পাটাতন হেলে পড়েছে। পরে কর্তৃপক্ষ বেইলি ব্রিজটির পাটাতন মেরামত শুরু করেছে। সন্ধ্যার মধ্যেই মেরামতের কাজ শেষ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’

উল্লেখ্য, দেশের প্রতি সামান্যতম ভালবাসা থাকলে কোন ঠিকাদার বা কর্মকর্তা এধরনের ঝুকিপূর্ণ ব্রীজ কখনোই তৈরী করতেন না।

কারণ এই ব্রীজ দিয়ে প্রতিদিন নিজ এলাকার লাখো মানুষ ও যানবাহন চলাচল করবে এই সামান্যতম জ্ঞান থাকলে মানুষ এ রকম অজস্র ব্রীজ তৈরী করার সাহস হতো না।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840