কালিহাতীতে ধর্ষক ও সহায়তাকারী আটক

কালিহাতীতে ধর্ষক ও সহায়তাকারী আটক

মনির হোসেন কালিহাতী : কালিহাতী উপজেলার পারখী ইউনিয়নের পূর্বাসিন্দা গ্রামে স্কুল ছাত্রীর ধর্ষক ও সহায়তাকারীকে আটক করেছে পুলিশ।

আটককৃতরা হলো, পারখী ইউনিয়নের পূর্বাসিন্দা গ্রামের রায় মোহনের ছেলে রাম প্রসাদ (২০) ও ধর্ষকের ফুফাতো বোন রত্না সূত্রধর (২৫)।

পরে আটককৃতদের আদালতে প্রেরণ করা হয়। আদালত তাদের জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

পুলিশ সালিশের মাতাব্বরদের চাপ দিয়ে তাদের সহযোগিতায় ধর্ষিতা পরিবারের লোকজনকে উদ্ধার করেন।

একই সাথে ধর্ষিতার বাবাকে বাদি করে রাম প্রসাদ ও রত্না রানীর নামে মামলা গ্রহন করেন।

ধর্ষিতার বাবা মামলার বাদী জানান, স্কুলে যাওয়া-আসার পথে আমার নাবালিকা পঞ্চম শ্রেনীর ছাত্রীকে ফুসলিয়ে প্রেমের ফাঁদে ফেলে রাম প্রসাদের ফুফাতো বোনের ঘরে একাধিক বার ধর্ষণ করে।

ফলে আমার মেয়ে অন্ত:সত্ত্বা হয়ে পড়ে। ধর্ষক রাম প্রসাদ কৌশলে তার ফুফাতো বোন রত্না রানীর সহযোগিতায় গর্ভপাত নষ্ট করার জন্য ওষুধ খাওয়ায়।

পরে বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয় ইউপি সদস্য কদ্দুস, ওই ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি খসরু ও মাতাব্বর সাইফুল সালিশের আয়োজন করেন।

বৃহস্পতিবার (২ মে) রাতে বিষয়টি মীমাংসার জন্য স্থানীয় ইউপি সদস্য কদ্দুস ও আওয়ামী লীগ নেতা খসরু ও মাতাব্বর সাইফুল ইসলাম শালিসের মাধ্যমে ধর্ষণের জন্য ধর্ষকের পরিবার থেকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা নিয়ে নিজেরা ভাগভাটোয়ার করে নেন।

পরে আমাদের প্রাণনাশের হুমকি ধামকি দিয়ে গ্রামছেড়ে অন্যত্র স্থানে চলে যেতে বলে মাতাব্বররা।

কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্ম কর্মকর্তা (ওসি) মীর মোশারফ হোসেন জানান, ধর্ষিতাকে মেডিকেল করার জন্য টাঙ্গাইল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ধর্ষক রাম প্রসাদ ও সহযোগী রত্না কে আটক করে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে এবং এ ঘটনায় কালিহাতী থানায় মামলা দায়ের করেছেন ধর্ষিতার বাবা।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (২ মে) রাতে বিষয়টি মীমাংসার জন্য স্থানীয় ইউপি সদস্য কদ্দুস ও আওয়ামী লীগ নেতা খসরু ও মাতাব্বর সাইফুল ইসলাম শালিসের মাধ্যমে ধর্ষণের জন্য ধর্ষকের পরিবার থেকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা নিয়ে নিজেরা ভাগভাটোয়ার করে।

হুমকি ধামকি দিয়ে ধর্ষিতা পরিবারকে গ্রামছেড়ে অন্যত্র স্থানে রাখার সিদ্ধান্ত নেয় তারা।

পরে বিষয়টি বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচার হলে এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়।

পুলিশ সালিশের মাতাব্বরদের চাপ দিয়ে তাদের সহযোগিতায় ধর্ষিতা পরিবারের লোকজনকে উদ্ধার করে মামলা নেয়।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840