কালিহাতীতে ধর্ষণের পর ৯ মাসের গর্ভবতী স্কুল ছাত্রীকে গ্রামছাড়া করেছে মাতাব্বররা

কালিহাতীতে ধর্ষণের পর ৯ মাসের গর্ভবতী স্কুল ছাত্রীকে গ্রামছাড়া করেছে মাতাব্বররা

প্রতিদিন প্রতিবেদক : কালিহাতী পৌর এলাকায় ৯ মাসের গর্ভবতী সপ্তম শেনীর ছাত্রীকে সাড়ে ৪ লাখ টাকা বিনিময়ে প্রভাবশালী মহল গ্রামছাড়া করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কালিহাতী পৌর সভার উত্তর বেতডোবা এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে।

স্থানীয়রা জানান, পৌরসভার প্রভাবশালী ষষ্টি পাল(৫০), রনি পালের ছেলে মিঠু পাল (২২) ও নিতাই পালের ছেলে প্রশান্ত পাল (২১) একই এলাকার সপ্তম শেনীর ছাত্রীকে জোর পুর্বক একা পেয়ে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের ফলে ১৩ বছরের শিশুটি ৯ মাসের গর্ভবতী হয়ে পড়েছে।

ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর মঙ্গলবার রাতে বিষয়টি মীমাংসার জন্য স্থানীয় কাউন্সিলরের মাধ্যমে সাড়ে ৪ লাখ টাকা বিনিময়ে ওই গর্ভবতী সপ্তম শেনীর ছাত্রীকে গ্রামছাড়ে অন্যত্র স্থানে রাখার সিদ্ধান্ত দেন।

স্থানীয়রা জানান, ওই ৯ মাসের গর্ভবতী শিশুটিকে বাচ্চা নষ্ট করার জন্য তাকে এলাকা ছাড়ে অন্যত্র এলাকায় রেখেছে। গর্ভবতী করার সময় ওই শিশুটিও দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে মনে করেন।

কালিহাতী পৌর সভার কাউন্সিলর অজয় কুমার লিটন দে জানান,, ‘ঘটনাটি শুনেছি তবে মীমাংসার বিষয়ে জানিনা। সংবাদ প্রকাশ না করার জন্য বলেন তিনি।
ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছেন অভিযুক্ত ষষ্টি পাল, মিঠু পাল, প্রশান্ত পাল। তাদের বাড়িতে পাওয়া যায়নি।

তবে ষষ্টি পালের স্ত্রী জানান, স্থানীয় মাতাব্বররা মীমাংসা করে দিয়েছে।

এদিকে ৯ মাসের গর্ভবতী শিশুটিকে বাড়িতে গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। স্থানীয়রা জানান, তাকে অন্যত্র স্থানে লুকিয়ে রেখেছে বাচ্চা গর্ভবতী করার জন্য।

কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর মোশারফ হোসেন জানান, এ বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেনি।

কালিহাতী থানা তদন্ত (ওসি) নজরুল ইসলাম বিস্তারিত খোঁজ নিতে ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পাওয়া গেছে বলে জানান।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840