কালিহাতী উপজেলায় নৌকার ভরাডুবি দলের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে অবস্থান যুবলীগের

কালিহাতী উপজেলায় নৌকার ভরাডুবি দলের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে অবস্থান যুবলীগের

প্রতিদিন প্রতিবেদক : সদ্য সমাপ্ত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে টাঙ্গাইলের ১২টি উপজেলায় তিনটিতে চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা।

আর নয়টি উপজেলায় জনগনের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত হন চেয়ারম্যান ও ভাইচ চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। এরমধ্যে চার উপজেলায় আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীর হয় বিশাল পরাজয়।

আর এ পরাজয়ের নেপথ্যে দলীয় কোন্দল ছিল অন্যতম প্রধান কারন। একই কারনে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোজাহারুল ইসলাম ঠান্ডু বিপুল ভোটে পরাজিত হয়েছেন বলে মনে করছেন তার কর্মী-সমর্থকরা। বিশেষ করে নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে কালিহাতী উপজেলা যুবলীগের ভুমিকা ছিল প্রকাশ্যে।

নির্বাচন পরবর্তী কালিহাতী উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে তৃনমুল নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। আওয়ামী লীগের একাধিক তৃনমুল নেতাকর্মী নাম প্রকাশ না করার শর্তে নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে যুবলীগসহ কতিপয় দলীয় নেতাকর্মীর ভুমিকা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

তারা জানান, নির্বাচনে নৌকা মার্কার প্রার্থী মোজাহারুল ইসলাম ঠান্ডু পরাজিত হওয়ার এসব নেতাদের অনেকে নির্বাচনের দিন পর্যন্ত প্রকাশ্যে নৌকা প্রতীকের বিরোধিতা করেছে। অনেকে আবার গোপনে নৌকা ডুবানোর দায়িত্ব পালন করেছে।

নির্বাচনের দিন দুপুরের দিকে কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাধারন সম্পাদক শাহ আলম মোল্লা ভোটের দিন দুপুরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার ব্যাক্তিগত আইডি থেকে একটি পোষ্ট দেন। আনারস প্রতীকের প্রার্থী আনসার আলী বি.কম এর প্রধান নির্বাচনী এজেন্টের সাথে পোষ্টটি দেন।

এতে তিনি গর্ব করে লিখেন “আনারস মার্কার চিপ এজেন্টের সাথে বিভিন্ন কেন্দ্রে- জিতবে এবার কালিহাতী উপজেলা আনারস”। এ পোষ্টটি দেয়ার পর মুহুর্তেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। এ পোষ্টের কারনে দলীয় ভোটাররা চরম দ্বিধাদ্বন্দ্বে পড়ে যায়।

যুবলীগের একজন গুরুত্বপুর্ন পদে থাকা ব্যাক্তি নৌকার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে অবস্থান নেয়ার বিষয়টি দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে চরম দ্বিধাদ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। একই অবস্থার সৃষ্টি হয় সাধারন ভোটারদের মাঝেও।

একই ভাবে নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নেন কালিহাতী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নুরনবী সরকার। নির্বাচনের আগে ১৮ মার্চ কালিহাতী অডিটোরিয়ামে আনারস প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে উপজেলা আওয়ামী লীগের একটি অংশ সভা করে। সভায় নুররনী সরকার আনারসের পক্ষে জোড়ালো বক্তব্য রাখেন।

এরপর যুবলীগের ব্যানারে আনারসের পক্ষে একটি সভা আহবান করা হলেও জেলা যুবলীগের হস্তক্ষেপ আর বাঁধার কারনে সভাটি বন্ধ হয়ে যায়। পরে নুুরনবী সরকারের নেতৃত্বে নাগরিক যুব সমাজ নামের ব্যানারে নৌকার বিরুদ্ধে আর আনারসের পক্ষে বিশেষ নির্বাচনী সভা করা হয়। এর পর থেকে যুবলীগের নেতাকর্মীদের বড় একটা অংশ এ ব্যানারেই নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া নেয়।

নৌকার বিরুদ্ধে যুবলীগের অবস্থান এবং নুরনবী সরকারের এমন ভুমিকার বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সর্বশেষ কালিহাতী পৌরসভার নির্বানে আনসার আলী বি.কম প্রার্থী হয়ে পরাজিত হয়েছিলেন। আগামীতে মেয়র পদে ইতিমধ্যেই প্রার্থী হয়েছেন কালিহাতী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নুরনবী সরকার।

তাই আগামী পৌরসভা নির্বাচনে নিজের পথ পরিস্কার করতে উপজেলা নির্বাচনে আনসার আলীর পক্ষে শক্ত অবস্থান নেন নুরনবী সরকার।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক এক নেতা বলেন, নৌকা ডুবিয়ে কেউ কালিহাতীর মেয়র হতে পারবেননা। কালিহাতীর মানুষ আর দলের নেতাকর্মীরা এখনো এত বোকা হয়নি। শেখ হাসিনার নৌকাকে যারা অপমান করেছে।

যারা আওয়ামী লীগের নৌকা ডুবিয়েছে তাদের কপালে নৌকা মার্কা নেই বলেও মন্তব্য করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের এই নেতা।

এ ব্যাপারে কালিহাতী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নুরনবী সরকারের সাথে একাধিকবার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে তার সাথে কথা বলা সম্বব হয়নি।

এব্যাপারে জানতে চাইলে টাঙ্গাইল জেলা যুবলীগের সভাপতি রেজাউর রহমান চঞ্চল বলেন, নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ বা যুবলীগের পদধারী কোন নেতার কাজ করার সুযোগ নেই। নির্বাচনের আগে এমন অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হতো।

নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে যুবলীগসহ আওয়ামী লীগের যারা যারা কাজ করেছেন তাদের সনাক্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছে তৃনমুল নেতাকর্মীরা।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840