সংবাদ শিরোনাম:
ঢাকা-টাঙ্গাইল ও বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে ঝুঁকি নিয়ে ট্রাক-পিকআপে বাড়ি ফিরছে ঘরমুখো মানুষ টাঙ্গাইলে “সেফ লাইফ বাংলাদেশ” এর ঈদ উপহার বিতরণ  শিশুদের নিয়ে ঈদ উৎসব করলো দশমিক ফাউন্ডেশন বাসাইলে জোড়া খুন; জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ ফেসবুকে ভুয়া আইডি, থানায় জিডি করলেন নবনির্বাচিত ধনবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান টাঙ্গাইলের ঐতিহ্যবাহী গোপালপুরে শত বছর পুরানো হাটে কুরবানীর পশু ক্রয় বিক্রয় মাভাবিপ্রবিতে রংপুর ডিভিশনাল অ্যাসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন টাঙ্গাইলে প্রাইভেটকার ও গরুবাহীট্রা‌কের মু‌খোমু‌খি সংঘ‌র্ষে তিন নিহত, আহত দুই দেলদুয়ারে আরমৈষ্টা গ্রামে  জামিলা একাডেমির শুভ উদ্বোধন ৯ মাসে ৭ বার টাঙ্গাইল জেলায় শ্রেষ্ঠ অফিসার নির্বাচিত হলেন  মোল্লা আজিজুর রহমান
ঘাটাইলে অটোচালক আলম মিয়ার হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন, ৬ জনকে গ্রেফতার

ঘাটাইলে অটোচালক আলম মিয়ার হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন, ৬ জনকে গ্রেফতার

বিশেষ প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা চালক মো. আলম মিয়ার হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটনসহ ৬ জন আসামীকে গ্রেফতার করেছে টাঙ্গাইল পুলিশ।

পুলিশ জানায়, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ছিনতাই করতে গিয়ে আলম মিয়াকে ঘরে ঢুকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। কিন্তু এ সময় পাশের বাড়ির মানুষ জেগে উঠার শব্দ পেয়ে তারা অটোরিকশাটি ছিনতাই না করেই পালিয়ে যান।

আলম মিয়া হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেপ্তার আনিসুর রহমান খান (৩২) শনিবার (১৫ জুলাই) আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দিতে এ তথ্য জানিয়েছেন। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী পুলিশ হত্যায় জড়িত আরও পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

আদালত পরিদর্শক তানভীর আহমদ জানান, শনিবার (১৫ জুলাই) সন্ধ্যায় আনিসুরের জবানবন্দি নেওয়া শেষ হয়। সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বেগম ইসমত আরা তার জবানবন্দি লিপিবদ্ধ করেন। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (উত্তর) উপ-পরিদর্শক (এসআই) মনির হোসেন জানান, ঘাটাইল উপজেলার সুনটিয়া গ্রামের অটোরিকশাচালক আলম মিয়াকে (৪৫) সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে বৃহস্পতিবার (১৩ জুলাই দুষ্কৃতিকারীরা গলাকেটে হত্যা করে। পরে তার বোন কামরুন্নাহার বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে হত্যা মামলা করেন।

গোয়েন্দা পুলিশ জানায়, এই হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে আনিসুর রহমান খানকে শুক্রবার (১৪ জুলাই) গ্রেপ্তার করা হয়। আনিসুর সুনটিয়া গ্রামের হারুন খানের ছেলে। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন এবং হত্যায় তার সহযোগীদের নাম প্রকাশ করেন। পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী হত্যায় ব্যবহৃত শাবল ও দা উদ্ধার করা হয়।

তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে মো. রায়হান (১৯), খায়রুল (১৯), আব্বাস (৪০), হুমায়ন (৪৯) ও মো. সজলকে (২৫) শনিবার (১৫ জুলাই) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের সবার বাড়ি ঘাটাইলের সুনটিয়া গ্রামে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক মনির হোসেন জানান, গ্রেপ্তার অপর পাঁচজনকে রোববার (১৬ জুলাই) আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড চাওয়া হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840