সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে ১৬ সরকারি প্রতিষ্ঠানে উড়ছে না জাতীয় পতাকা টাঙ্গাইলে ওয়ালটনের নন স্টপ মিলিয়নিয়ার অফার উপলক্ষে র‌্যালী কালিহাতীতে আওয়ামীলীগ-সিদ্দিকী পরিবার মুখোমুখি টাঙ্গাইলের তিন উপজেলায় মাঠ-ঘাট চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ভাইয়ের মৃত্যু রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫
ঘাটাইলে পাহাড় ও বন কাটার ধুম পরেছে।।চরম বিপর্যয়ে পরিবেশ

ঘাটাইলে পাহাড় ও বন কাটার ধুম পরেছে।।চরম বিপর্যয়ে পরিবেশ

প্রতিদিন প্রতিবেদক ঘাটাইল : ঘাটাইলে প্রকাশ্যে চলছে পাহাড় ও বন কাটার কার্যক্রম।স্থানীয় প্রশাসনের সন্নিকটে দিন-রাত বিরামহীন ভাবে বিক্রি হচ্ছে পাহাড়ের মাটি ও বনের গাছ।একই ভাবে দখল করা হচ্ছে সরকারি জমি।

জোর বলে দূনীতির মাধ্যমে ভূয়া কাগজপত্র তৈরী করে নাম মাত্র মূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষদের কাছে।

যে কারনে ধ্বংসের ধারপ্রান্তে উপজেলার লাল মাটির টিলার পাহাড়।এতে একদিকে সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে অপরদিকে চরম বিপর্যয়ে পড়েছে পরিবেশ।

পাহাড় খেকোদের প্রতিযোগিতায় ঝড়-বৃষ্টির মহাবির্যয়ে মধ্যে বসবাস করতে হচ্ছে অসহায় দারিদ্র পরিবারদের।

সরেজমিনে উপজেলার বন বিভাগের ধলাপাড়া রেঞ্জের চৌরাশা বিট, বটতলা বিট ও দেওপাড়া বিট এলাকার দেলুটিয়া, গৌরীশ্বর, বারইপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, উঁচু উঁচু টিলা কেটে বন বিভাগের জমিতেই বাড়ি-ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে।

উপজেলার পাহাড়িয়া অঞ্চলের ছয়টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, লাল মাটির টিলা কেটে অসংখ্য বসতি স্থাপন করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, সংরক্ষিত বন ধ্বংসের পর বন বিভাগ কে ম্যানেজ করেই পাহাড় কাটার মহাউৎসব চলছে। বন কর্মকর্তাদের হয়রানির ভয়ে এ ব্যাপারে কেউ মুখ খুলতে চাইছে না।

উপজেলার কাছরা গ্রাম থেকে বারইপাড়া হয়ে দেওপাড়া বাজার পর্যন্ত গেলে চোখে পড়ে পাহাড় কাটার নানা দৃশ্য। এই এলাকায় অবস্থিত নানা উচ্চতার টিলাগুলো কাটা হচ্ছে দিবালোকে। আর মাটি নিয়ে ভরাট করা হচ্ছে কাছরা গ্রামের সোনা মিয়ার পুকুর।

সোনা মিয়া জানান, ‘আমি আমার পুকুর ভরাট করতে ছামনা গ্রামের সাইদের সঙ্গে চার লাখ টাকায় চুক্তি করেছি। সে পাহাড় কেটে মাটি এনে পুকুর ভরাট করছে। পাহাড় কাটার সঙ্গে আমি জড়িত নই।’

ছামনা গ্রামের মাটি ব্যবসায়ী সাইদ জানান, ‘টিলাটি দেলুটিয়া গ্রামের মনসুরের রেকর্ডের জমি জেনেই মাটি কাটতে গিয়েছিলাম। স্থানীয় প্রশাসন নিষেধ করায় মাটি কাটা বন্ধ করে দিয়েছি।’

এদিকে বটতলা বিটের গৌরীশ্বর মৌজার শাল-গজারি বনঘেরা জানেরপাড় এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ভ্যাকু দিয়ে কাটা হচ্ছে পাহাড়।

ধলাপাড়া রেঞ্জ কর্মকর্তা আ. হামিদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ‘ঘটনাস্থলে গিয়ে মাটিকাটা বন্ধ করে দিয়েছি।কোন জমিতেই পাহাড় কাটার আইনি কোনো বৈধতা নেই। এলাকায় পাহাড় কাটা বন্ধে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ঘাটাইলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) নূর নাহার বেগম জানান, ‘পাহাড় কাটা দণ্ডণীয় অপরাধ। দেলুটিয়ায় পাহাড় কাটা হচ্ছে।এ খবর পেয়েই আমি ঘটনাস্থলে যাই। কিন্তু সেখানে গিয়ে কাউকে পাইনি। তাই সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া যায়নি।

তবে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সবাইকে এ ব্যাপারে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে পাহাড় কাটার সঙ্গে জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। পাহাড়খেকোদের অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে।’

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840