ঘারিন্দায় রাতের আঁধারে নদীর তীরে মাটি কেটে বিক্রি

ঘারিন্দায় রাতের আঁধারে নদীর তীরে মাটি কেটে বিক্রি

বিশেষ প্রতিবেদক: টাঙ্গাইল সদর উপজেলার ঘারিন্দায় রাতের আঁধারে ঝিনাই নদীর তীরে মাটি কেটে বিক্রি করছে একটি চক্র। নদী তীরের মাটি এক্সকাভেটর (ভেকু) দিয়ে কেটে ট্রাকে ট্রাকে বিভিন্ন জায়গায় পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। সন্ধ্যার পর থেকে ভোর পর্যন্ত চলে এই দৌরাত্ম্য। এতে রাস্তা, ফসলি জমি এবং ঘরবাড়ি হুমকিতে পড়েছে। ভুক্তভোগী এলাকাবাসী এ ব্যাপারে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

সরজমিনে দেখা যায়, সদর উপজেলার ঘারিন্দা ইউনিয়নের সুরুজ চরপাড়া ঝিনাই নদীর পাড় দিয়ে প্রকল্পের আওতায় ব্লক ফেলে রক্ষা বাধসহ নদী ভাঙ্গণ বন্ধ করলেও ভূমিদস্যুদের কারণে নদীতে যে ব্লক আছে বর্ষা মৌসুমে তা রক্ষা করা দায়সারা হয়ে পড়বে। জানা যায়, বিগত ৭দিন যাবৎ এই নদী পাড়ের মাটি কাটা হচ্ছে। দিনের বেলায় ভেকু থাকে পর্দার আরালে। আর রাত হলেই চলে মাটি কাটার মহোৎসব। স্থানীয় প্রভাবশালী মুকুল, সালামসহ তাদের অনুসারী কয়েকজন মিলে নদীর তীরের দুটি অংশে দুটি ভেকু দিয়ে অবাধে মাটি কেটে বিক্রি করছে। প্রশাসন ও এলাকাবাসীর তোয়াক্কা না করেই তারা প্রভাব খাটিয়ে এই কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানা যায়। এই মাটি কাটার কারনে ওই এলাকায় চলাচলের রাস্তা অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। রাস্তার বিভিন্ন অংশে ভেঙ্গে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। মাটি বহনের কারণে আশেপাশের বাড়িগুলো ধুলোয় ছেয়ে যাচ্ছে। ফলে ছোট ছোট শিশুবাচ্চা নিয়ে ওই এলাকায় বসবাস করা অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন জানান, ধুলোবালিতে ঘড়-বাড়ি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। সন্ধ্যার পর থেকেই রাত ভর ট্রাকে মাটি পরিবহন করায় গ্রামীণ সড়কগুলো ধসে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ছে। রাস্তায় পানি দিয়ে গাড়ি চালাতে বললে তারা কোন কথা শুনছে না। আমরা প্রতিবাদ করলে আমাদের বিভিন্ন হুমকি-ধামকি দেয়। সারারাত গাড়ির শব্দে ঘুম পাড়াতো দূরের কথা ছোট ছোট বাচ্চাদের নিয়ে চিন্তায় থাকতে হয় যে কখন যেন দৌড়ে গাড়ির নিচে চলে যায়। এই অবৈধভাবে মাটি বহন থেকে পরিত্রান চাই’।

শামছুল হক নামের স্থানীয় এক ব্যক্তি জানায়, ভেকু নষ্ট হওয়ায় কয়েকদিন ধরে মাটি কাটা বন্ধ ছিলো। আজ (বুধবার) রাত থেকে আবার মাটি কাটা শুরু হয়েছে। আপনারা মালিকের সাথে যোগাযোগ করেন। তিনি আপনাদের সাথে কথা বলবে।

এ ব্যাপারে মাটি ব্যবসায়ী মুকুল জানান, আমি অল্প কয়েকদিন যাবৎ নদীর পারে আমার জমি থেকে মাটি কাটছি। সব জায়গায় ম্যানেজ করেই কাজ হয়। রাস্তার বিষয়ে কথা জানতে চাইলে তিনি বিষটি এড়িয়ে যান।

অপর মাটি ব্যবসায়ী সালাম জানায়, আমি অনেক আগে নদীর পাড়ে একটি জমি ক্রয় করেছিলাম। এখন সেখান থেকে কিছু মাটি বিক্রি করছি। এতোদিন বন্ধ ছিলো। এখন রাতের বেলায় কাটছি। আর জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের সাথে কথা বলেই মাটি কাটছি।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা রানুয়ারা খাতুন জানান, রাতে মাটি কাটে বিষয়টি জানা ছিলো না। প্রশাসনের পক্ষ থেকে কাউকে মাটি কাটার অনুমতি দেওয়া হয়নি। যদি কেউ বলে থাকে তাহলে মিথ্যা কথা বলে মাটি কাটছে। এ বিষয়ে মাটি ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইন গত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840