সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে টিচার্স ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে মেধাবী শিক্ষার্থীদের সনদ ও বৃত্তি প্রদান কালিহাতীতে নিখোঁজের ৮ দিন পর ধান ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার সখীপুরে ৫৩ তম মুক্তিবাহিনী দিবস পালিত ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মসজিদ কর্তৃপক্ষকে মারধরের হুমকি দেয়ার অভিযোগ গোপালপুরে দারোগার মাথা ফাটিয়েছে সন্ত্রাসীরা; গ্রেফতার ১৬ মির্জাপুরের সময়ের কথা এনজিওর দুই মালিক গ্রাহকের লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে উধাও,অনশনে ভূক্তভোগীগন ঘাটাইলে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী টাঙ্গালে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সমাবেশ কে কেন্দ্র করে চরম উত্তেজনা  বাতিঘর আদর্শ পাঠাগারের উদ্যোগে উচ্চশিক্ষা বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত টাঙ্গাইলে ব্যবসায়ীক ঝামেলাকে কেন্দ্র করে একজনকে কুপিয়ে আহত
টাঙ্গাইলের চরমপন্থী নেতারা ধরা ছোয়ার বাইরে

টাঙ্গাইলের চরমপন্থী নেতারা ধরা ছোয়ার বাইরে

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইল সদর উপজেলার পশ্চিমাঞ্চলের চরমপন্থীর শীর্ষ নেতারা ধরা ছোয়ার বাইরে। এ সব নেতাদের কারণে এখনো জনসাধারণের মাঝে আতংক বিরাজ করছে।

স্থানীয় প্রশাসন একাধিকবার এব্যাপারে অভিযান চালালেও তারা ভিন্ন ভিন্ন ছদ্ধ বেশে এলাকা সহ শহরের বিভিন্ন রাজনৈতিক ও জনসমাবেশে মিশে নিজেদের আড়াল করে রাখছেন।

তাদের দিয়ে বিভিন্ন কার্যকলাপ চালাচ্ছেন স্থানীয় সুবিধাবাদী রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দরা।

যে কারণে প্রশাসন বার বার অভিযান চালিয়েও ব্যার্থ হচ্ছেন।

কিন্তু এখনো রাতের আঁধারে অবৈধ অস্ত্রের ঝনঝনানিতে আতঙ্কে দিন কাটে বাঘিল, দাইন্যা, হুগড়া, গালা ও কাকুয়া ইউনিয়নের কয়েক লাখ সাধারণ মানুষের।

র‌্যাব-পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে বিভিন্ন সময় চরমপন্থী দলের অন্তত ১২ সদস্য মারা গেলেও ধরা-ছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে দলের শীর্ষস্থানীয় নেতারা। চরমপন্থীদের ভয়ে এলাকা ছেড়ে বিদেশে বা অন্যত্র পাড়ি জমিয়েছেন শতাধিক যুবক।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, টাঙ্গাইলে ২০০০ সালে চরমপন্থী আত্মপ্রকাশ পায়। ২০০০ সালের ৫ মে সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়নের জনপ্রিয় চেয়ারম্যান মজনুকে হত্যার মাধ্যমে প্রকাশ্যে আসে নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি (সর্বহারা-লাল পতাকা)। এরপর গত ১৬ বছরে তাদের হাতে অন্তত ২০ জন সাধারণ মানুষ খুন হয়েছে। আর অভ্যন্তরীন কোন্দল ও বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছে প্রায় ১৫ চরমপন্থী।

চরমপন্থীদের হাতে সাধারণ মানুষের হত্যাকান্ডের ঘটনায় মামলা হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রে সাক্ষীদের ভয় দেখিয়ে দেশছাড়া ও মিথ্যা সাক্ষ্য দিতে বাধ্য করা হয়। কোনো কোনো মামলার রায় ঘোষণা হলেও অধিকাংশ দন্ডপ্রাপ্ত চরমপন্থী রয়েছে অধরা।

সাক্ষীদের ভয় দেখিয়ে দেশছাড়া কিংবা মিথ্যা সাক্ষ্য দিতে বাধ্য করাই শুধু নয়, এমনকি সাক্ষীকে হত্যা করার নজির আছে। মজনু চেয়ারম্যান হত্যা মামলার সাক্ষী বাঘিল ইউনিয়নের যুগনী গ্রামের পনিরকে (৪৬) কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে চরমপন্থীরা।

এরপর ধারাবাহিকভাবে নানা সময়ে বাঘিল ইউনিয়নের খোর্দ যুগনী গ্রামের বাবলু, গাগরজান গ্রামের খালেক, গুচ্ছগ্রামের কাঙ্গালিয়া, কোনাবাড়ী কাশেমপাড়া কৃষ্ণপুর গ্রামের সেলিম, খোর্দ যুগনী গ্রামের ইদ্রিস, কৃষ্ণপুর গ্রামের শামছুল আলম,

গাগরজান গ্রামের মফিজ উদ্দিন, ছিটকীবাড়ী গ্রামের ওমর আলী, কাঠুয়া যুগনী গ্রামের জামেলা বেগম, বাঘিল ইউপির সাবেক মেম্বার মইষা সেক গ্রামের ইকবাল মেম্বার, গোপালপুর শিবপুর গ্রামের শামছুল আলম, খোর্দ যুগনী গ্রামের বুদ্দু, সাপুয়া গ্রামের বজল, হুগড়া ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার হুগড়া গ্রামের ফুলচান মেম্বার,

একই গ্রামের আব্দুল হক সাব, দাইন্যা ইউনিয়নের দাইন্যা দর্জিপাড়া গ্রামের ফজলু, দাইন্যা ইউনিয়নের তিনবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন এবং মাহমুদ নগর ইউনিয়নের বহুলী গ্রামের পল্লী চিকিৎসক ইকবালকে চরমপন্থী দলের সদস্যরা নানা স্থানে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে।

স্থানীয় চরমপন্থীদের ভয়ে দেশ ছেড়ে বিদেশে পাড়ি জমিয়েছে অনেকে। তাদের মধ্যে বাঘিল ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান কাঠুয়া যুগনী গ্রামের বাবু বেলজিয়ামে, বাঘিল ইউনিয়নের ঢালান শিবপুর গ্রামের মামুনুর রশিদ মামুন ইতালিতে, দাইন্যা ইউনিয়নের দাইন্যা কালীবাড়ী গ্রামের বাবু সিঙ্গাপুরে, দাইন্যা চৌধুরী গ্রামের হাবু ইসলাম সিঙ্গাপুরে পাড়ি জমান।

এ সময়ে চরমপন্থী দলের চার সদস্য অভ্যন্তরীণ কোন্দলে প্রতিপক্ষের হাতে নিহত হন। তারা হলেন, বাঘিল ইউনিয়নের খোর্দ যুগনী গ্রামের ফজল, একই গ্রামের বক্স, গোলাম রব্বানী ও গোপালপুর শিবপুর গ্রামের মোবারক।

এ ছাড়া র‌্যাব ও পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয় ১২ চরমপন্থী। র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত নয় চরমপন্থী হলেন বাঘিল ইউনিয়নের খোর্দ যুগনী গ্রামের সাদ্দাম, চরমপন্থীদের কাছে এমপি হিসেবে পরিচিত ঢালান গোপালপুর গ্রামের আবুল কাশেম, মইষা গ্রামের আকবর মেম্বার ও মনু মিয়া, খোর্দ যুগনী গ্রামের ফজলু ড্রাইভার ও উজ্জল হোসেন, হুগড়া ইউনিয়নের কাশীনগর গ্রামের ওমর ও শেক, গালা গ্রামের চরমপন্থী দলের সভাপতি হিসেবে পরিচিত ফরহাদ ওরফে শরীফ।

পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন তিন চরমপন্থী- বাঘিল ইউনিয়নের মইষা গ্রামের জিন্নত, হুগড়া ইউনিয়নের কাশীনগর গ্রামের সোনা মিয়া ও দাইন্যা ইউনিয়নের দ্বীতপুর গ্রামের পাগলা সোহেল। এদিকে, দন্ডপ্রাপ্ত ও বিচারাধীন মামলার অভিযুক্ত চরমপন্থী দলের শীর্ষস্থানীয় অন্তত ২৩ নেতা দেশের বিভিন্ন এলাকায় আত্মগোপনে থেকে স্থানীয় পর্যায়ে অপরাধ কার্যক্রম চালাচ্ছেন।

তাদের মধ্যে রয়েছেন, বাঘিল ইউনিয়নের যুগনী গ্রামের চরমপন্থী দলের মহাসচিত হিসেবে পরিচিত লতিফ ওরফে রাজু, মহাসচিবের সেকেন্ড ইন কমান্ড হায়দার, একই ইউনিয়নের কোনাবাড়ি গ্রামের মজনু, ছিটকীবাড়ী গ্রামের রোজবেল ওরফে বিদ্যুত, কাঠুয়া যুগনী গ্রামের জামাই শাহীন, মেকার দুলাল, যুগনী (দিঘুলিয়াপাড়া) গ্রামের শরীফ,

ফলিয়ারঘোনা গ্রামের রিন্টু মিয়া, কাঠুয়া যুগনী গ্রামের জহুরুল, শাকিল, হাসান, সাপুয়া গোপালপুর প্রামের রাসেল, যুগনী গ্রামের রুহুল, মজনু, শিবপুর ঘাটের আরান মিয়া, দাইন্যা ইউনিয়নের বাঘিল বাজারের শাহাদত, একই ইউনিয়নের বিন্যাফৈর গ্রামের হাশেম, টাঙ্গাইল পৌরসভার বাইমাইল কাগমারা গ্রামের ওহাব আলী, কাগমারা গ্রামের আজাদ।

জেলার পশ্চিামাঞ্চলের কাকুয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বদিউজ্জামান ফারুক জানান, একসময় চরমপন্থীরে আতঙ্ক আরো বেশি ছিল। অনেক আটক বা জামিনে থাকায় পরিস্থিতি অনেকটা স্বাভাবিক। তবে এদের কার্যক্রম হঠাৎ করে শুরু হয়, আবার মাঝে মাঝেই নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়।

টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম জানান, জেলার চরমপন্থীদের (সর্বহারা) গ্রেপ্তারে পুলিশ মাঝে মাঝে অভিযান চালাচ্ছে। যারা গ্রেপ্তারের পর জামিনে মুক্ত আছে তাদের মনিটর করা হচ্ছে। যারা পলাতক তাদের আইনের আওতায় আনতে তৎপর রয়েছে পুলিশ।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840