টাঙ্গাইলে চাঁদাবাজি মামলায় কথিত দুই সাংবাদিক গ্রেফতার

টাঙ্গাইলে চাঁদাবাজি মামলায় কথিত দুই সাংবাদিক গ্রেফতার

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলে আলোচিত চাঁদাবাজি মামলায় দুই কথিত সাংবাদিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারা জেলার বিভিন্ন স্থানে সংঘবদ্ধ ভাবে কখনো সিটি প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক, কখনো সাংবাদিক আবার কখনো র‌্যাব ও পুলিশ অফিসার পরিচয় দিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে চাঁদাবাজী করে আসছিলো।

তাদের বিরুদ্ধে এরকম একাধিক অভিযোগ টাঙ্গাইল সদর সহ জেলাবাসীর। নিজেদের সম্মান ও ভয়ভীতির এবং হয়রানির ভয়ে কেউ তাদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে ব্যবস্থা গ্রহণ করেন নি।

সাম্প্রতি সদর উপজেলার হুগড়া ইউনিয়নের চরহুগড়া গ্রামের এক স্কুল ছাত্রীর বাড়ীতে সংঘবদ্ধ ভাবে গিয়ে নানা প্রকার ভয়ভীতি দেখিয়ে নগদ চাঁদাবাজী করে এবং আরো টাকা বিকাশে দিতে চাপ প্রয়োগ করায় ঐ ছাত্রী মা বাদি হয়ে সদর মডেল থানায় ও র‌্যাব কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

পুলিশ অভিযোগটি আমলে নিলে তারা আত্নগোপনে পালিয়ে বেড়াচ্ছিলো।পরে শুক্রবার (১৯ জুন) কথিত দুই সাংবাদিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

টাঙ্গাইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর মোশারফ হোসেন জানান, টাঙ্গাইল সিটি প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক আজকের প্রভাত পত্রিকার টাঙ্গাইল প্রতিনিধি এস এম আতোয়ার রহমান এবং প্রচার সম্পাদক ও দৈনিক জনতার কথা পত্রিকার প্রতিবেদক জহুরুল ইসলামকে শুক্রবার সকালে গ্রেফতার করা হয়।

পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত রিমান্ড শুনানী হয়নি।

পুলিশ জানায়, মামলার বাদি সদর উপজেলার চর হুগড়া গ্রামের ওই গৃহবধু অভিযোগ করেন, তার আষ্টম শ্রেণী পড়ুয়া মেয়েকে স্কুলের যাওয়া আসার পথে এইক গ্রামের রেকাত মন্ডলের ছেলে ফারুক হোসেন (২২) উত্যক্ত করে এবং প্রেমের প্রস্তাব দেয়।

এ বিষয়ে তার মেয়ে তাদের জানালে তারা ফারুকের বাবা-মাকে বিষয়টি জানায়। তারপরও গত ৩০ মে দুপুরে এক প্রতিবেশির মাধ্যমে ফারুক তাদের (ওই স্কুল ছাত্রী) বাড়িতে বিয়ের প্রস্তাব পাঠায়। তারা এ প্রস্তাব নাকচ করে দেন।

পরদিন ১ জুন আতোয়ার রহমান, জহিরুল ইসলাম, আলমগীর হোসেন ও সবুর মিয়াসহ আরো কয়েকজন ওই ছাত্রীর বাড়িতে গিয়ে নিজেদের র‌্যাব ও সাংবাদিক পরিচয় দেন।

তারা ফারুকের সাথে ওই স্কুল ছাত্রীকে বিয়ে দেয়ার জন্য চাপ দেয়। বিয়ে না দিলে ওই ছাত্রীর ক্ষতি করবে বলে তার ছবি তোলে ও ভিডিও করে। এক পর্যায়ে তারা ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে।

এসময় ওই ছাত্রীর বাবা-মা তাদের দশ হাজার টাকা চাঁদা দেন। তারা বাকি ৪০ হাজার টাকা বিকাশের মাধ্যমে পাঠিয়ে দেয়ার কথা বলে চলে আসে।

মামলায় টাঙ্গাইল সিটি প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক আজকের প্রভাতের জেলা প্রতিনিধি এস এম আতোয়ার রহমান, সহসভাপতি মো. আলমগীর হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক ও সাপ্তাহিক ইনতেজার পত্রিকার প্রতিবেদক মোঃ সবুর মিয়া এবং প্রচার সম্পাদক জহিরুল ইসলামের নাম উল্লেখ করা হয়।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840