টাঙ্গাইলে তিন লাশ উদ্ধার

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলে পৃথক স্থান থেকে এক কলেজ শিক্ষার্থীসহ তিন জনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার সকালে এবং দুপুরে সদর উপজেলার থানা পাড়া শান্তিকুঞ্জ মোড়, আদালত পাড়া এবং নামদার কুমুল্লী এলাকা থেকে এ সব লাশ উদ্ধার করা হয়।

টাঙ্গাইলে মাজহারুল ইসলাম মাসুদ (২৪) নামে এক কলেজ শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার রাত ১২ টার দিকে শহরের থানাপাড়া শান্তিকুঞ্জ মোড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ দাবি এটি আত্মহত্যা, তবে পরিবারের লোকদের অভিযোগ মাসুমকে হত্যা করে তার কক্ষে রাখা হয়েছে। নিহত মাসুদ ময়মনসিংহ ত্রিশাল মধ্যপাড়া এলাকার তাজুল ইসলামের ছেলে এবং সে টাঙ্গাইল শহরের সরকারি মাওলানা মোহাম্মদ আলী (এমএম আলী) কলেজের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। 

মাসুদের মামা রাইসুল হাসান জানান, আমি টাঙ্গাইলে চাকরি করি। মাসুদের মৃতদেহ দেখে রহস্যজনক মনে হচ্ছে। আমি তদন্ত সাপেক্ষে সুষ্ঠ বিচার দাবি করছি।

মাসুদের বড় ভাই আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, রাতে মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে টাঙ্গাইল চলে আসি। আমার ভাইয়ের দুই হাতে ও দুই পায়ে এবং গলায় সাদা কস্টেপ পেছানো আছে।

আমার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে। এর আগেও আমার ভাই মাসুদকে একাধিকবার মোবাইল ফোনে হুমকি প্রদান করলে টাঙ্গাইল মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছিলো। এর পর রাতে আমার ভাইকে হত্যা করে। আমি ভাইয়ের হত্যার বিচার দাবি করছি।

সরকারি মাওলানা মোহাম্মদ আলী কলেজের শিক্ষক বেলাল হোসেন জানান, মাসুদ একজন ভাল ছাত্র ছিলো। তার ফলাফলও ভাল ছিলো। অকালে তার মৃত্যু হবে তা কখনও কল্পনাও করি নাই। এর সঠিক বিচার দাবি করছি।

টাঙ্গাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সায়েদুর রহমান জানান, কক্ষের দরজা ভেঙে লাশটি উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে বিস্তারিত বলা যাবে। তবে মনে হচ্ছে আত্মহত্যা।

অপরদিকে টাঙ্গাইলে পুকুরে গোসল করতে নেমে দীপক কুমার সরকার (৪৬) নামে এক জনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার সকালে শহরের আদালত পাড়া পুকুর থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সে বাসাইল পশ্চিম পাড়া গ্রামের মৃত মুধসুধন সরকারের ছেলে।

নিহতের ভাই প্রদীপ কুমার সরকার জানান, দীপক কুমার সরকার শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় শিমুল জেন্টস পার্লারে কাজ করতো। শুক্রবার কাজ শেষে গভীর রাত হওয়ার কারণে ওই পার্লারেই রাত্রিযাপন করেন।

সকালে পুকুরে গোসল করতে নামলে কিছুক্ষণ পর তার লাশ পানিতে ভেসে ওঠে। পরে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দিলে তার লাশ উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হন্তান্তর করে।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল মডেল থানার ওসি সায়েদুর রহমান জানান, এ বিষয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

এছাড়াও সাব্বির (২৫) নামে এক যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার (২৭ এপ্রিল) দুপুরে সদর উপজেলার করটিয়া ইউনিয়নের নামদার কুমুল্লী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত সাব্বির ওই এলাকার মিন্টু মিয়ার ছেলে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আজমেরী রহমান মুন্নী জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে দেড় মাস আগে তার স্ত্রী বাপের বাড়ি চলে যায়। পরে কয়েক দফায় শ্বশুরবাড়িতে স্ত্রীকে আনতে যায় সাব্বির।

কিন্তু তার সাথে বউ না এসে উল্টো ঝগড়া করে। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবারও তার স্ত্রীকে আনার জন্য গেলে তার সাথে আসেনি। পরে শুক্রবার রাতে তার কক্ষে ঘুমাতে যায় সাব্বির।

শনিবার সকালে ঘুম থেকে না উঠায় পরিবারের লোকজন তার কক্ষের দরজা ভেঙে তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840