টাঙ্গাইলে সেন্ট্রাল মুক্তা হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু ;ক্লিনিক ভাঙচুর 

টাঙ্গাইলে সেন্ট্রাল মুক্তা হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু ;ক্লিনিক ভাঙচুর 

মো.সোহেল রানা: টাঙ্গাইলে সেন্ট্রাল মুক্তা হাসপাতালে আকলিমা বেগম (৪২) নামে এক ভ্যানচালকের স্ত্রীর পিত্তথলির পাথর অপারেশনের সময় ভূল চিকিৎসায় মৃত্যুর  অভিযোগ উঠেছে।
মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই ক্লিনিক  ভাংচুর করে রোগীর স্বজনেরা।
স্বজনরা জানায়, গত ৬ জুলাই শনিবার বিকেলে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার হুগড়া ইউনিয়নের ধুলবাড়ী গ্রামের ভ্যান গাড়ি চালক  আব্দুল লতিফের স্ত্রী পেটে ব্যাথা নিয়ে টাঙ্গাইল পৌর শহরের মুক্তা ক্লিনিকে ভর্তি হন।
পরে পরিক্ষা-নিরিক্ষা শেষে তার পেটের পিত্তথলিতে পাথর আছে নিশ্চিত করেন ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ।
পরে রবিবার (৭ জুলাই) ডা. ফরিদ আহমেদের তত্বাবধানে আকলিমা বেগমকে অপারেশন করার জন্য অপারেশন থিয়েটারে পাঠানো হয়।অপারেশনের ৬ ঘন্টা পরও রোগীর জ্ঞান ফিরে না আসায় রোগীর সাথে থাকা স্বজনদের সন্দেহ হয়।
এ সময় স্বজনরা জানতে চাইলে ডা. ফরিদ জানান, অপারেশন টেবিলে রোগী স্ট্রক করেছেন, তাকে রেফার্ড করতে হবে। এরপর ওই দিন রোগীকে ঢাকা এনাম মেডিকেলে রেফার্ড করা হয় বলে জানায় স্বজনেরা।
নিহত আকলিমার স্বামী আব্দুল লতিফ বলেন, এনাম মেডিকেলের চিকিৎসা ব্যয়ভার আমার পক্ষে বহন করা সম্ভব না। এরপরও তারা এক প্রকার জোর করে এনাম মেডিকেলে পাঠায়। এনামে যাওয়ার সাথে সাথে রোগীকে আইসিইউতে ভর্তি করেন তারা। পরে আজ মঙ্গলবার (৯ জুলাই) রোগীকে মৃত ঘোষনা করে এনাম মেডিকেলে কতৃপক্ষ।
স্বজনদের দাবি রোগী মুক্তা ক্লিনিকেই মারা গেছে, বাকিটা তারা নাটক সাজিয়েছে। আমরা ডা. ফরিদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করছি।
ঘটনা প্রসঙ্গে জানার জন্য ডা. ফরিদের মুঠোফোনে যোগাযোগ করে হলে তাকে পাওয়া যায়নি। এ দিকে ক্ষিপ্ত হয়ে ক্লিনিকে ভাংচুর করে রোগীর স্বজনেরা। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন তোফা ঘটনাস্থলে আসেন এবং রোগীর স্বজনদের সুষ্ঠ বিচার পাইয়ে দেওয়ার আশ্বাস দেন।
এ বিষয়ে টাঙ্গাইল সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. তোফাজ্জল হোসেন তোফা জানান, আমার জানা মতে এই ক্লিনিকের মালিক ৯ জন। তার মধ্যে দেলদুয়ার উপজেলার পাথরাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাম প্রসাধ সরকারও আছে। কিন্তু আমি মালিকপক্ষের সাথে গত দুইদিন যাবত যোগাযোগের চেষ্টা করেছি, তারা কোন ভাবেই আমার সাথে এই ব্যাপারে কথা বলে নাই। ঘটনাটি যে দিন ঘটে আমি এখানে উপস্তিত হই। আমি এখানে এসে ডাক্তারকে পায়নি। সে ৪ ঘন্টা অপারেশন করার পর রোগিকে এনাম মেডিকেল সাভারে পাঠিয়ে দিয়েছে। আমি তখন ক্লিনিক ম্যানেজম্যান্টকে বললাম, একটা গরীব রোগীকে কিভাবে এনাম মেডিকেলে পাঠালেন ? তারা  অ্যামবুলেন্স আনতেও প্রায় ২ ঘন্টা সময় লাগিয়েছে। তারা তাদের দায়িত্বের অবহেলার কারনেই রোগী মারা গেছে আমি মনে করি। আগামীকাল বুধবার এশার নামাজের পর বিষয়টি নিয়ে ক্লিনিক কতৃপক্ষের সাথে বসা হবে। রোগীর পরিবার যাতে ন্যায় বিচার পায় সর্বাত্বক চেষ্টা করবো।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840