সংবাদ শিরোনাম:
মধুপুরে বাসে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের দায়ে জরিমানা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে মাভাবিপ্রবি পরিবারের শ্রদ্ধা নিবেদন টাঙ্গাইলে আওয়ামীলীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী উদযাপিত বাসাইলে বজ্রাঘাতে কৃষকের মৃত্যু অচিরেই দেখা যাবে বিএনপি খণ্ডবিখণ্ড হয়ে পড়েছে: সাবেক কৃষিমন্ত্রী টাঙ্গাইলে প্রাইভেটকার-মাহিন্দ্রার সংঘর্ষে নিহত ২ স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে শিক্ষার পাশাপাশি খেলাধুলার বিকল্প নেই: শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী টাঙ্গাইলে ২হাজার ৮২টি ঈদুল আজহার জামাতের মাঠ প্রস্তুত টাঙ্গাইলে গরুর হাটের নিরাপত্তা ও মহাসড়কের যানজট নিরসনে কাজ করছে RAB টাঙ্গাইলে ১০৮ বোতল বিদেশী মদসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক

টাঙ্গাইলে ৯টি মডেল মসজিদ নির্মাণ অনিশ্চিত!

প্রতিদিন প্রতিবেদক:  টাঙ্গাইলে জমি নিয়ে জটিলতা ও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদের গাফিলতির কারণে ৯ উপজেলায় ৯টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। জেলার কালিহাতী, দেলদুয়ার, সখীপুর, মির্জাপুর, ঘাটাইল, মধুপুর, ভূঞাপুর, নাগরপুর ও গোপালপুর উপজেলায় স্থান নির্ধারণে জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়হীনতা, জমি নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা ও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদের গাফিলতির কারণে মডেল মসজিদ নির্মাণ করা যাচ্ছেনা। ফলে সংশ্লিষ্ট উপজেলায় ওই প্রকল্পের বিপরীতে বরাদ্দকৃত অর্থ বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশনে ফেরত যাওয়ার উপক্রম হয়েছে।

জানাগেছে, দেশে ৫৬৪টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণের জন্য ৮ হাজার ৭২২ কেটি টাকা ব্যয়ে ২০১৭ সালের এপ্রিলে প্রকল্প হতে নেওয়া হয়। বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের তত্ত্বাবধানে গণপূর্ত অধিদপ্তর ওই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। পরে প্রকল্পের নতুন মেয়াদকাল ধরা হয়েছে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত। মেয়াদ বাড়ানোর জন্য মোট খরচ ৮ দশমিক ১৭ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ৯ হাজার ৪৩৫ কোটি টাকা।

ওই প্রকল্পের অংশ হিসেবে টাঙ্গাইল জেলা সদরে একটি এবং জেলার ১২টি উপজেলায় ১২টি মোট ১৩টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। জেলা শহরে মডেল মসজিদ নির্মাণে জমি অধিগ্রহণ ব্যতিত ব্যয় ধরা হয়েছে ১৫ কোটি ৬১ লাখ ৮১ হাজার টাকা এবং উপজেলাগুলোর প্রতিটির নির্মাণে জমি অধিগ্রহণ ব্যতিত ব্যয় ধরা হয়েছে ১৩ কোটি ৪১ লাখ ৮০ হাজার টাকা। সে মোতাবেক বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে যথাযথ প্রক্রিয়ায় অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয়।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, টাঙ্গাইল গণপূর্ত অধিদপ্ত জেলায় ১৩টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের মধ্যে ৭টির দরপত্র আহ্বান করে। এরমধ্যে টাঙ্গাইল জেলা শহরে একটি এবং ধনবাড়ী ও বাসাইল উপজেলায় দুইটি মডেল মসজিদ নির্মাণ সম্পন্ন হয়। ওই তিনটি মডেল মসজিদ গত ১৭ এপ্রিল চতুর্থ ধাপে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে যুক্ত হয়ে ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করেছেন। টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় একটি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রর নির্মাণ কাজ চলছে। কাজের অগ্রগতি ৭৬ শতাংশ। ২০১৯ সালে দরপত্র আহ্বানকৃত কালিহাতী, দেলদুয়ার ও সখীপুর উপজেলায় তিনটি মডেল মসজিদ নির্মাণে ঠিকাদাররা দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগদির কারণ দেখিয়ে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেয়। পরে মডেল মসজিদ নির্মাণে গাফিলতির কারণে ওই তিনটির ঠিকাদারদের কার্যাদেশ(চুক্তিপত্র) বাতিল করা হয়েছে। এ তিনটি উপজেলায় মডেল মসজিদ নির্মাণ কাজ শেষ করতে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

মির্জাপুর, ঘাটাইল ও মধুপুর উপজেলায় মডেল মসজিদ নির্মাণের জন্য জমি নিয়ে জটিলতার বিষয়ে অংশীজনদের সঙ্গে একাধিকবার বৈঠকের পর সম্প্রতি নিরসন করা হয়েছে। এ তিনটি মডেল মসজিদ নির্মাণে দ্রুত দরপত্র আহ্বান করা হবে। ভূঞাপুর, নাগরপুর ও গোপালপুর উপজেলায় তিনটি মডেল মসজিদ নির্মাণে স্থান নির্বাচন নিয়েই জটিলতা তৈরি হয়েছে। স্ব স্ব স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা মসজিদের স্থান নির্বাচনে একমত হতে পারছেন না। এরমধ্যে নাগরপুর উপজেলায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা পর পর তিনটি স্থান বাছাই করেন। পরে সর্বসম্মতিক্রমে উপজেলা পরিষদের ভেতরে স্থান নির্বাচন করলে জনৈক বুলবুল কাজী অধিকার ক্ষুন্নের অভিযোগ এনে উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন দায়ের করায় মডেল মসজিদ নির্মাণের ‘স্থান নির্বাচন’ স্থগিত রয়েছে।

গোপালপুর উপজেলায় স্থানীয় সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির বৈরাণ নদীর পশ্চিম(ডানতীর) পাড়ে নন্দনপুর এলাকায় মডেল মসজিদ নির্মাণের স্থান নির্বাচন করেন। কিন্তু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গোপালপুর বাসস্ট্যান্ডের পূর্বপাশে প্রধান সড়ক ঘেষে মসজিদ নির্মাণের দাবি জানান। এ নিয়ে উভয় নেতার মধ্যে বিরোধ দেখা দেওয়ায় এ উপজেলায় মডেল মসজিদ নির্মাণের স্থান নির্বাচন করা সম্ভব হয়নি।

ভূঞাপুর উপজেলায় মডেল মসজিদ নির্মাণে প্রথমে ব্যক্তি মালিকানাধীন ভূমি নির্বাচন করে অধিগ্রহন করতে চাইলে ওই ব্যক্তি নিজের জমিতে আদালতে মামলা করে নিষেধাজ্ঞা জারি করান। পরে সড়ক ও জনপথের পরিত্যক্ত ২৩ শতাংশ ভূমি নির্বাচন করে মডেল মসজিদ নির্মাণে অনুমোদন চাওয়া হয়। কিন্তু সওজ কর্তৃপক্ষ ১০ শতাংশ ভূমির অনুমোদন দেয়। মডেল মসজিদ নির্মাণে ওই পরিমাণ জায়গা পর্যাপ্ত না হওয়ায় তা স্থগিত করা হয়েছে।
কালিহাতী মডেল মসজিদ নির্মাণের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দাস ট্রেডার্সের মালিক পাপন কুমার ভানু জানান, প্রথম দিকে স্থানীয় এমপির অসহযোগিতায় কাজ করা যায়নি। পরে কোভিড-১৯ এর ধাক্কার পর দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির কারণে তিনি মসজিদটি নির্মাণ করতে পারছেন না।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840