টাঙ্গাইল তিন উপজেলায় নৌকায় জাল ভোট দেয়ার সময় সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারসহ আটক পাঁচ

টাঙ্গাইল তিন উপজেলায় নৌকায় জাল ভোট দেয়ার সময় সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারসহ আটক পাঁচ

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলের তিন উপজেলায় নির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলাকালে নৌকা প্রতিকে জাল ভোট দেওয়ার সময় মহিলা সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তাসহ পাঁচ জনকে আটক করেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী।

আটককৃতরা হলো, বাসাইল উপজেলার দক্ষিণপাড়া কেন্দ্র কেন্দ্রের সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার সৈদামপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পারভীন সুলতানা (৩৬) ও কাঞ্চনপুর ছনকা পাড়া গ্রামের সেলিম মিয়ার ছেলে রাশেদ হৃদয় (২৫), মির্জাপুর উপজেলার বন্দ্য কাওয়াল জানী গ্রামের সুরুজ আল মামুন (৩০) , বরকত আলী (৩২) ও দেলদুয়ার বড়পাখড়ী গ্রামের মাসুদ (২৫)।

এরা সবাই নিজ নিজ এলাকার কেন্দ্রে অনাধিকার প্রবেশ করে জোর পূর্বক নৌকা প্রতিকে সিল দেয়ার সময় আটক করা হয়।

রোববার সকালে বাসাইলে দক্ষিণপাড়া কেন্দ্রে, মির্জাপুর বন্দ্যকাওয়ালজানী কেন্দ্রে ও দেলদুয়ার বড়পাখড়ী কেন্দ্র থেকে তাদের আটক করা হয়।

কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা কনক কান্তি দেবনাথ জানান, রাশেদ জাল ভোট দিচ্ছিলো। এসময় বেতরে থাকা এজেন্টরা বিষয়টি জানান। পরে ১০টি পেপারসহ তাকে আটক করা হয়। আটককৃত রাশেদ প্রায় ৪৮টি জাল দিয়েছে। ওই পেপারগুলো সংশ্লিষ্ট সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তা পারভীন সুলতানার কাছ থেকে নেয়া।

জাল ভোটে সহায়তা করার অপরাধে ওই সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তাকেও আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের ভ্রাম্যমাণ আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও তিনি জানান।

অপরদিকে রোববার সকালে মির্জাপুর উপজেলা বন্দ্যকাওয়ালজানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে স্থানীয় নৌকার কর্মী সুরুজ আল মামুন,  বরকত ও মফিজের নেতৃত্বে ১০/১২ জন সমর্থক ভোট কেন্দ্রে অনাধিকার প্রবেশ করে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী ফিরোজ হায়দার খানের দুই এজেন্ট লিটন ও আরিফকে বের করে দিয়ে জোরপূর্বক ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে নৌকা,  তালা ও কলস প্রতিকে সীল মারতে থাকে।

খবর পেয়ে বিজিবি সদস্য ও  ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ঘটনাস্থলে গিয়ে সুরুজ ও বরকতকে আটক করে। এসময় অন্যান্যরা পালিয়ে যায়।

স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর এজেন্ট লিটন ও আরিফ অভিযোগ করে বলেন এ সময় তার দেড় থেকে দুই শতাধিক ব্যালটে সীল মেরে বক্সে ঢুকিয়েছে।  

কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসারের দায়িত্বে থাকা মো. জিয়াউল হক জাল ভোট হয়েছে কি না জানা নেই। তবে বুথে অনধিকার প্রবেশের অপরাধে দুইজনকে আটক করেছে ভ্রাম্যামান আদালত।

ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক সহকারী কমিশনার থান্দার কামরুজ্জামান দুইজনকে আটকের কথা স্বীকার করেন।

এদিকে দেলদুয়ার উপজেলার বড়পাখাড়ী কেন্দ্রে নৌকার ৭/৮ জন কর্মী অনাধিকার প্রবেশ করে জোরপূর্বক ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে নৌকা প্রতিকে সীল মারতে থাকে।

খবর পেয়ে আনই শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে মাসুদ নামের এক নৌকার কর্মীকে আটক করেন। এসময় অন্যান্যরা পালিয়ে যায়।

টাঙ্গাইল জেলা নির্বাচন কমিশনার এ.এইচ.এম কামরুল হাসান আটকের সত্যতা স্বীকার করে জানান, জাল ভোট দেওয়ার সময় তিন উপজেলা থেকে পাঁচ জনকে আটক করা হয়েছে। পরে তাদের ভ্রাম্যমান আদালতে কাছে সোপর্দ করা হয়।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840