টাঙ্গাইল প্রশাসনের নাকের ডগায় চরমপন্থী ও স্থানীয়দের মাটি কাটার মহোৎসব

টাঙ্গাইল প্রশাসনের নাকের ডগায় চরমপন্থী ও স্থানীয়দের মাটি কাটার মহোৎসব

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইল প্রশাসনের আইন ও নিয়মের তোয়াক্কা না করে শুধু মাত্র নিজেদের শক্তি, ক্ষমতা ও দাপটের ভয় দেখিয়ে একাধিক চরমপন্থী শীর্ষ নেতাদের সহযোগীতায় সকল প্রশাসনের নাকের ডগায় প্রকাশ্যে চলছে মাটি খেকোদের মহোৎসব।

স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে সাবেক চেয়ারম্যান সুমন দেওয়ান, এসডিএস-এর সাবেক কর্মকর্তা আলমগীর ও আজাদ দেওয়ান সহ প্রভাশালী ব্যক্তিরা সরকারি দলের নাম ভাঙ্গীয়ে চারাবাড়ী ধলেশ্বরীর শাখা নদীর পাড়ে ড্রেজার ও ভেকু বসিয়ে সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে প্রতিনিয়ত লাখ লাখ টাকার মাটি বিক্রি করছে।

যে কারণে নদীর সংলগ্ল শতাধিক বাড়ী ও আবাদি জমি বর্ষা মৌসুমে সহজেই ভাঙ্গনের আশংকায় রয়েছে গ্রামবাসীরা। স্থানীয় প্রশাসন মাঝে মধ্যে ঘটনাস্থলে দিয়ে বিভিন্ন ধরনের হাকমী-ধামকী দিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

যে কারণে এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলে গ্রামবাসীদের প্রাণনাশের ভয় সহ প্রশাসন দিয়ে বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় হয়রানী করে আসছে মাটি খেকোরা।

এসব মাটি খেকোদের কারণে বেড়েই চলছে সন্ত্রাসী কার্যক্রম ও মাদক সেবনের সংখ্যা সহ অপরাধমূলক কার্যক্রম। প্রকাশ্যে এসব অপরাধের কারণে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা হারাচ্ছে সাধারণ খেটে খাওয়া গ্রামবাসীরা।

মাটি খেকোদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের অনুরোধ জানিয়েছেন অসহায় ভূক্তভোগী গ্রামবাসীরা।

সরোজমিনে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার দাইন্যা ইউনিয়নের চারাবাড়ী এসডিএস-এর জায়গা সংলগ্ন পশ্চিমপাশে ধলেশ্বরীর শাখা নদীর পাড়ে একাধিক ভেকু ও ড্রেজার বসিয়ে স্থানীয় সাবেক চেয়ারম্যান সুমন দেওয়ান, এসডিএস-এর সাবেক কর্মকর্তা আলমগীর ও আজাদ দেওয়ান সহ প্রভাশালী ব্যক্তিরা সরকারি দলের নাম ভাঙ্গীয়ে সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে দীর্ঘ যাবৎ লক্ষ লক্ষ টাকার মাটি বিক্রি করে আসছে।

এতে ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে দাঁড়িয়েছে নদী সংলগ্ন আবাদি ফসলি জমি ও ঘর-বাড়ী। প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে নদীর পাড়দেশে ব্যপক ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয় এসব মাটি খেকোদের কারণে। আর এ ভাঙ্গণের স্বীকার গ্রামের খেটে খাওয়া সাধারণ অসহায় মানুষকে হতে হয়।

ভাঙ্গনের পর স্থানীয় প্রশাসনসহ বিভিন্ন সংগঠন নানা ভাবে সহযোগীতা করেন। কিন্তু ভাঙ্গন প্রতিরোধে কোন প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না স্থানীয় প্রশাসন। এখনই এসব মাটি খেকোদের বিরুদ্ধে অতি দ্রুত আইনগত সহ বর্ষার ভাঙ্গন প্রতিরোধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী এলাকাবাসী।

স্থানীয় গ্রামবাসী, আলিম, বাছেদ, কদ্দুছ, আমানত, সলিউদ্দিন, কিবরিয়া, আনিস সহ অনেক গ্রামবাসী এর প্রতিকার চেয়ে জানান, স্থানীয় বিভিন্ন ধরনের প্রশাসন এখানে এসে প্রথমে গরম হয় পরে পকেটে কিছু দিলেই চুপ করে নিয়ে চলে যায়।

এ ধরনের ঘটনা তারা প্রতিনিয়ত দেখছেন বলে জানিয়ে বলেন, বর্ষা খুবই সন্নিকটে প্রতিবছর বর্ষার সময় নদী পাড়ে এসব ড্রেজার ও ভেকু দিয়ে মাটি উত্তোলনের কারণে ভেঙ্গে যায়। ভাঙ্গার পর প্রশাসন নানা ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

কিন্তু যে কারণে নদী পাড়ের মানুষের বাড়ী-ঘর ও ফসলি জমি ভেঙ্গে নদী গর্ভে চলে যায় সে ব্যপারে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেন না স্থানীয় প্রশাসন।

স্থানীয় প্রশাসন যদি এসব মাটি খেকোদের সাথে হাত না মিলিয়ে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা করে ভেকু ও ড্রেজার পুড়িয়ে দেয় তাহলে একদিকে যেমন আইনের প্রতি সাধারণ মানুষের শ্রদ্ধা বাড়বে অন্যদিকে বর্ষা মৌসুমে নদী ভাঙ্গন রোধ হবে।

টাঙ্গাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মীর মোশারফ হোসেন জানান, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। এ বিষয়ে তদন্ত সাপেক্ষ দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

টাঙ্গাইল সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আতিকুল ইসলাম জানান, এ বিষয়ে আমি অবগত নই। তবে এ ধরনের কোন কার্যক্রম হলে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মাটি খেকো সাবেক চেয়ারম্যান সুমন দেওয়ান ও আজাদ দেওয়ান জানান, আমাদের প্রশাসনিক কোন অনুমোতি নেই তবে এ বিষয়ে প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে কথা বলা আছে। যে কারনে আমরা নদী থেকে সহজেই মাটি কাটতে পারছি।

বি : দ্র : টাঙ্গাইল সদর সহ বিভিন্ন স্থানের অবৈধ মাটি খেকোদের নিয়ে আরো সংবাদ আসছে…চোখ রাখুন টাঙ্গাইল প্রতিদিন..অনলাইন ও পত্রিকায়

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840