সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের নবনির্বাচিত কমিটির পরিচিতি সভা

টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের নবনির্বাচিত কমিটির পরিচিতি সভা

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (৭ মার্চ) দুপুরে প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে আয়োজিত নবনির্বাচিত কার্যনির্বাহী পরিষদের পরিচিতি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাখেন আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বার কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক এমপি।

টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের সভাপতি এ্যাডভোকেট জাফর আহমেদ-এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক টাঙ্গাইল-৮ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম (ভিপি জোয়াহের), টাঙ্গাইল-৫ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ মো. ছানোয়ার হোসেন, টাঙ্গাইল-২ আসনের সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির,

জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম, টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক কাজী জাকেরুল মওলা ও টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান মিরন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাংবাদিক অরণ্য ইমতিয়াজ ও মালেক আদনান।

এসময় বিভিন্ন সরকারি কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ প্রেসক্লবের সদস্য ও তাদের পরিবারবর্গ উপস্থিত ছিলেন। শেষে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের অভ্যন্তরিন খেলার অংশগ্রহণকারী বিজয়ীদের এবং র‌্যাফেল ড্র অংশ গ্রহণকারীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বার কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক এমপি বলেছেন, সাংবাদিকতা একটি স্বাধীন পেশা। চতুর্থ স্তম্ভ হিসেবে সংবাদপত্র রাষ্ট্রের অন্য তিন স্তম্ভের ভুলভ্রান্তি তুলে ধরে।

রাষ্ট্র কোন দিকে যাচ্ছে- ভালো দিকে যাচ্ছে কিনা, সঠিক পথে আছে কিনা তা সাংবাদিকরা অত্যন্ত সুন্দরভাবে সাহসিকতার সাথে তুলে ধরেন। প্রেসক্লাবের দায়িত্ব দুটি। প্রথম কাজ হচ্ছে সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ এবং তথ্যনির্ভর সংবাদ পরিবেশন নিশ্চিত করা।

দ্বিতীয় কাজ হচ্ছে সাংবাদিকের নিজের পরিবার রয়েছে, তাঁদের জীবন-জীবিকা ও স্বার্থগুলো তুলে ধরা ও নিশ্চিত করা। তিনি আরও বলেন, পৃথিবীর অনেক দেশে সাংবাদিকদের উপর নানা রকম নির্যাতন-নিষ্পেষণ চলছে। সাংবাদিকরা যুদ্ধের সময় তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে অনেকক্ষেত্রে তাঁদের জীবন হারাচ্ছেন।

ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের মহাকাব্য হলো বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ১৮ মিনিটের ভাষণ। এ অনন্য ভাষণের মাধ্যমে তিনি সাড়ে সাত কোটি বাঙালিকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন, স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন।

নিরস্ত্র বাঙালিকে জীবনবাজি রেখে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে উৎসাহিত করেছিলেন, জীবনদানের জন্য প্রস্তুত করেছিলেন। তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের মধ্যেই স্বাধীনতার ঘোষণা অন্তর্নিহিত ছিল।

আমাদের ইতিহাসে চিরকাল এটি উজ্জ্বল, চিরভাস্বর এবং হিরন্ময় হয়ে থাকবে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সারা বিশ্বে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। তাঁর নেতৃত্বে আমরা ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য ক্ষেত্র তৈরি করেছি। তারাই এ দেশটিকে গর্বের- অহংকারের দেশ হিসেবে গড়ে তুলবে।

এর আগে মন্ত্রী ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে শনিবার সকালে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন আয়োজিত আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840