সংবাদ শিরোনাম:
রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫ নাগরপুরে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার রাজপথে, প্রতিবাদ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত এক স্কুল থেকে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেল জমজ দুই বোন মির্জাপুরে ধান চাল সংগ্রহ কার্যক্রমের উদ্বোধন টাঙ্গাইলে মাদ্রাসা ও কারিগরি প্রতিষ্ঠানের গার্ল-ইন- স্কাউটের সদস্যদের ডে ক্যাম্প
দেলদুয়ারের দেউলী স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে চরম দুর্নীতি ও অনিয়ম

দেলদুয়ারের দেউলী স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে চরম দুর্নীতি ও অনিয়ম

প্রতিদিন প্রতিবেদক : দেলদুয়ার উপজেলার দেউলী ইউনিয়নে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে চরম দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিনিয়ত এলাকাবাসী স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থেকেও চিকিৎসকের দেখা পাচ্ছেন না রোগীরা। এছাড়াও স্বাস্থ্য কেন্দ্রে সেবা নিতে আসা রোগীদের সাথে অশুভ আচরণ করেন কর্মকর্তরা। মাঝে মধ্যে অফিস সহকারী চিকিৎসক হয়ে পরামর্শ দিচ্ছেন।

টাকার বিনিময়ে রোগীদের কাছে বিক্রি করা হয় বিভিন্ন ঔষুধ। কোন প্রকার সরকারী ঔষুধ দেওয়া হয় না রোগীদের। সরকারী ঔষুধ পাওয়া যায় বিভিন্ন ঔষুধের দোকানে।

জানা গেছে, এসব স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রগুলোতে কর্মরত ডাক্তার, ফার্মাসিস্ট, আয়াসহ পরিবার-পরিকল্পনা বিভাগের কর্মীদের অব্যাহত দুর্নীতি এবং স্বেচ্ছাচারিতার কারণে স্ব-স্ব এলাকার জনগণ গুরুত্বপূর্ণ এসব সরকারি প্রতিষ্ঠানের উপর আস্থা হারাতে বসেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, প্রতিমাসে এসব স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে প্রয়োজনীয় ওষুধ এবং জন্মনিয়ন্ত্রণ সামগ্রী ব্যবহার করা হয়। অথচ এসব স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়োজিত ব্যক্তিদের যোগসাজসে ওষুধ এবং জন্মনিয়ন্ত্রণ সামগ্রীর সিংহভাগ বাজারে বিক্রি করে দেওয়া হয়।

জনসংখ্যা রোধে নামমাত্রমূল্যে জন্মনিয়ন্ত্রণ সামগ্রী দপ্তরদের মধ্যে বিতরণ করার কথা থাকলেও এখানে তা করা হচ্ছে না। ডিপো প্রতিভারা ইনজেকশন প্রতি গ্রহণ করা হয় ৫০ থেকে ১০০ টাকা। এছাড়া অন্যান্য সামগ্রীর ক্ষেত্রেও চড়া দাম আদায় করা হয়।

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী জানিয়েছে, তারা এসব স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র থেকে নূন্যতম সেবাটুকু পাচ্ছে না। সরেজমিনে দেখা যায় পরিবার পরিকল্পনার পরিদর্শিকা আম্বিয়া খাতুন ও সাব কমিনিটি এ্যাসিস্ট্যান্ট ননি গোপালের যোগসাজেসে তারা রোগীদের কাছ থেকে টাকা নিচ্ছে। এ অভিযোগে তারা জানান রোগীদের কাছ থেকে কোন টাকা নেওয়া হয় না।

সেবা নিতে আসা স্থানীয় রোগীরা জানান, এখানে টাকা ছাড়া কোন ঔষধ পাওয়া যায় না। ঔষধ নিতে হলেই দিতে হয় টাকা। স্বাস্থ্য দপ্তরের একটি সূত্র জানিয়েছে, ইউনিয়ন পর্যায়ে স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা বিশেষ করে গর্ভবতী মা ও শিশুদের জন্য মূল্যবান ওষুধ সামগ্রী দেয়া হয়।

স্থানীয় রোগীরা আরো অভিযোগ করে বলেন, এসব ওষুধ রোগীদের নামে ভুয়া এন্ট্রি দেখিয়ে কালোবাজারে বিক্রি করে দেওয়া হয়। প্রতিটি স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে কর্মরত ব্যক্তিরা সরকার প্রদত্ত ওষুধের সিংহভাগ কালোবাজারে বিক্রি করে থাকে।

স্বাস্থ্য সেবার নামে তারা অর্থবাণিজ্যে নেমে পড়েছে। এমনকি ক্লিনিকের রেজিস্ট্রি খাতায় এবং রোগীদের প্রদত্ত ব্যবস্থাপত্রে অন্য ওষুধ বিতরণ করে থাকেন।

অপরদিকে সরকারি নিয়মনীতি উপেক্ষা করে গর্ভপাতও ঘটানো হয় সেখানে। কোন কোন ক্ষেত্রে গর্ভবতীদের অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে উপায়ন্তর না পেয়ে অবশেষে শহরের বড় ডাক্তারদের শরণাপন্ন হতে হয়। বহুমুখি আয়ের উৎস খুলে হাজার টাকা কামিয়ে নিচ্ছে এসব কর্মকর্তা-কর্মচারী।

ভুক্তভোগী ইউনিয়নবাসী ও সচেতন মহল দুর্নীতির আখড়া এসব স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে কর্মরত লোকদের অন্যত্র বদলীসহ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য দাবি জানিয়েছেন।

দেউলী ইউনিয়ন পরিষেদের চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম সাচ্চু জানান স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের দুর্নীতি ও অনিয়মের ব্যাপারে তিনি অবগত নন। দেলদুয়ার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840