দেলদুয়ারে এলেংজানী নদীর ভাঙনের ঝুকিতে ২শ’পরিবার

দেলদুয়ারে এলেংজানী নদীর ভাঙনের ঝুকিতে ২শ’পরিবার

প্রতিদিন প্রতিবেদক দেলদুয়ারঃ টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে এলেংজানী নদীর ভাঙনের ঝুকিতে রয়েছে অন্তত ২শ’ পরিবার। বর্ষার আগেই ভাঙনরোধে ব্যবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ওই পরিবার গুলো।

উপজেলার আটিয়া ইউনিয়নের গড়াসিন এলাকায় এলেংজানী নদীর ভাঙনে ইতিমধ্যে একটি মসজিদসহ ২০ টি বসতবাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। নদী পারের একটি মসজিদ, পাকা সড়ক, একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ব্রীজসহ ২শ’ পরিবার ভাঙনের ঝুকির মধ্যে রয়েছে।

ভাঙন ঠেকাতে এলাকাবাসী স্বউদ্দোগে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে যা অপ্রতুল। বর্ষার আগেই সরকারি ব্যবস্থাপনায় বেড়িবাধ তৈরি করে অথবা মাটি কেটে নদীর গতিপথ পরিবর্তন করে ভাঙনের কবল থেকে রক্ষার দাবি এলাকাবাসীর।

ভাঙনপ্রবণ ধলেশ্বরীর শাখা নদী এলেংজানী। নদীটি গজিয়াবাড়ী নামক স্থান থেকে গড়াসিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশ দিয়ে নাল্লাপাড়া-মুশুরিয়া গ্রামের দিকে মোড় নেয়। ওই মোড়ে গড়াসিন মুন্সিপাড়া কেন্দ্রিয় বায়তুল আকবর জামে মসজিদ, হাফেজিয়া মাদ্রাসা, এতিমখানা ও ২শ’ পরিবারের বসবাস।

নদীর পশ্চিমপাড়ে জেগে ওঠা চর যা বর্তমানে ব্যাক্তি মালিকানাধীন। ওই চরের ৫শ’ গজ কেটে মাটি সরিয়ে দিলে নদীর গতিপথ পরিবর্তন হবে রক্ষা পাবে সরকারি স্থাপনাসহ জনস্বার্থ।

আটিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার সিরাজুল ইসলাম মল্লিক বলেন, এলেংজানী নদীর ভাঙনে একটি মসজিদ নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। দেলদুয়ার-সিলিমপুর সড়ক ও একটি ব্রীজ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ভাঙনের ঝুকিতে রয়েছে গড়াসিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ নদীপাড়ের ২শ’ পরিবার।

বর্ষার আগেই ব্যবস্থা না নিলে চরম বিপর্যয় নেমে আসবে ওই এলাকায়। নদীর পশ্চিমপাড়ের চর কেটে পূর্বপাড়ে বেরিবাধ নির্মাণ করলে সরকারি স্থাপনাসহ এলাকাবাসীকে রক্ষা করা সম্ভব হবে।

এব্যাপারে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) সুফল চন্দ্র গোলদার বলেন, সরকার জনস্বার্থ রক্ষায় কাজ করে যাচ্ছে। তবে এব্যাপারে আমাদের বাজেট নেই। জনস্বার্থে ব্যক্তি উদ্দোগে তাদের জায়গার ওপর দিয়ে মাটি কেটে নদীর গতিপথ পরিবর্তন করলে আমাদের কোন আপত্তি নেই।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840