সংবাদ শিরোনাম:
উজার হচ্ছে টাঙ্গাইলের ফুসফুস খ্যাত মধুপুরের শাল গজারির বন ভূঞাপুরে প্রফেসর ডা: তাসমিনা মতিনের ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকীতে দোয়া মাহফিল সরকারের গতিশীল নেতৃত্বে দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ – এমপি শুভ ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্ব ফার্মাসিস্ট দিবস পালিত টাঙ্গাইল জেলা কারাগারে কারাবন্দীদের দর্জি ও সেলাই প্রশিক্ষণের উদ্বোধন টাঙ্গাইলে আনসার বাহিনীর মধ্যে বাইসাইকেল বিতরণ টাঙ্গাইলে জমির কালাই বোনা নিয়ে একজন নিহত,আহত ১৫ জন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও চিকিৎসার দাবিতে টাঙ্গাইলে বিএনপির সমাবেশ নাগরপুরে এমপি বাতেন স্মৃতি ফুটবল ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত মির্জাপুরে ডাকাতিতে বাঁধা দেয়ায় স্বামী স্ত্রী ও সন্তানকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত
দেলদুয়ারে আনারসের গণজোয়ার থামাতে প্রচার সরঞ্জাম ভাংচুর, ছিনতাই ও কর্মীদের মারপিট করেছে নৌকার কর্মী-সমর্থকরা

দেলদুয়ারে আনারসের গণজোয়ার থামাতে প্রচার সরঞ্জাম ভাংচুর, ছিনতাই ও কর্মীদের মারপিট করেছে নৌকার কর্মী-সমর্থকরা

প্রতিদিন প্রতিবেদক : দেলদুয়ার উপজেলা পরিষদ নির্বোচনে আনারস প্রতিকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহমুদুল হাসান মারুফ-এর গণজোয়ার থামাতে মরিয়া হয়ে কর্মী-সমর্থকদের উপর হামলা চালাচ্ছে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকার পার্থী ফজলুল হকের ভাই স্থানীয় চিহ্ণিত সন্ত্রাসী শাহাজান আনিস, শাহিন, আতিক সহ অন্যান্য সন্ত্রাসীরা।

এ সময় সন্ত্রাসীরা আনারস প্রতিকের প্রচার-প্রচারনায় ব্যবহৃত সিএনজি ও মাইক ভাংচুর এবং কর্মীদের এলোপাথালী মারপিট করে প্রচারনার কাজে ব্যবহৃত মাইক সেট ও ব্যাটারী ছিনতাই করে নিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে দেলদুয়ার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান।

এ ব্যাপারে আনারস প্রতিকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহমুদুল হাসান মারুফ তাৎক্ষণিক উপজেলা নিবৃাচন অফিসারকে বিষয়টি অবগত করেছেন। বুধবার দেলদুয়ার থানায় লিখিত ভাবে অভিযোগ দায়ের করবেন বলে জানান।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে তিনটার দিকে আগ এলাসিন প্রচার চালানোর সময় নেওকার সন্ত্রাসীরা অতরকিত হামলা চালায়।

প্রত্যাক্ষদর্শী ও হামলায আহতরা জানান, প্রতিদিনের মতো মঙ্গলবার সকালে আনারস প্রতিকের প্রচার প্রচারনায় ব্যবহৃত একাধিক সিএনজি কযেক সেট মাইন লাগিয়ে কর্মীরা বের হয়।

উপজেলার বিভিন্ন স্থানে প্রচার প্রচারনা শেষে বেলা সাড়ে তিন টার দিকে আগ এলাসিন পৌছলে স্থানীয় আতোয়ার রহমান কালার ছেলে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকার পার্থীর ভাই স্থানীয় চিহ্ণিত সন্ত্রাসী শাহাজান আনিস, শাহিন, আতিক সহ অন্যান্য সন্ত্রাসীরা দেশীয় অস্ত্র ও লাঠি-শোঠা নিয়েঅতরকিত হামলা চালায়।

এসময় আনারস প্রতিক এর প্রচারে ব্যবহৃত দুই সেট মাইক দুই টি ব্যাটারী প্রচারে ব্যবহৃত সি এন জি ব্যাপক ভাংচুর করে। একটি মাইক সেট ও দুই’টি ব্যাটারী ছিইনতাই করে নিয়ে যায়।

বাধাঁ দেয়ায় স্থানীয় কাজিম উদ্দিনের ছেলে সিএন জি চালক মো আরিফ ও রমেজ উদ্দিনের ছেলে সিএনজিতে থাকা আনারস প্রতিকের কর্মী মো নুরুল নবী সহ অন্যান্য কর্মীদের এলোপাথালী মারপিট করে গুরুত্বর আহত করে। একই সাথে আর কোন দিন আনারসের প্রচার চালালে হত্যার হুমকি প্রদান করে চলে যায়।

পরে স্থানীয়রা এসে আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

খবর পেয়ে আনারস প্রতিকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহমুদুল হাসান মারুফ তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করে হামলার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে উপজেলা নির্বাচন অফিসারকে বিষয়টি জানান।

সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেফতার ও শাস্তির দাবীতে বুধবার দেলদুয়ার থানায় লিখিত অভিযোগ করবেন বলে জানিয়েছেন।

আনারস প্রতিকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহমুদুল হাসান মারুফ হামলা ও ছিনতাইয়ের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, নৌকা প্রার্থীর আত্নীয় স্বজন ও কমীরা প্রতিনিয়ত আমার কর্মীদের উপর হামলা ও জীননাশের হুমকী দিয়ে আসছে।

আমার প্রচারে ব্যবহৃত সরঞ্জাম গুলো ভাংচুর ও ছিনতাই করে আসছে। প্রতিনিয়ত আমার প্রচার প্রচারনায় বাধা দিয়ে আসছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাচন অফিসার কে একাধিক বার জানানো হয়েছে। বুধবার দেলদুয়ার থানায় লিথিত অভিযোগ দায়ের করবো।

তিনি আরো জানান উপজেলাবাসী আমার সাথে রয়েচে। তারা আনারস প্রতিকের প্রচার-প্রচারনায় গণজোয়ার তোলেছে। ভোটাররা আমাকে নিজের আত্নীয়, ছেলে ও সন্তান মনে করে আনারসের প্রচার চালাচ্ছেন।

সে কারণেই নৌকার প্রার্থী মরিয়া হয়ে আমার প্রচারে বাধা এবং সরঞ্জাম লুটপাট ও আমার কর্মীদের মারপিট করছেন। সকল সন্ত্রাসী কার্যক্রম উপেক্ষা করে আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি আনারস প্রতিকে শতভাগ আশাবাদি বলে জানান।

উল্লেখ্য, আনারস প্রতিকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহমুদুল হাসান মারুফ জেলা আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক।

মারুফ দেলদুয়ার উপজেলার মুশুরিয়া গ্রামের মো. আব্দুল মালেক ও মাহমুদা খান বড় ছেলে। বাবা অবঃ প্রধান শিক্ষক, মা স্টার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকা।

তিনি ছাত্র জীবন থেকেই আওয়ামীলগের রাজনীতির সাথে জড়িত।
২০০৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লেদার ইনস্টিটিউটের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পান।

২০০৪ সালে ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগ সদস্য পদ পান। ২০০৬ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য পদ পান। ২০০৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লেদার ইনস্টিটিউটের ছাত্রলীগ আহবায়ক হন এবং ২০১১ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সহ-সভাপতি হন।

২০০১-২০০৬ বিরোধী দলে থাকাকালীন বিভিন্ন মামলা, নির্যাতন, জেল, জুলুম হয়রানীর শিকার, ১/১১’র সময় দেশরত্ন শেখ হাসিনা মুক্তি আন্দোলনসহ সকল আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেছেন।

তিনি সরকারের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে উপজেলাবাসীর সেবক হিসেবে নিজেকে নিয়োজিত করতে চান।

তিনি দিন-রাত কখনো পায়ে হেটে আবার কখনো যানবাহনে উঠে উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের ভোটারদের কাছে দলীয় প্রতিকে ভোট প্রার্থনা এবং দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেন।

এছাড়াও চলারপথে বিভিন্ন বয়সের পথচারীদের জড়িয়ে ধরে কুশল বিনিময়ের সময় লিফলেট বিলি ও সমস্যার কথা শুনেন। একই সাথে ডিজিটাল উপজেলা গঠনের সকলের পরামর্শ গ্রহণ করেন।

তিনি সকল ভোটারদের প্রধানমন্ত্রী জননেন্ত্রী শেখ হাসিনার সালাম গ্রহণ করা কথা বলে হাতে লিফলেট তুলে দিয়ে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নিজেকে চেয়ারম্যান হিসেবে সুযোগ দেয়ার অনুরোধ জানান।

যে কারনে তিনি নির্বাচনী এলাকায় ব্যাপক পরিচিতি ও প্রচার-প্রচারনায় এগিয়ে রয়েছেন। তার ব্যবহার ও দলীয় জনপ্রিয়তা ভোটারদের মাঝে ব্যাপক সারা জাগিয়েছে।

এ ছাড়াও বিভিন্ন সভা-সমাবেশ ও সমাজ সেবা মূলক কর্মকান্ডের মাধ্যমে নির্বাচনী এলাকায় তিনি নির্বাচনী এলাকায় সুনাম অর্জন করেছেন।

নির্বাচনী এলাকার গরীব-অসহায় ও দারিদ্র ভোটারদের বিভিন্ন ভাবে সেবা করে আসছেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840