সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে ১৬ সরকারি প্রতিষ্ঠানে উড়ছে না জাতীয় পতাকা টাঙ্গাইলে ওয়ালটনের নন স্টপ মিলিয়নিয়ার অফার উপলক্ষে র‌্যালী কালিহাতীতে আওয়ামীলীগ-সিদ্দিকী পরিবার মুখোমুখি টাঙ্গাইলের তিন উপজেলায় মাঠ-ঘাট চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ভাইয়ের মৃত্যু রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫
নাগরপুরে আগুনে পুড়া গৃহপরিচালিকা শিশুটির পক্ষে নেই কেউ

নাগরপুরে আগুনে পুড়া গৃহপরিচালিকা শিশুটির পক্ষে নেই কেউ

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলে প্রায় প্রতিনিয়ত সচেতন নাগরিকরা নিজ জেলা সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া ধর্ষণ ও নির্যাতনের ঘটনায় মানববন্ধন সহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছে। এরপরও প্রতিনিয়ত ঘটছে ধর্ষণ ও যৌন হয়রানীর ঘটনা।

কিন্তু সাম্প্রতি নাগরপুর উপজেলার মিনা (১২) নামের এক শিশু টাঙ্গাইল শহরের পৌর এলাকার মেয়র ও প্যানেল মেয়রের বাসা সংলগ্ন প্রকৌশলী মো.শফিকুল ইসলাম দম্পতিদের জন্য গ্যাসের চুলায় চা বানাতে গিয়ে সম্পূর্ণ শরীর আগুনে জ্বলছে যায়।

কিন্তু প্রেকৌশলী দম্পতি তার চিকিৎসা না করিয়ে নাগরপুর উপজেলার নন্দপাড়া গ্রামে তার গরীব বাবার বাড়ীতে রেখে কৌশলে পালিয়ে আসে। চিকিৎসার অভাবে মেয়েটি নিজ বাড়ীর ঘরে শুয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।

শিশুটিকে প্রকৌশলী দম্পতির সন্তানকে দেখা-শোনা করানো কথা বলে নিয়ে আসেন কিন্তু তা না করিয়ে শিশুটিকে দিয়ে বাসার সকল কাজ করানো হতো বলে জানান শিশু মিনার বাবা কাজী আব্দুল হক।

এ ঘটনা সরোজমিনে দেখে নিজের চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি সহবতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোফায়েল মোল্লা। যার কারনে তিনি নিজ উদ্যোগে শিশুটিকে ঢাকা বাডেম হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন। সেখানে তিন তলায়র তিন নং ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছে শিশুটি।

অথচ এই শিশুটির পক্ষে কোন মানবাধিকার সংগঠন বা টাঙ্গাইলের সচেতন নাগরিকদের কোন প্রকার মানববন্ধন করতে দেখা যায়নি।

শিশুটির চিকিৎসার ব্যবস্থা করতেও দেখা যায়নি। কারণ হয়তো সেই প্রকৌশলী দম্পতি ক্ষমতাবান বা প্রভাবশালী। তাই নিরীহ শিশুটির জন্য কারো মন কাঁদে না। যে কারণে প্রভাব ও ক্ষমতার কাছে থেমে গেছে সচেতনতা।

আমরা বাহিরের জেলার জন্য বা বিভিন্ন জেলার ঘটনার দেখাদেখি মানববন্ধন সহ সভা সমাবেশ করে থাকি। কিন্তু নিজ জেলায় প্রতিনিয়ত ঘটনে নানা দূর্ঘটনা, ধর্ষণ, যৌন নির্যাতন ও শিশুর প্রতি পাশবিক নির্যাতন এ ব্যাপারে নেই কারো কোন মাথা ব্যাথা।

সচেতন নাগরিক ও মাববাধিকার কর্মীদের শুধু মানববন্ধন ও সমাবেশ করা পর্যন্তই দ্বায় চলে যায়। এরপর যা করার প্রশাসন করবে। এটা ভূল। প্রশাসনকে আমাকে সহযোগিতা করে অপরাধীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

তবেই সমাজের মানুষ সচেতন নাগরিক ও মাববাধিকার অর্জনের সুফল কিছুটা বুঝতে পারবে।

আর এভাবেই আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ করে সচেতন নাগরিক হিসেবে অন্যান্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী করে তুলতে হবে। তবেই হয়তো কমতে পারে ধর্ষণ ও নির্যাতনের ঘটনা।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সনের ১২ ডিসেম্বর টাঙ্গাইল সদর থানা পাড়ায় প্রকৌশলী মো.শফিকুল ইসলামের বাসায় গ্যাসের চুলায় চা বানাতে গিয়ে আগুনে দগ্ধ হয় শিশুটি।

পরে প্রকৌশলী মো.শফিকুল ইসলাম মিনাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। মিনার শারীরিক অবস্থা অবনতি হওয়ায় টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা রেফার্ড করেন।

কিন্তু প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম ও তার স্ত্রী আগুনে দগ্ধ মিনাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় না নিয়ে তার গরীব বাবার বাড়ী নাগরপুর উপজেলা নন্দপাড়া গ্রামে রেখে পালিয়ে যায়।

এর পর থেকে মিনার বাবা কাজী আব্দুল হক তার মেয়েকে নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। মেয়ের জীবন বাচাাঁতে হতদরিদ্র পরিবার নিজের সহায়সম্বল হারিয়ে এবং ধার দেনা করেও অগ্নিদগ্ধ মিনার সু-চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারেননি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840