সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে টিচার্স ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে মেধাবী শিক্ষার্থীদের সনদ ও বৃত্তি প্রদান কালিহাতীতে নিখোঁজের ৮ দিন পর ধান ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার সখীপুরে ৫৩ তম মুক্তিবাহিনী দিবস পালিত ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মসজিদ কর্তৃপক্ষকে মারধরের হুমকি দেয়ার অভিযোগ গোপালপুরে দারোগার মাথা ফাটিয়েছে সন্ত্রাসীরা; গ্রেফতার ১৬ মির্জাপুরের সময়ের কথা এনজিওর দুই মালিক গ্রাহকের লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে উধাও,অনশনে ভূক্তভোগীগন ঘাটাইলে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী টাঙ্গালে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সমাবেশ কে কেন্দ্র করে চরম উত্তেজনা  বাতিঘর আদর্শ পাঠাগারের উদ্যোগে উচ্চশিক্ষা বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত টাঙ্গাইলে ব্যবসায়ীক ঝামেলাকে কেন্দ্র করে একজনকে কুপিয়ে আহত
নাগরপুরে পিএসসি পরীক্ষায় প্রক্সি।। উপবৃত্তি পায় শিক্ষিকা ও টিসি ম্যাডাম

নাগরপুরে পিএসসি পরীক্ষায় প্রক্সি।। উপবৃত্তি পায় শিক্ষিকা ও টিসি ম্যাডাম

জসিউর রহমান (লুকন) নাগরপুর : নাগরপুর উপজেলার ধুবড়িয়া ইউনিয়নের বিষমপুর আনন্দ স্কুলের এ বছর ৫ম শ্রেনীর ১৫ জন নিয়মিত শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ গ্রহনের কথা থাকলেও ১৮ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ ছাড়াও পরীক্ষায় প্রক্সি দেয়ার অভিযোগে নিরব কর্তৃপক্ষ অপর দিকে উপবৃত্তির টাকা টিসি ম্যাডাম মাসুদা এর যোগসাজসে হাতিয়ে নিয়েছে আনন্দ স্কুলের শিক্ষিকা ছালেহা পারুল।

গত ১৯-১১-১৯ ইং মঙ্গলবার বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে (উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার) ইউইও সালিমা আখতার এর কাছে সাংবাদিক মুঠোফোনে পিএসসি পরীক্ষায় ধুবড়িয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫ম শ্রেনীর শিক্ষার্থীর পরিবর্তে প্রক্সি দিচ্ছে ৪৬ নং খাষ ভূগোল হাট সরকারী জুনিয়র স্কুলের ৭ম শ্রেনীর ছাত্রী অন্তরা।

তাকে এমন তথ্য দেয়াতে তিনি সাংবাদিকের কাছে রোল নম্বর এবং অভিভাবকের মোবাইল নম্বর চান এবং এসএমএস এর মাধ্যমে তাকে দেয়া হয়। পরীক্ষা শেষে কেন্দ্রের শিক্ষকদের প্রক্সি পরীক্ষার বিষয়ে প্রশ্ন করে জানাযায় প্রকৃত সত্য ঘটনা।

আসলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সালিমা ঐ কেন্দ্রের দায়িত্ব প্রাপ্ত কারো সাথেই যোগাযোগ করেননি। পরে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সালিমা এর সাথে পুনরায় যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমি কাগজ কলম নিয়ে বসেছিলাম আপনি হয়তো পরীক্ষারর্থীর রোল নং এবং অভিভাবকদের নম্বর দেবেন। তাকে নম্বর এস এম এস করে পাঠানোর পরও তিনি কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেননি।

শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রকৃত পক্ষে ৩ জন প্রক্সি পরীক্ষা দিচ্ছে ঐ কেন্দ্রে। এ ছাড়াও দীর্ঘ দিন যাবৎ কোমলমতি শিশুদের সরকারের পক্ষ থেকে দেয়া উপবৃত্তির টাকা সহ বিভিন্ন বরাদ্দের টাকা টিসি ম্যাডাম মাসুদা এর যোগসাজশে আত্নসাত করেছেন আনন্দ স্কুলের শিক্ষিকা পারুল। অভিযোগ করে বিষমপুর আনন্দ স্কুলের শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকরা।

পরে অনুসন্ধান করে জানাযায়, অন্তরা উপজেলার বিষমপুর গ্রামের সাহাব উদ্দিনের মেয়ে। বিষমপুর অনন্দ স্কুলের শিক্ষিকা পারুল (ছালেহা) ৫০০ টাকার বিনিময়ে মুক্তা (রোল ৩৬১২) এর পরীক্ষা দেয়ানোর জন্য অন্তরা কে দিয়ে দেয়াচ্ছে।

একই গ্রামের আবুলের ছেলে ফাহিম ধুবড়িয়া সেফাতুল্লাহ্ উচ্চ বিদ্যারয়ের ৮ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী কে দিয়ে আনন্দ স্কুলের আবির (রোল নং ৩৬০৪) এর হয়ে পরীক্ষা অংশগ্রহন করাচ্ছেন। ফাহিম কে দিয়ে উবৃত্তির টাকাও উত্তোলন করান শিক্ষিকা পারুল।

এই কাজের জন্য ম্যাডাম ফাহিম কে ৫ শত টাকা দিয়েছেন এবং পরীক্ষার শেষে আরো ২ হাজার টাকা দেবে বলেও নাবালক কিশোর কে প্রলোভন দেখান। শিশু রাবেয়া রোল ( ৩৬১৮) এর সমাপনি পরীক্ষা দেয়ানো হয়েছে ধুবড়িয়া সেফাতুল্লাহ্ উচ্চ বিদ্যারয়ের ৮ম শ্রেনীর ছাত্রী গগনের মেয়ে অরর্থী কে দিয়ে।

প্রশ্ন আসে কেন এ সকল কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীদের দিয়ে এমন হীন কাজ পারুল (ছালেহা) ম্যাডাম করাচ্ছেন। শিক্ষার আলো বিতরনের স্থলে তিনি প্রতারনার আলো ছরিয়ে দিচ্ছেন শিশুদের মাঝে।

তিনি কি নেবেন এই সকল ভবিষ্যৎ প্রজন্মের বিপথগামী হওয়ার দায়ভার। শুধু তাই নয় তিনি সকল বাচ্চার জন্য দেয়া উবৃত্তির পুরো টাকাও হাতিয়ে নিচ্ছেন। তার পরিবারের লোকদের শিক্ষারর্থী এবং অভিভাবক সাজিয়ে তুলে নিচ্ছেন উপবৃত্তি সহ সকল সুযোগ সুবিধার অর্থ।

ফুলের মত শিশুদের ভয়, লোভ লালসা ও মারধরের মাধ্যমেই চালিয়ে যাচ্ছেন তার অপরাধের রাজত্ব। বিগত ৫ বছর যাবৎ এভাবেই চলছে নিরানন্দ বিষমপুর আনন্দ স্কুল। তিনি বাচ্চাদের দিয়ে পাড়া লেখার পরিবর্তে ধান সেদ্ধ থেকে শুরু করে বিভিন্ন ভারি কাজ করান।

বেশির ভাগ সময় ব্যস্ত থাকেন ব্যবসা নিয়ে। পরিবর্তে বাবা, ভাই, বোন, মা বাড়িতে থাকলে পাড়ান বাচ্চাদের। নিয়মিত পাঠদান না করে সরকারের নিতিমালা কে বৃদ্ধা অঙ্গুলি দেখিয়ে বাচ্চাদের জোর করে সারা বছর কোচিং করান তিনি। এছাড়াও বাচ্চাদের মারধরও করেন, শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকরাও তার ভয়ে মুখ খুলতে চান না।

শিক্ষিকা পারুলে (ছালেহা) এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ কারার চেষ্টা করলে বন্ধ পেয়ে বিষমপুর আনন্দ স্কুল ও তার বাড়িতে গিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি। তার বাবা পারুল ম্যাডাম কে তার প্রতিবেশী পরিচয় দেন। মা, সহ বাড়ির অন্য সদস্যরা তার বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হননি।

তবে আনন্দ স্কুলের বিদ্যালয় ঘর দেখে চোখে পানি ধরে রাখা কঠিন। আর যাই হোক এমন ঘরে লেখা পড়ার পরিবেশ তো দূরে থাক, গবাদী পশু রাখা হলেও অসুস্থ হয়ে মারা যাবে। দরজা, জানাল, ফ্যানহীন, মাটির মেঝে, বাচ্চাদের বসার জন্য পাটের চাটাই, ময়লার ভাগারে একটি মা মুরগী ও তার বাচ্চাদের পোকা খাবারে খোজে দেখা যায়, নোংরা কাপড়, একটি ছোট ব্লাক বোর্ড, ট্রাংক ছাড়া আর কিছুই আনন্দ স্কুলে পরিলক্ষীত হয়নি।

৪৬ নং খাষ ভূগোলহাট সরকারী জুনিয়র বিদ্যারয়ের প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে থাকা সহকারী শিক্ষক মনরঞ্জন বিদ্যালয়ের নাম ও তার পদবী সহ ছাত্রী অন্তরার বিষয়ে অসংলগ্ন কথা বলেন। তার কর্মক্ষেত্রের নাম এবং পদবী সঠিক ভাবে বলতে পারেনি।

মোবাইল ফোনে নাগরপুর উপজেলার টিসি ম্যাডাম মাসুদা এর সাথে কথা বলতে গেলে তার নাম এবং পদবী জানতে চাইলেই, তিনি রেগে গিয়ে ধমকের শুরে সাশিয়ে ওঠেন। আনন্দ স্কুলে সংখ্যা কত, এই প্রশ্ন করা সাথে সাথে তিনি বলেন, আমি এখন খুবই ব্যাস্ত মিটিং এ আছি। উপবৃত্তির টাকা শিক্ষকদের নিয়ে আত্নসাতের বিষয়ে প্রশ্ন করায় তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, কেন কেন, কি বল্ল, কে বল্ল, কোথা থেকে আসল, কে বল্ল, এইটা কি কোন প্রশ্ন হইল।

আপনি টিচার ও বাচ্চাদের কাছে শুনেন, প্রমান দেন। কোথা থেকে এতদিন পর এমন প্রশ্ন আসল। সাশিয়ে বলেন, এত সহজ না বুঝছেন। নিজেকে সৎ দাবী করে বলেন পারলে আপনি ফিলডে গিয়ে খোজ নেন।

প্রক্সি পরীক্ষার কথা বলতেই তিনি বলেন, হুট হাট করে এমন কথা বলবেন না। অপনারা যাচাই করেন, আমি কি প্রত্যেকটা স্কুলের বাচ্চাদের কি মুখস্থ করেছি না কি, আজব। আমার জানা মতে, কেউ প্রক্সি পরীক্ষা দিচ্ছে না। আপনি কি আমার সাথে চালাইতেই থাকবেন, কথা।

তার দায়িত্ব অবহেলা হয়েছে কি না, কথা বলতেই চিৎকার চেচামেচি করে মোবাইল সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন। তার সম্পর্কে খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায় এবং নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, তার স্বামী এই দপ্তরের হেড অফিসে কর্মরত, তিনি কাউকেই তোয়াক্কা করেন না। প্রতি বছর নাগরপুর উপজেলার অনন্দ স্কুল থেকে কমক্ষে ১৫ লক্ষ টাকা অবধৈ ভাবে উপার্জন করেন।

আনন্দ স্কুলের অভিভাবক, শিক্ষার্থী সহ সচেতন মহল এ বিষয়ে মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রী এবং মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840