নাগরপুরে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

নাগরপুরে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

প্রতিদিন প্রতিবেদক নাগরপুর : টাঙ্গাইলের নাগরপুরে বন্যাদূর্গত অসহায় ৬ শত পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার দপ্তিয়র ইউনিয়ন পরিষদ মাঠ প্রাঙ্গনে সরকারি বরাদ্দ পরিবার প্রতি ১০ কেজি চাল ও ১ কেজি করে ডাল বানভাসী এসব পরিবারের মাঝে বিতরণ করা হয়।

গত কয়েকদিনে যমুনা নদীর পানি অব্যাহত ভাবে বৃদ্ধি পেয়ে নাগরপুর উপজেলার ভারড়া, সলিমাবাদ ও দপ্তিয়র ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়। ফলে এসব এলাকার মানুষের মাঝে বিশুদ্ধ পানি ও খাবারের সংকট দেখা দেয়।

নদী পাড়ের ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের দূর্দশা বিবেচনা করে সরকার তাদের দিকে সাহয্যের হাত বাড়িয়ে দেন। মঙ্গলবার সকালে দপ্তিয়র ইউপি চেয়ারম্যান এম ফিরোজ সিদ্দিকী প্রশাসনের পক্ষে দূর্গত এ সকল পরিবারের মাঝে চাল ডাল বিতরণ করেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ, আব্দুস ছালাম, আব্দুল জব্বার, ইউপি সচিব মো.জহিরুল ইসলাম জুয়েল।

উল্লেখ্য, নাগরপুরে যমুনা নদীর পানি গত ২৪ ঘন্টায় বিপদ সীমার ৩৪ সেন্টিমিটার ও ধলেশ্বরী নদীর পানি বিপদ সীমার ৯০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এতে করে শনিবার সকালে নাগরপুর উপজেলার ধলেশ্বরী নদীর ঘোনাপাড়া পয়েন্টে ১৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সদ্য নির্মিত বেড়িবাধ ভেঙ্গে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়।

বন্যার পানি উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ডুকে পড়ে। এর মধ্যে নদী সংলগ্ন অনেকে দুস্থ পরিবার ঘর-বাড়ী ফেলে অন্যত্র নিরাপদ আশ্রয়ে চলে গেছেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, বারপাখিয়া থেকে ঘোনাপাড়া পর্যন্ত ধলেশ্বরী নদীতে ১ শত ৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ে তিনমাস আগে বেরিবাধ নির্মান করা হয়। বেরিবাধটি মূলত ঘোনাপাড়াসহ আশপাশের বিস্তীর্ণ এলাকাকে ধলেশ্বরী নদীর ভাঙ্গন থেকে রক্ষা করার জন্য নির্মান করা হয়।

অথচ তিনমাস আগে বাধ নির্মিত হলেও তা এলাকাবাসীর কোন উপকারে আসলো না। গত কয়েক দিনে ধলেশ্বরী নদীর পারি বৃদ্ধি পাওয়ায় শনিবার সকালে নির্মিত বেরিবাধ ভেঙ্গে বেশ কিছু নিম্নাঞ্চল বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। চরাঞ্চলের তিল, পাট সহ বিভিন্ন ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে।

এতে নাগরপুরের হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। পানিবন্দী এসব মানুষ অভিযোগের সূরে বলেন নদীর ভাঙ্গন ও প্লাবন থেকে বাচতে বাধ নির্মান করা হলেও তা আমাদের কোন কাজেই আসলো না। এদিকে হঠাৎ করে পানি ঢুকে পড়ায় গবাদী পশু ও ফসল নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন পানিবন্দি এসব মানুষ।

টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সিরাজুল ইসলাম জানান, উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টির কারনে যমুনা নদীর পানি বিপদ সীমার ৩৪ সেন্টিমিটার, ধলেশ্বরী নদীর পানি বিপদ সীমার ৯০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এতে করে বেরিবাধের নিচের অংশের ব্যকগুলো সরে গিয়ে এবং নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বাধের উপর দিয়ে উঠে পানি লোকালয়ে ঢুকে পড়েছে। এছাড়া মাটির তৈরি আরো একটি বাধ ভেঙ্গে পানি ঢুকে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। আমরা আপদকালীন সময়ে বেরিবাধের ভেঙ্গে যাওয়া অংশে পাথরের ব্যক ফেলে মেরামত করার উদ্যোগ নিয়েছি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840