সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে ১৬ সরকারি প্রতিষ্ঠানে উড়ছে না জাতীয় পতাকা টাঙ্গাইলে ওয়ালটনের নন স্টপ মিলিয়নিয়ার অফার উপলক্ষে র‌্যালী কালিহাতীতে আওয়ামীলীগ-সিদ্দিকী পরিবার মুখোমুখি টাঙ্গাইলের তিন উপজেলায় মাঠ-ঘাট চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ভাইয়ের মৃত্যু রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫
নাগরপুরে ভন্ড পীড়ের কার্যক্রমে বাঁধা দেয়ায় ছোট ভাই ও তার পরিবার গ্রাম ছাড়া

নাগরপুরে ভন্ড পীড়ের কার্যক্রমে বাঁধা দেয়ায় ছোট ভাই ও তার পরিবার গ্রাম ছাড়া

প্রতিদিন প্রতিবেদক : নাগরপুরে খন্দকার আনোয়ার হোসেন (৬০) ওরফে কথিত দয়াল বাবা “ আনোয়ার শাহ” নামের এক ভন্ডপীড়ের অবৈধ কার্যক্রমে অতিষ্ট হয়ে উঠেছে এলাকাবাসী।

তিনি নিজে নামাজ-রোজা করেন না এবং তার ভক্তদের নামাজ-রোজা থেকে বিরত থাকতে বলেন। তিনি সহজেই জনসমূখে উলংগ হয়ে নিজে বড় পীড় হিসেবে দাবী করেন।

তার কৃত কর্মের জন্য মৃত্যুর পর তিনি আকাশের তারা হয়ে জ্বলবেন এবং মসজিদ হলো মুসলমানদের একটি খেলা ঘর বলে ভক্তদের মাঝে প্রচার করেন।

তার এসব অবৈধ কার্যক্রমে বাঁধা দেয়ায় তার আপন ছোট ভাই খন্দকার ওয়াহিদুজ্জান ও তার পরিবারকে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে আটক রেখে মারপিট করে জীবন নাশের হুমকী দিয়ে জোর পূর্বক সাদা স্ট্যাপপে স্বাক্ষর নিয়ে বাড়ী থেকে তারিয়ে দিয়েছেন।

পরে তিনি তাৎক্ষনিক নাগরপুর থানায় অভিযোগ করেন। থানা পুলিশ কোন প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় তিনি টাঙ্গাইল আদালতে ভন্ডপীড়ের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের করেন।

মামলা চলমান থাকলেও তিনি বাড়ীতে ফিরে যেতে পরছেন না বরং ভন্ডপীড়ের সন্ত্রাসী বাহিনীরা তাকে কোর্ট চত্বরেও মারপিট সহ জীবননাশের হুমকী দিয়ে আসছেন।

বাদী খন্দকার ওয়াহিদুজ্জান ও পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় অন্যাত্র বসবাস করছেন। অন্যাদিকে ভন্ডপীড়ের ভন্ডামীতে অতিষ্ট এলাকাবাসী তাদের পরিবারের মহিলা সদস্যদের সম্মান হানির আতংকে রয়েছেন।

ভন্ডপীড় খন্দকার আনোয়ার হোসেন (৬০) ওরফে কথিত দয়াল বাবা আনোয়ার নাগরপুর উপজেলার জগতলা গ্রামের মৃত খন্দকার কেরামত আলীর ছেলে।

দীর্ঘ দিন তিনি পুলিশের চাকুরীতে কর্মরত ছিলেন। সেখান থেকে অবসরে এসেই বৃদ্ধ বয়সে ক্ষমতার দাপটে নিজ স্ত্রীকে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে বাড়ী থেকে তারিয়ে দিয়েছেন।

এরপর থেকেই তিনি ভন্ডপীড় সেঁজে ভন্ডামী শুরু করেন। তিনি পুলিশে চাকুরী করায় নাগরপুর থানা পুলিশ তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না। যার কারনে তার ভন্ডামীর মাত্রা ক্রমশ বেড়েই চলছে।

তিনি এখন পীড়ের বেশে বিভিন্ন নারীদের নিয়ে একলা কক্ষে গোপন মেলামেশা সহ নেশা জাতীয় দ্রব্য সেবন ও বিক্রি করে আসছেন।

ভন্ডপীড় খন্দকার আনোয়ার হোসেন ওরফে দয়াল বাবা “আনোয়ার শাহ্” পীড়ের নাম ভাঙ্গিয়ে ভন্ডামি শুরু করছে।

আসলে সে কোন দরবার শরীফ থেকে সিলসিলা আনেননি। তিনি নিজেই পীড় সেজে ভন্ডামি শুরু করেছেন।

মঙ্গলবার সরোজমিনে তার বাড়িতে গিয়ে উপরোক্ত দৃশ্য ও তথ্য পাওয়া যায়। এসময় দেখা যায় তার বাড়িতে প্রায় দেড় হাজার মানুষের খাবারের জন্য রান্না করা হচ্ছে।

পাশের ঘরেই বসেই তিনি বক্তবৃন্দের সাথে আলোচনা করছেন। মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতি টের পেয়ে হতাশ হয়ে যান।

উঠানে প্যান্ডেল সাজানো হচ্ছিল। যেখানে রাতে পীড়ের জন্য গানের আয়োজন রয়েছে। বাড়ি গাছে বিভিন্ন মাইক লাগানোর কাজ চলছিলো। তার ঘরে প্রবেশ করতেই দেখা যায় ঘরটি ফুল, বেলুনসহ বিভিন্ন প্রকার সরঞ্জাম দিয়ে সাজানো হয়েছে।

ঘরের ভিতরে একটি ব্যানারে লেখা জগতলা দরবার-এ-এলাহী। শাহান শাহ্ বাবা রাহাত আলী শাহ্র আত্যাধিক ও রুহানী সন্তান, দয়াল বাবা আনোয়ার শাহ্ জগতলা দরবার-এ-এলাহী ও বাংলাদেশ বেতারের গীতিকার দয়াল বাবা আনোয়ার শাহ্।

ঘরের ভেতর সনাতন ধর্মলম্বীদের (লোকনাথ) ছবি রয়েছে। সেখানেও ভক্তদের ভক্তি দেওয়া হয়। তবে তার বাড়িতে (জগতলা গ্রামে) কাউকে পাওয়া যায়নি।

তার বাড়ীতে আসা কিশোরগঞ্জের এক ভক্ত জানান, আমি গত দুই বছর যাবত জগতলা গ্রামে পীড়ের বাড়ীতে আসি। আনোয়ার শাহকে খুব ভালবাসি তাই বছরে একবার তার সাথে দেখা করতে আসি।

ঢাকার ধামরাই এলাকার এক ব্যক্তি জানান, আমি কয়েক বছর যাবত এখানে আসি। বেশ কিছু লোক ধামরাই থেকে বছরে একবার আসি। এখানে আসতে আমার খুব ভাল লাগে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই এলাকার একাধিক ব্যক্তি জানান, তিনি পুলিশের চাকুরী করতেন। সেখান থেকে নেংটা পীড়ের সিলসিলা এনে পীর হয়েছেন। তার পর থেকে তার বাসায় দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে তার ভক্তবৃন্দ আসতে থাকে।

তাকে কখনও নামাজ রোযা আদায় করতে দেখিনি। শুধু পীড়ের নাম বাঙিয়ে বছরে একাধিকবার ওরশ করে থাকে। ওরশের নামে তার বক্তবৃন্দের নিকট হতে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। তবে জগতলা এলাকাসহ আশে পাশের এলাকার তার কোন বক্তবৃন্দ নেই।

সবই দূরদুরান্ত থেকে আসে। আনোয়ার শাহ্ তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাধ দিয়ে তারিয়ে দেয়। একই সাথে স্থানীয় মৃত আব্দুস ছালাম মেম্বারের ছোট ছেলে তপনের স্ত্রীকে রক্ষিতা রেখে অবৈধ মেলামেশার মাধ্যমে সংসার করে যাচ্ছেন।

সাম্প্রতি এ বছরের মার্চ মাসের ২৭ তারিখে দুপুরে তপনের স্ত্রীর সাথে অবৈধ মেলামেশা করার সময় তার ছোট ভাই খন্দকার ওয়াহিদুজ্জান হাতে-নাতে ধরে ফেলে।

পরে স্থানীয় মেম্বার সহ মাতাব্বরদের খবর দিলে তারা ঘটনাস্থলে। এসে নিজেদের সম্মান হানির বিষয় বিবেচনা করে সন্ধ্যায় বিচার করবেন এই আশ্বাস দিয়ে তাদের ছেরে দেওয়া হয়।

পরে ভন্ডপীর তার আপন ছোট ভাই খন্দকার ওয়াহিদুজ্জান ও তার পরিবারকে ভন্ডপীরের লালিত সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে অস্ত্রের মূখে আটক রেখে মারপিট করে জোর পূর্বক সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এর পর থেকেই তিনি ও তার পরিবার বাড়ী ছাড়া রয়েছেন।

পরে অধ্যবদি ভন্ডপীর তার ভন্ডামীর মাত্রা বাড়িয়ে চলছেন। তার অবৈধ কার্যক্রমের কোন প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছেন না এলাকাবাসী। কেউ প্রতিবাদ তাদের অবস্থাও খন্দকার ওয়াহিদুজ্জানের মতো করা হবে বলে ভয়ভিিত দেখান।

এর কোন প্রতিকার পাচ্ছেন না এলাকাবাসী। বিচ্ছেদসহ তার আপন ছোট ভাইয়ের সাথে খারাপ আচরণ করে। তার ছোট ভাই দীর্ঘ কয়েক মাস যাবত বাড়ি ছাড়া।

ভন্ডপীড় খন্দকার আনোয়ার হোসেন ওরফে আনোয়ার শাহ্ জানান, আমার মা বাৎসরিক ১০ মহরম মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করতেন। আমি সেই কাজটি করে থাকি।

আমার কাছে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে মানুষ আসে। মানুষ গুলো আমাকে ভালবাসে ও শ্রদ্ধা করে। আমি তাদের খুব ভালবাসি। সেই জন্য তারা এতো দূরদুরান্ত থেকে আসে।

আমি কার কাছ থেকে কোন প্রকার সিলসিলা আনি নাই। প্রতি বছর ১০ মহরম আমি ওরশ পালন করে থাকি।

তিনি আরও বলেন, আমি পরিবার পরিজন নিয়ে এক সাথেই থাকি। আমার স্ত্রী’র সাথে কোন প্রকার বিচ্ছেদ হয়নি। আমার ছোট ভাইয়ের কোন প্রকার ক্ষতি করিনি।

ছোট ভাই আমাকে একাধিকবার মারতে এসেছে। চাকুরীর কথা বলে সে বিভিন্ন জনের নিকট হতে টাকা নিয়েছে। সেই জন্য সে এলাকায় আসে না।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840