নাগরপুরে ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় গ্রেফতার এক

নাগরপুরে ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় গ্রেফতার এক

প্রতিদিন প্রতিবেদক নাগরপুর : নাগরপুরে ৯ম শ্রেনীর এক ছাত্রী (১৪) ধষর্নের শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় নাগরপুর থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ মো. সুমন মিয়া (২৮) নামের এক যুবক কে গ্রেফতার করেছে।

সে পাছ ইরতা গ্রামের আবুল হাসেম ওরফে ননী মিয়ার ছেলে। শুক্রবার রাত ৯ টার দিকে উপজেলার সহবতপুর ইউনিয়নের সারাংপুর গ্রামের নির্জন মাঠে এ ঘটনাটি ঘটে। নাগরপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গোলাম মোস্তফা গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সহবতপুর ইউনিয়নের পাছ ইরতা গ্রামের খন্দকার রহুল আমিনের মেয়ে ৯ শ্রেনীর ছাত্রী (১৪) পাশের বাড়ীর এমদাদ মাষ্টারে ভবনের নির্মাণ শ্রমিক মাসুদকে সাথে নিয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় বাড়ীর সামনে পাকা রাস্তায় দিয়ে হাটছিল।

কিছু দূর যাওয়ার পর একই গ্রামের ওয়াজেদ আলীর ছেলে আব্দুর রহমানের সাথে তাদের দেখা হয়। বেড়ানোর কথা বলে রহমান ওই স্কুল ছাত্রী ও মাসুদকে মটরসাইকেল যোগে সারাংপুর নিয়ে যায়।

এরপর মাসুদকে ভয় দেখিয়ে সেখান থেকে তাড়িয়ে দেয়। পরে রহমান ওই মেয়েটি কে জোর করে সারাংপুর চকে (মাঠ) নিয়ে ধর্ষন করে পালিয়ে যায়। নাগরপুর থানা পুলিশ খবর পেয়ে ভিকটিমকে উদ্ধার করে।

নাগরপুর থানার ইন্সেপেক্টর (তদন্ত) গোলাম মোস্তফা জানান, প্রাথমিক ভাবে ভিকটিমের জবানবন্ধী রেকর্ড করা হয়েছে। ভিকটিম নিজেই বাদী হয়ে থানায় মামলা করে।

মামলার ভিত্তিতে সুমন নামে এক যুবককে গ্রেফতার করে কোর্টের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরন করা হয়। ভিকটিমকে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে বলেও তিনি জানান।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840