পরিবেশ দূষণ ও স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে নাগরপুর উপজেলা

জসিউর রহমান (লুকন) নাগরপুর : প্রতিনিয়ত পরিবেশ দূষণ ও স্বাস্থ্য ঝুকিতে রয়েছে নাগরপুর উপজেলা। বেড়েই চলছে রোগ জীবানু ও রোগীর সংখ্যা। প্রতিনিয়ত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন বৃদ্ধ ও শিশুরা। উপজেলায় ছড়িয়ে পরছে রোগের আতংক।

অজ্ঞাত কারণে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না জেলা ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানিয়েছেন উপজেলাবাসী। প্যাথলোজি ক্লিনিক এর নীতিমালা সূত্রে জানা যায়, নিজ দায়িত্বে নিজস্ব পাকা চৌবাচ্চায় পুরিয়ে মাটিতে চাপা দিয়ে রাখবে।

কেউ যদি আইন অমান্য করে তার বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। অথচ কেউ নীতিমালার তোয়াক্কা করছেন না। জানা যায়, নাগরপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের ১০০ গজ উত্তর পাশে সরকারি পরিত্যক্ত পাট বীজ গুদামের আঙ্গিনায় দীর্ঘদিন প্যাথলোজি বর্জ্য ও মেয়াউত্তির্ণ ঔষধ ফেলে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে তৈরি করেছে ঐ এলাকার ক্লিনিক ও ঔষধ ব্যাবসায়ীরা বলে অভিযোগ উঠেছে।

উপজেলায় ৭টি অনুমোদিত প্যাথলোজি ক্লিনিক রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে বেশ কয়েকটি ঔষধের দোকান। আর রোগ নির্ণয়েই প্রতিনিয়ত রোগীদের সম্মুখীন হতে হয় বিভিন্ন প্রকার পরীক্ষা-নিরীক্ষার। অপর দিকে ডায়াবেটিস এর ইনসুলিন সহ বিভিন্ন ইনজেকশনের ব্যবহার হয় প্রতিদিন।

এ সকল সুচের ব্যবহার শুধু ক্লিনিকেই সীমিত নয় বং তা ঔষধ ব্যবসায়ী পর্যন্ত বিস্তৃত। অপর দিকে সকল ক্লিনিক এর আইন অমান্য করার বিষয়টি। সঠিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় ভূমিকা, সনদ প্রাপ্ত দক্ষ জনশক্তি এর সমন্বয়ে কি পরিচালিত হচ্ছে এ সকল ক্লিনিক?

দায়-দায়িত্ব নিতে আগ্রহী নয় কেউই, কিন্তু প্রতিনিয়তই বেড়ে চলছে এমন জীবানুর উৎস। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য প্যাথলোজির ব্যবহৃত সুঁচ, সিরিঞ্জ, ব্লেইড, কাঁচের বোতল, ঔষধের খোশা, ইনজেকশনের ভাঙ্গা বোতল সহ বিভিন্ন প্রকারের ব্যবহৃত ঔষধের বর্জ্য।

এ সকল ক্লিনিক এর বর্জ্যে এটু ছোঁয়াতেই খুব সহজেই ছড়িয়ে পড়তে পারে মরন ব্যাধী এইচআইভি, হেপাটাইটিস বি, টিটেনাস, টিবি, ডেঙ্গু, যক্ষ্যা সহ বিভিন্ন প্রানঘাতী রোগ। এভাবে বর্জ্য ত্যাগের ফলে বিপন্ন হচ্ছে জীব বৈচিত্র্য এবং ছড়াচ্ছে প্রান ঘাতক রোগ।

যথাযথ কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই ফিরতে পারে নির্মল পরিবেশ আশা এলাকাবাসীর। বাজার বনিক সমিতির আহবায়ক মো. হাবিবুর রহমান লিটন জানান, আমরা একাধিক বার ঐ সকল ক্লিনিক ও ঔষধ বিক্রেতাদের অনুরোধ করেছি কিন্তু তার সংশোধন হয়নি।

আমাদের নির্ধারিত ময়লার বিন/ঝুড়ি দেয়া আছে। তবে তাদের তাদের ধারাল ময়লার ঝুড়ি তাদের নিজ নিজ দায়িত্বেই সংগ্রহ করে যথাযথভাবে বর্জ্য সংরক্ষিত ও ধ্বংসের বিধান রয়েছে।

এ বিষয়ে বাজার বনিক সমিতির আহবায়ক মো. হাবিবুর রহমান লিটন বলেন, আমরা একাধিক বার ঐ সকল ক্লিনিক ও ঔষধ বিক্রেতাদের অনুরোধ করেছি কিন্তু তার সংশোধন হয়নি। আমাদের নির্ধারিত ময়লার বিন/ঝুড়ি দেয়া আছে।

তবে তাদের তাদের ধারাল ময়লার ঝুড়ি তাদের নিজ নিজ দায়িত্বেই সংগ্রহ করে যথাযথভাবে বর্জ্য সংরক্ষিত ও ধ্বংসের বিধান রয়েছে। আমাদের কাছে সুনির্দিষ্ট ভাবে অভিযোগ দিলে অবশ্যই দ্রুত তাকে বা তাদের আইনের আওতায় এনে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

নাগরপুর ড্রাগিষ্ট ও কেমিস্ট সাধারণ সম্পাদক মো. হিরোন মিয়া জানান, মানুষ ও পরিবেশ কে হুমকির মুখে ফেলা আমাদের কারোরই কাম্য নয়। আমি আপনারদের মাধ্যমেই জানতে পারলাম।

আমি জায়গাটি পরিদর্শন করে দ্রুত ব্যবস্তা গ্রহণ করব। আমাদের পক্ষ থেকে কড়া নির্দেশনা দেয় আছে বর্জ্যের সঠিক ভাবে ধ্বংসের। তবে কেউ যদি তা অমান্য করে তবে সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তি বা প্রতিষ্ঠানই এর জন্য দায়ী থাকবে।
সিভিল সার্জন ডা. মো. শরিফ হোসেন কে মোবাইলে বারবার ফোন করলেও ফোনে তাকে পাওয়া যায়নি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840