প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গলী দেখিয়ে মির্জাপুরে বালু বিক্রির মহোৎসব

প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গলী দেখিয়ে মির্জাপুরে বালু বিক্রির মহোৎসব

প্রতিদিন প্রতিবেদক : স্থানীয় প্রশাসন বারবার ব্যবস্থা নেয়ার পরও থেমে নেই টাঙ্গাইলে মির্জাপুরে অবৈধ বালু বিক্রি মহোৎসব। প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গলী দেখিয়ে প্রভাবশালী একটি মহল মাটি বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। মির্জাপুরের ফতেপুর ইউনিয়নের বৈলানপুর, হিলড়া ও বরকির ফারাম এলাকায় তারা বেকু মেশিন দিয়ে নদীর বালূ বিক্রি করে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বালু খেকো মহলটি সেখানে চারটি বেকু মেশিন দিয়ে প্রতিদিন কয়েকশ’ ট্রাক মাটি বিক্রি করছে। প্রতিদিন ১২ চাকা ও ছয় চাকার মাটিভর্তি শত শত ট্রাক চলাচলের কারনে গ্রামীন সড়ক হুমকির মধ্যে পড়েছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের থলপাড়া-কুর্নি সড়কের বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছে। প্রভাবশালী মহলের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেনা স্থানীয়রা। বিষয়টি গনমাধ্যমে প্রকাশিত হলে উপজেলা প্রশাসন গত ২৫ ফেব্রুয়ারী অভিযান চালিয়ে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে। এবং মাটি কাটা বন্ধ করে দেয়। প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গলী দেখিয়ে পরের দিন থেকেই একই কায়দায় বেকু দিয়ে মাটি উত্তোলন ও বিক্রি শুরু করে বালু খেকোরা। প্রতিদিন সন্ধান পর থেকে সারারাত চলে মাটি বিক্রি।

এর আগেও স্থানীয়দের দাবির মুখে স্থানীয় প্রশাসন মাটি উত্তোলন বিক্রি বন্ধ করে দেয়। প্রায় ১৫ দিন বন্ধ থাকার পর পুনরায় বেকু মেশিন দিয়ে মাটি উত্তোলন ও বিক্রি শুরু করে প্রভাবশালী মহলটি। জানা গেছে, ফতেপুর ইউনিয়নের উপর দিয়ে প্রবাহিত লৌহজং নদীতে বিশাল একটি চর জেগে উঠে। নদীর এই বিশাল চরের দিকে শকুনীর লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে প্রভাবশালী মহল
দৃষ্টি পড়ে স্থানীয় প্রভাবশালী একটি মহলের। হিলড়া গ্রামের জাতীয় পার্টির নুরু স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা আজাদ ও বিএনপি নেতা ইব্রাহিম এই তিনজন মিলে প্রভাবশালী একটি চক্র গড়ে উঠে। আর এ চক্রের মুল হোতা হলো মির্জাপুরের বালু খেকো নামে পরিচিত কবির হোসেন। তারা বৈলানপুর. হিলড়া ও বকরির ফারাম এলাকায় চারটি বেকু মেশিন বসিয়ে নদীর মাটি কেটে তা বিক্রি শুরু করে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, বর্তমানে বুড়িগঙ্গা নদী উদ্ধার প্রকল্পের আওতায় লৌহজং নদীর ড্রেজিং কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বঙ্গ ড্রের্জি লিমিটেড নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজ বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। কাজের সাব ঠিকাদার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন কবির নামের মির্জাপুরের এক বালু ব্যবসায়ী ও মির্জাপুরের বালু খেকো নামে পরিচিত কবিরের মাধ্যমে প্রশাসনকে ম্যানেজ করা হয়। বিনিময়ে মোট লাভের ৪০ ভাগ টাকা দেয়া হচ্ছে কবির গংদের। এদিকে জাতীয় পার্টির নুরু নামের কেন্দ্রিয় এক নেতা পাচ্ছেন ট্রাক প্রতি ৮০ টাকা। বাকি টাকা ভাগ করে নিচ্ছেন স্থানীয় বিএনপি ও আওয়ামী লীগের দুই নেতা।

ড্রেজিং কাজকে সামনে রেখে এসব বালু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেডের মাধ্যমে ফতেপুর ইউনিয়নের হিলড়া, বৈলানপুর ও বকরির ফারাম এলাকায় গত বছরও বাংলা ড্রেজার বসিয়ে কোটি কোটি টাকার বালু বিক্রি করে বলে অভিযোগ উঠে। এবছরও বেকু মেশিন দিয়ে মাটি কেটে বিক্রি শুরু করে। প্রতিদিন চার শতাধিক ১২ চাকা ও ৬ চাকার ট্রাক দিয়ে মাটি বিক্রি করছে তারা। প্রতি ট্রাক মাটি ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা আর ছোট ট্রাক প্রতি বিক্রি করা হচ্ছে ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকায়। আর এ টাকা ভাগ বাটোয়ারা করে নিচ্ছে সিন্ডেকেডের সদস্যরা।

এ ব্যপারে অভিযুক্তদের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে।

তবে মির্জাপুরের সহকারী কমিশনার ( ভুমি) বলেন, আমরা ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান চালিয়ে ৫০ হাজার জরিমানা আদায় করেছি। অবৈধ বালু ব্যবসায়ীদের ছাড় দেয়া হবেনা বলেও জানান তিনি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840