সংবাদ শিরোনাম:
মধুপুরে বাসে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের দায়ে জরিমানা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে মাভাবিপ্রবি পরিবারের শ্রদ্ধা নিবেদন টাঙ্গাইলে আওয়ামীলীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী উদযাপিত বাসাইলে বজ্রাঘাতে কৃষকের মৃত্যু অচিরেই দেখা যাবে বিএনপি খণ্ডবিখণ্ড হয়ে পড়েছে: সাবেক কৃষিমন্ত্রী টাঙ্গাইলে প্রাইভেটকার-মাহিন্দ্রার সংঘর্ষে নিহত ২ স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে শিক্ষার পাশাপাশি খেলাধুলার বিকল্প নেই: শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী টাঙ্গাইলে ২হাজার ৮২টি ঈদুল আজহার জামাতের মাঠ প্রস্তুত টাঙ্গাইলে গরুর হাটের নিরাপত্তা ও মহাসড়কের যানজট নিরসনে কাজ করছে RAB টাঙ্গাইলে ১০৮ বোতল বিদেশী মদসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক
বনের ‘গাছ গিলে’ খাচ্ছে অবৈধ করাতকল

বনের ‘গাছ গিলে’ খাচ্ছে অবৈধ করাতকল

প্রতিদিন প্রতিবেদকঃ টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার বনের ভিতরে লাইসেন্স ছাড়াই বন কর্মকর্তাদের অনুমতি বিহীন চলছে ১২১ করাত কল এবং বনের কোল ঘেষে এক থেকে দেড় কিঃ মিঃ মধ্যে গড়ে উঠেছে আরও ৬২ করাতকল ও পৌর এলাকায় লাইসেন্স নিয়ে চলছে আরও ২৪ করাতকল। এইসব অবৈধ করাতকলে বৈধ গাছ ছাড়াও প্রতিদিনই বনের গাছ চিড়াই করে গোপনে কাঠ বাইরে পাচার করায় বনাঞ্চল ছাড়াও সংরক্ষিত বন দিন দিন উজাড় হয়ে যাচ্ছে।

জানা যায়, ঘাটাইল উপজেলার ধলাপাড়া রেঞ্জের আওতাধীন ৮৮.৪৫ বর্গ কিঃ মিঃ বনাঞ্চলের মধ্যে বটতলী, ঝড়কা, চৌড়াসা, দেওপাড়া, ধলাপাড়া ও সাগরদিঘী সহ ৬টি বিটের ৪৯টি মৌজায় বনভূমি ও সংরক্ষিত বনভূমির পরিমাণ ২৯১০৬.৭৬ একর। এই বিশাল বনভূমিতে রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির আকাশমনি, ইউকালেক্টার ও সেগুন সহ গজারির শালবন। এই শালবনের ভিতরে বিদ্যুৎ ছাড়াই ডিজেল মেশিন দিয়ে চলছে ১২১ টি করাতকল। একমাত্র এসব অবৈধ করাতকলের কারণে প্রতিবছর সরকারের কোটি কোটি টাকার বাগান ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। তার পরেও এসব করাতকলের বিরুদ্ধে কার্যকরী অভিযান না থাকায় অনেক সংরক্ষিত বাগান বিরান ভূমিতে পরিণত হয়েছে। জানা যায় বনবিভাগের বিধানে বনাঞ্চলের ১০ কি: মি: এলাকার মধ্যে করাতকল স্থাপন করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। তার পরেও বনকর্মকর্তাদের এককালিন মোটা অংকের টাকা সেলামী দিয়ে মিল মালিকরা এসব মিল স্থাপন করছে।

জানা যায়, বনের ভিতরে এইসব অবৈধ করাতকলের ৯০ ভাগ মালিক কাঠ ব্যবসায়ী। কাঠ চোরদের সাথে মিল মালিকদের রয়েছে মহরম দহরম সর্ম্পক। যারা সর্বদা বনের গাছ চুরি করে তাদের মধ্যেও অনেকে সংঘবদ্ধ হয়ে করাতকল স্থাপন করে বনের গাছ নিধন করে যাচ্ছে।

বনের এলাকা ঘুরে দেখা যায়- মাকড়াই, ধলাপাড়া, নলমা, দেওজানা, ছনখোলা, চাপড়ি বাজার, পেচারআটা, শালিয়াবহ, গারোবাজার, লক্ষিন্দর সাগরদিঘী, জোড়দিঘী, দেওপাড়া, শিবেরপাড়া সহ আরও বিভিন্ন স্থানে বনের ভিতরে ডিজেল মেশিন দিয়ে গড়ে উঠেছে অবৈধ করাতকল। সেই সাথে বনের কোল ঘেষে আমতলা, দেউলাবাড়ী, পাকুটিয়া, পোড়াবাড়ী, ঝড়কা, বানিয়াপাড়া, মাইধারচালা, দেলুটিয়া ও অন্যান্য স্থানে লাইসেন্স ছাড়া ঘুষ দিয়ে চলছে অবৈধ করাত মিল ।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রেঞ্জ অফিসার ও বিট অফিসারের নাকের ডগায় মিল মালিকরা দিনরাত চোরাই গাছ চিড়াই করছে। গত ১৮ জুন সাগরদিঘী বিটের আওতাধীন রফিকের করাত মিলে গজারী গাছ ছাড়াও রোডস্ এন্ড হাইওয়ের (সিএনবি) রাস্তার বিশাল আকারের আকাশমনি গাছ পাওয়া যায়। এ বিষয় ওই মিল মালিক রফিক জানায় রাস্তার গাছ আমার মিল বেপারীরা এনেছে, আমার শুধু গজারী গাছ। পরে গাছের ছবি তুলতেই এলাকার চিহ্নিত বনখেকু পার্শ্ববর্তী অবৈধ করাতকলের মালিক ফজলুল হক সাংবাদিকদের সাথে খারাপ আচরণ করে কাজে বাধা দেয়।

অনুসন্ধানে জানা যায়, বনের ভিতর এইসব অবৈধ করাত কলের ৯০ ভাগ মালিক কাঠ ব্যবসায়ী। কাঠ চোরদের সাথে মিল মালিকদের রয়েছে দহরম মহরম সর্ম্পক। যারা সর্বদা বনের গাছ চুরি করে তাদের মধ্যেও অনেকে সংঘবদ্ধ হয়ে করাতকল স্থাপন করে বনের গাছ নিধন করে যাচ্ছে। এসবের পরও সংশ্লিষ্ট রেঞ্জ কর্মকর্তা, বিট কর্মকর্তা ও ফরেষ্ট গার্ডদের প্রত্যক্ষ সহযোগীতায় বছরের পর বছর জুড়ে এসব অবৈধ মিল চালু রয়েছে। যার বিরুদ্ধে কার্যকরী পদক্ষেপ নিচ্ছে না বন বিভাগ।

এসব করাত কলের বিষয়ে পৌর করাতকল মালিক সমিতির সভাপতি ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম জানান, ঘাটাইল উপজেলায় মোট ২০৩টি করাত কল রয়েছে। তার মধ্যে পৌর এলাকায় ২৪টি বাদে বাকী সবকটি অবৈধভাবে গড়ে উঠায় একদিকে ধ্বংস হচ্ছে বন, অপরদিকে সরকার হারাচ্ছে তার রাজস্ব। তাই অবৈধ করাতকল উচ্ছেদের জন্য জোর দাবী করেন তিনি।
বনের ভিতরে অবৈধ করাত কল কিভাবে চলে জানতে চাইলে সাগরদিঘী বিটকর্মকর্তা আসাদুজ্জামান বলেন, করাতকল বন্ধ করতে অভিযান অব্যাহত আছে। আমি টাঙ্গাইলে মিটিংয়ে আছি এ বিষয়ে পরে কথা বলব।

উপজেলা বন ও পরিবেশ রক্ষা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম লেবু বলেন, আমি মাসিক আইন শৃংখলা মিটিং এ করাতকল উচ্ছেদের জন্য বার বার বলে আসছি। বলার পরে ২/১ টা করাত কল বন্ধ করে পরবর্তীতে তারা অন্যান্য করাতকল মালিকদের সাথে যোগাযোগ করে পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসে। তাই আমি বন উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে অনুরোধ করব তারা যেন করাত কল বন্ধ করতে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুনিয়া চৌধুরী জানান, বনের ভিতরে স্থাপিত অবৈধ করাতকল উচ্ছেদের প্রক্রিয়া সবসময় চলমান। অভিযোগ পেলে দ্রুত অভিযান পরিচালনা করা হবে। বনের ভিতরে স্থাপিত অবৈধ করাত কলের বিষয়ে টাঙ্গাইল বন বিভাগীয় বনকর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, সামাজিক বনায়নে সাথী ফসল আমরা দিয়ে থাকি, তবে বনের সংরক্ষিত এলাকায় করাত কলের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে এবং আগামীতে আরও জোরদার করা হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840