সংবাদ শিরোনাম:
ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে সকালে যানজট বিকেলে স্বাভাবিক ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের এলেঙ্গা থেকে সেতু পূর্ব পাড় পর্যন্ত বেড়েছে যানবাহনের চাপ, চলছে ধীর গতিতে সখীপুরে জেলা প্রশাসকের অর্থায়নে আশ্রয়ণ প্রকল্পে বৈদ্যতিক পাখা বিতরণ মধুপুরে মাদক দ্রব্যের অপব্যবহার রোধে কর্মশালা মেয়াদোত্তীর্ণ ভ্যাকসিনে ১৪০০ হাঁসের মৃত্যু, অভিযোগ খামারীর ইয়াবাসহ মাদক কারবারিকে আটক করেছে র‌্যাব প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে আনন্দ শোভাযাত্রা গোপালপুরে বিদ্যুৎপৃষ্টে যুবক নিহত গাঁজা ও প্রাইভেটকারসহ তিন মাদক কারবারিকে আটক করেছে র‌্যাব স্ত্রীকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন কারাদন্ড
বাসাইলে জাল দলিলে জায়গা দখল, বাদীকে প্রাণনাশের হুমকি

বাসাইলে জাল দলিলে জায়গা দখল, বাদীকে প্রাণনাশের হুমকি

প্রতিদিন প্রতিবেদক : জাল দলিল তৈরি করে ও পেশী শক্তি খাটিয়ে একটি নিরীহ পরিবারের জায়গা বেদখল করেছে টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার কাশিল ইউনিয়নের পিচুরী গ্রামের মৃত নওরেশ আলী মিয়ার ছেলে পলান মিয়া (৪৫) ও তার সহযোগীরা। এ বিষয়ে পৈত্রিক সম্পতি ফিরে পেতে মো: সোনা মিয়া বাদী হয়ে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বাসাইল আমলী আদালতে একটি মামলা দায়ের করলেও ভয়ভীতির মধ্যে দিন কাটছে তাদের। বিবাদীপক্ষ মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে চাপ দেওয়ার পাশাপাশি প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গছে।

মামলার বিবরনে জানা যায়, বাসাইল উপজেলার স্থলবল্লা মৌজার এস এ ২৩৭নং খতিয়ানে সুকুমার নিয়োগী’র চেলে সুভাষ কুমার নিয়োগীর নাম লিপিত হয়। হাল ৩৮৪নং খতিয়ানে নালিশী ভূমি সুভাষ কুমার নিয়োগী নামে যথারীতি শুদ্ধবাবে লিপিত হয় এবং নালিশী দাগের মধ্যে হাল ৪০৪নং দাগে ১দশমিক ০৪ শতাংশ, ৮৮০ নং দাগে ৮২ শতাংশ, ১০৬৩ নং দাগে ১ দশমিক ২৫০০ শতাংশ মোট ৩ দশমিক ১১০০ শতাংশ সুভাষ কুমার নিয়োগী পৈত্রিক ওয়ারিশ সূত্রে প্রাপ্ত হইয়া বর্গাদান মো: সুলতান মিয়া, পিতা মৃত আ: হালিম মিয়ার মাধ্যমে দখল পরিচালনা করে আসছিলো। পরে বিবাদী পলান মিয়া ও তার সহযোগীতরা একে অপরের সহযোগিতায় সুভাষ কুমার নিয়োগীর স্বাক্ষর জাল করে একটি ভূয়া দলিল তৈরি করে এবং ঘটনার ১ম তারিখ ১৯/০২/১৯৬৮ খ্রী দেখিয়ে পাকুল্যা সাব রেজিস্ট্রি অফিস বিগত মুক্তিযুদ্ধে পুড়ে যাওয়ার সুযোগে কোন রেকর্ড না থাকার ফলে বিবাদী ১৮৩নং একটি জাল দলিল তৈরি করে ২০১৪ সালের ৮ জুলাই তারিখে ১০৬৩নং দাগের ১দশমিক ২৫ শতাংশ জায়গা বেদখল দেয়। এবং সেখানে একটি পানির সেচ পাম্প (স্যালো মেশিন) স্থাপন করে। এসময় সুভাষ কুমার নিয়োগী বিবাদীকে বাধা প্রদান করে জমা খারিজ বাতির করার জন্য একটি মিস কেস দায়ের করে। পরে জমা বিভাগ বাতিলের মামলার সহকারী কমিশনার (ভুমি) জাল দলিল বিষয়ে জেলা রেজিস্ট্রারের কাছে প্রতিবেদক চায় এবং এস এ রেকর্ড পর্যালোচনা করে ২০১৪ সালের ১৫ জুলাই বিবাদী পক্ষের জাল দলিল বাতিল করে দেয়। সেই সাথে সুভাষ কুমার নিয়োগীর নামে যথারীতি জমা বিভাগটি প্রদান করে। অপরদিকে সহকারী কমিশনার (ভূমি) বাসাইল আদালতে জাল দলিল ব্যবহার করার অপরাধে দ: বি: ৪৬৭, ৪৬৮, ৪৭১ ও ৪২০ ধারায় বিবাদীর বিরুদ্ধে চার্জশীট প্রদান করে। পরবর্তীতে মামলাটি বিচারের জন্য টাঙ্গাইল চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বিচারের জন্য বদলী হলে এই মামলার বাদী সুভাষ কুমার নিয়োগী ততদিনে মারা যায়। পরে ২০১৯ সালের ১০ মার্চ মামলাটি ফৌ: কা: বি: ২৪৯ ধারায় স্থগিত অন্তে আসামীদেরকে রিলিজ প্রদান করে। ফলে বিবাদীরা তাদের জাল দলিল পুনরায় ব্যবহার করে বর্তমান জায়গার মালিক সোনা মিয়াকে বেদখল করার চেষ্ঠা করে। এ বিষয়ে টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার কাশিল ইউনিয়নের সায়ের গ্রামের মো: সুলতান মিয়ার ছেলে মো: সোনা মিয়া একটি ফ্রেশ মামলা করে।

মামলার বাদী মো: সোনা মিয়া বলেন, ২০১৩ সালে প্রথম পলান মিয়া ও তার সহয়োগিরা মিলে সুভাষ কুমার নিয়োগীর জায়গা বেদখল দেয়। পরে এ নিয়ে এলাকায় বিচার-শালিস করেও কোন লাভ পায় না সুভাষ। পরে সুভাষ এ বিষয়ে একটি মামলা করে। মামলায় সুভাষ তার জায়গা ফিরে পায়। পরে ৩১১ শতাংশ জায়গার মধ্যে আমাদের কাছে ১৫৫ শতাংশ জায়গা বিক্রি করে। আর আমার বাবা মো: সুলতান মিয়া তা ক্রয় করেন। সেই সূত্রে আমার পৈত্রিক সম্পতি এই ১৫৫ শতাংশ জায়গা। কিন্তু পরে সুভাষ মারা যাওয়ার পর বিবাদীরা আবার আমাদের এই জায়গা বেদখল করে। পরে আমি বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বাসাইল আমলী আদালতে একটি মামলা দায়ের করি। এরপর থেকে তারা আমার এবং আমার পরিবারের সদস্যদের বিভিন্ন সময়ে হুমকি প্রদান করে আসছে। এ নিয়ে ইতিমধ্যে পিবিআই একটি প্রতিবেদন দাখিল করেছে। সেখানে পলান মিয়া কোন বৈধ কাগজ পত্র দেখাতে পারেনি এবং এই জায়গার মালিক তারা না মর্মে একটি প্রতিবেদন দিয়েছে পিবিআই। এখন সব কিছু আমাদের পক্ষে চলে আসছে বলে বিবাদী ও তার পক্ষের লোকজন আমাকের প্রাননাশের হুমকি দিয়ে বেড়াচ্ছে।

এ বিষয়ে মামলার বিবাদী পলান মিয়া বলেন, সোনা মিয়া আমাদের নামে যে মামরা করছে তা টিক না। সে মিথ্যা একটি মামলা দায়ের করেছে। আমাদের সাথে সুভাষ কুমার নিয়োগীর একটি মামলা হয়েছিলো। যেটায় আমরা জিতেছি। কিন্তু পরে সোনা মিয়া আমাদের নামে কোটে আরেকটি মামলা করে। পিবিআই যে রিপোর্ট দিয়েছে তা ঠিক না। তবে কোট আমাদের যে রায় দিবে আমরা তা মেনে নিব। আর সোনা মিয়াকে আমরা কেউ হুমকি দিচ্ছি না। এটা মিথ্যা কথা বলছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840