সংবাদ শিরোনাম:
বাসাইলে পানিতে ডুবে স্কুল ছাত্রীর মৃত্যু কালিহাতীতে বেগম খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ধনবাড়ীতে সিএনজি’র দখলে সড়ক, জনদুর্ভোগ চরমে টাঙ্গাইলে ২৮ লাখ টাকার ক্রিস্টাল ম্যাথ ও ইয়াবাসহ দুই মাদক কারবারিকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ সখীপুরে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ ধর্মীয় নেতাদের করণীয় শীর্ষক আলোচনা ত্রাণ নিয়ে সিলেট যাচ্ছেন ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা টাঙ্গাইলে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকদের মানববন্ধন ভুয়া চিকিৎসক আটক, তিন মাসের কারাদন্ড টাঙ্গাইলে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি, পানিবন্দি লাখো মানুষ মাভাবিপ্রবিতে ‘ক্রাইম, ভিক্টিম্স এবং জাস্টিস’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত
বাসাইলে দুই বছরেই হেলে পড়লো ৪০ লাখ টাকার কালভার্ট

বাসাইলে দুই বছরেই হেলে পড়লো ৪০ লাখ টাকার কালভার্ট

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলের বাসাইলে ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত একটি কালভার্ট দুই বছরের মধ্যেই হেলে পড়েছে। কালভার্ট হেলে পড়লেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি এলজিইডি কর্তৃপক্ষ।

উল্টো ঠিকাদারের বিল পরিশোধ করে একইস্থানে নতুন আরেকটি কালভার্ট তৈরির প্রস্তাবনা পাঠিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কাঞ্চনপুর পশ্চিমপাড়া এলাকায়।

জানা যায়, ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে কাঞ্চনপুর-নাটিয়াপাড়া ও হালুয়াপাড়া গ্রোথ সেন্টার থেকে কাজিরাপাড়া সড়কের পশ্চিমপাড়া এলাকায় এলজিইডির তত্ত্বাবধায়নে ১৩.১ মিটার দৈর্ঘ ও ৫.৫ মিটার প্রস্থ কালভার্টটি নির্মাণ করে মেসার্স এসকে টিম্বার নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

কালভার্টটির ব্যয় ধরা হয় প্রায় ৪০ লাখ টাকা। ২০১৮ সালের ১০ এপ্রিল কাজ শুরু হয়ে শেষ হয় ওই বছরের ১৬ ডিসেম্বর। কাজের শুরু থেকেই নিম্নমানের সাগ্রমী দিয়ে নির্মাণের অভিযোগ তুলেছিলেন স্থানীয়রা। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কালভার্টটি নির্মাণ করায় দুই বছর যেতে
না যেতেই গত বর্ষায় হেলে পড়েছে। বর্তমানে কালভার্টটি পরিত্যক্ত।

সম্প্রতি কালভার্টটি চলাচলের উপযোগী করার জন্য শিকল টেনে ও নানা দেশীয় পদ্ধতি ব্যবহার করেও সোজা করতে ব্যর্থ হয়েছে স্থানীয়রা। কালভার্টটি হেলে পড়ায় আগামী বর্ষায় ওই অঞ্চলের কয়েক লাখ মানুষকে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হবে বলে স্থানীয়রা জানান।

এদিকে একই সময়ে কালভার্টটির সঙ্গে ১৮০ মিটার পাকা সড়ক সংযুক্ত করে ৫৩ লাখ টাকা ব্যয়ে কাজটি করা হয়। এরই মধ্যেই সড়কটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ায় ৬০ লাখ টাকা ব্যয়ে আবার মেরামতের একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে এলজিইডি কর্তৃপক্ষ।

সরেজমিনে কথা হয় কাঞ্চনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মামুন অর রশিদ খানের সঙ্গে। তিনি বলেন, এখানে একটি ব্রিজের খুবই প্রয়োজন ছিল। কিন্তু কর্তৃপক্ষ কালভার্ট নির্মাণ করে। কালভার্ট নির্মাণ করার কারণে সেখানে নৌকা চলাচলও বন্ধ হয়ে যায়। কালভার্টটি গত বর্ষায় হেলে পড়েছে। বর্তমানে কালভার্টটি পরিত্যক্ত। এ অবস্থায় শিকল টেনে কালভার্টটি সোজা করার জন্য চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু তাতেও কোনো কাজ হয়নি। এই এলাকায় কালভার্টের পরিবর্তে বড় একটি ব্রিজ নির্মাণ হলে ভালো হত। বর্ষায় নৌকাও চলাচল করতে পারতো।

এ প্রসঙ্গে জানতে মেসার্স এসকে টিম্বার নামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার সুনিল বসাকের মোবাইল ফোনে বারবার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840