বাসাইলে ৩০ হাজার দরিদ্র মানুষের পেটে লাথি মারার ষড়যন্ত্র করছেন কাজী অলিদ

বাসাইলে ৩০ হাজার দরিদ্র মানুষের পেটে লাথি মারার ষড়যন্ত্র করছেন কাজী অলিদ

প্রতিদিন প্রতিবেদক:   টাঙ্গাইলের বাসাইলের অন্তত ৩০ হাজার দরিদ্র মানুষের পেটে লাথি মারার জন্যে ষড়যন্ত্র করছেন বাসাইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী অলিদ ইসলাম। তিনি নিজের স্বার্থ হাসিলের জন্যে বাসাইলের সকল জনগনের বিরুদ্ধে যুদ্ধে নেমেছেন। একই সাথে কাজী অলিদ বাসাইলের উন্নয়নের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বাঁধাগ্রস্থ করছেন।
বৃহস্পতিবার দুপুরে বাসাইলের কাশিল এলাকায় সাংবাদিক সম্মেলনে এসব অভিযোগ এনেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও চলমান চায়না প্রজেক্টের প্রকল্প পরিচালক জহির আহমেদ জমাদার পিন্টু। সংবাদ সম্মেলনে অলিদের বিরুদ্ধে চাঁদা দাবীর অভিযোগও আনা হয়।
বাসাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সিনিয়র কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ও চায়না প্রজেক্টের প্রকল্প কর্মকর্তা জহির আহমেদ জমাদার পিন্টু অভিযোগ করে বলেন, টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার কাশিল ইউনিয়নে বটতলা এলাকায় প্রায় তিন হাজার শতাংশ জমির উপর চায়না মালিকানায় একটি ফিড কারখানার কাজ শুরু হয়েছে। কারখানাটি সম্পন্ন হলে অন্তত পাঁচ হাজার শ্রমিকের কমসর্ংস্থান হবে। এই পাঁচ হাজার পরিবারের সদস্য মিলে অন্তত ৩০ হাজার মানুষের অন্নের যোগান হবে কারখানায় কাজ করে।
চায়না প্রজেক্টের বিশাল এই কারখানার কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। ইতিমধ্যে মাটি ভরাটের কাজ শেষ হয়েছে। এখন চলছে প্রাচীর নির্মানের কাজ। এই শিল্প প্রতিষ্ঠানের উৎপাদন শুরু হলে কালিশ তথা বাসাইলের ব্যপক উন্নয়ন ঘটবে। বেকার সংস্থানের পাশাপাশি দোকান-পাট ও ব্যবসা বানিজ্যের বিপুল সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে এই কারখানাকে ঘিরে। সমগ্র বাসাইল উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের আশা আকাংখার প্রতীক হয়ে উঠেছে এই চায়না প্রজেক্ট। এই প্রজেক্ট সফল করতে স্থানীয় সংসদ সদস্য,ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানসহ সকল শ্রেনীপেশার মানুষ নানাভাবে সহযোগীতার হাত বাড়িতে দিয়েছে। বিশেষ করে আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নকে গতিশীল রাখতে বাসাইল তথা কাশিলের কৃতি সন্তান মেসার্স বাদল এন্টারপ্রাইজের সত্বাধিকারী মোঃ বাদল মিয়া তার সর্বস্ব শ্রম দিয়ে চায়না প্রকেক্টকে সফল করার জন্যে কাজ করে যাচ্ছেন। এলাকার বেকার যুবকরা যাতে ভ্রান্ত পথে না যায় সে কারনে বাদল মিয়া অর্থ ব্যয় করে নানা উদ্যোগ নিয়ে যুবসমাজকে সংগঠিত করার চেষ্টা করছেন।
অথচ বাসাইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী অলিদ ইসলাম একজন জনপ্রতিনিধি হওয়া সত্বেও সরাসরি জনগনের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। চায়না প্রজেক্টের কাজ শুরু হওয়ার পর থেকেই তিনি নানাভাবে প্রতিবন্ধতা ও ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নিয়েছেন। সাধারন মানুষকে বিভ্রান্ত করে প্রতিনিয়তই কাজি অলিদ কারখানাটি যাতে প্রতিষ্ঠিত না তার জন্যে অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। বিভিন্ন ভুঁইফোর অনলাইল পত্রিকা ও ঘনিষ্ট লোকজনদের দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চায়না প্রজেক্টের বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়ে কাজি অলিদ প্রকল্পটি ধ্বংস করার পায়তারা করছেন। প্রজেক্টের কাজ শুরুর পর থেকেই মোটা অংকের চাঁদা দাবি করে আসছিল কাজি অলিদ। ইতিমধ্যে বিভিন্ন অজুহাতে কয়েক লাখ টাকা নেন তিনি। এই চাঁদার জন্যেই তিনি এজক্টের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন বলে দাবি করা হয় সাংবাদিক সম্মেলনে।
সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযাগ করা হয়, কাশিল ইউনিয়নের নাকাছিম এলকায় আরেকটি প্রকল্প শুরু হয়েছে। লেকভিউ নামের ওই প্রকল্পেও প্রচুর সংখ্যক বেকার যুবকের কর্মসংস্থান হবে। সম্পুর্ন ব্যাক্তিগত জমির উপর এই লেকভিউ প্রতিষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এলাকার জনগন স্বতস্ফূর্তভাবে এই প্রজেক্টের জন্যে জমি বিক্রি করছেন। বর্তমান বাজারদরের চেয়ে অনেক বেশী মুল্যে জমি বিক্রি করতে পারছেন তারা। এতে একদিকে জমির মালিকরা যেমন খুশী তেমনি প্রকল্পের জন্যে জমি দিতে পেরে নিজেদের ভাগ্যবান বলেও মনে করছেন জমি বিক্রেতারা। লেকভিউ এর জন্যে কেনা জমিতে কোনদিন তিন ফসল হয়নি। এক ফসলের এই জমির ফসল প্রতিবছরই বন্যার পানিতে যেত। ফলে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে আসছে যুগের পর যুগ ধরে।
বাসাইল উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী অলিদ এই লেকভিউ যাতে সফল হতে না পারে তার জন্যেও উঠেপড়ে লেগেছেন। নানাভাবে সাধারন মানুষকে বিভ্রান্তি করে চলেছেন। অতি সম্প্রতি কাজী অলিদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিথ্যা অপপ্রচার চালিয়ে স্থানীয় প্রশাসন ও সাধারন মানুষকে বিভ্রান্তি করার চেষ্টা করেছেন। যদিও তার এই অপপ্রচারে কেউ সারা দেয়নি। একজন জনপ্রতিনিধি হয়েও এভাবে জনগনের বিপক্ষে গিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নকে বাঁধাগ্রস্থ করতে কেন কাজী অলিদ মাঠে নেমেছেন তা নিয়ে জনগনের মাঝে প্রশ্ন উঠেছে। বাসাইলের সকল জনগনকে সাথে নিয়ে তার এই উন্নয়ন বিরোধী কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে বলেও হুশিয়ারী দেয়া হয় সাংবাদিক সম্মেলনে। এ সময় কাশিল ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনগন ছাড়াও বাসাইল বিভিন্ন এলাকার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।
এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে বাসাইল উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী অলিদ সাংবাদিকদের জানান, আমি কোন শিল্পের বিরুদ্ধে নই। আমি শুধু তিন ফসলী জমি থেকে মাটি কাটার প্রতিবাদ করেছি। আমি কারো নিকট কোন প্রকার চাঁদা দাবী করিনি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840