বিদেশী শাড়ীর চাহিদায় বিপাকে টাঙ্গাইল তাঁতী পল্লী।।আসছে ঋন সুবিধা

বিদেশী শাড়ীর চাহিদায় বিপাকে টাঙ্গাইল তাঁতী পল্লী।।আসছে ঋন সুবিধা

প্রতিদিন প্রতিবেদক : শহর-বন্দর থেকে শুরু করে প্রতিটি নামীদামী মার্কেট-কমপ্লেক্সে বিদেশী শাড়ীর চাহিদা প্রতিয়মান হচ্ছে। আর সে সব শাড়ীর ভীড়ে হারাচ্ছে বসেছে টাঙ্গাইলের ঐতিহ্য তাঁতের শাড়ী। আর বিপাকে পরে অন্য পেশায় জড়িয়ে পরছেন তাঁতীরা।

তাঁতীদের কথা চিন্তা করে সরকার সম্প্রতি একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে তাঁত মালিকরা স্পল্প সুদে ঋন সুবিধা পাবে।

উৎসবের নারীদের পোষাক মানেই শাড়ী। আর সে শাড়ীর অন্যতম আকর্ষণ হচ্ছে টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ী। টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ীর সুনাম দেশের গন্ডি পেরিয়ে দেশের বাইরেও পৌঁছে গেছে।

কিন্ত বর্তমানে বিদেশী শাড়ীর দৌরাত্ব্যে কঠিন সময় পার করছে টাঙ্গাইলের তাঁতীরা।

বিশেষ করে ভারতীয় শাড়ীর বাজারে সহজলভ্যতা ও থ্রি পিসের প্রতি মহিলাদের আগ্রহ টাঙ্গাইল তাঁত শাড়ীর বাজার কিছুটা পড়তির দিকে। ফলে হতাশায় ছায়া পুরো তাঁত শিল্পের সাথে সংশিষ্টদের।

সরেজমিনে সদর উপজেলার ধুলটিয়া, বাজিতপুর, সুরুজ, বার্থা, বামনকুশিয়া, তারটিয়া, ও দেলদুয়ার উপজেলার পাথরাইল, চন্ডি, নলুয়া, দেওজান, নলশোঁধা, বিষ্ণুপুর, মঙ্গলহোড়, কালিহাতী উপজেলার বল্লা-রামপুর গিয়ে ঘুরে দেখা গেল হতাশার চিত্র ঐতিহ্যবাহী তাঁত পল্লীগুলোতে।

উচ্চমুল্য দিয়ে সুতা ক্রয় ও প্রয়োজনীয় উপকরণের দাম বেশি হলেও ভোর থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত শাড়ী উৎপাদন কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন শ্রমিকরা।

সংসারে বাড়তি আয় যোগ করতে কাজ করছেন পরিবারের মহিলারাও।তবে বেঁচাকেনা তেমন না হওয়ায় দুশ্চিন্তা আর হতাশা পিছু ছাড়ছেনা তাঁত মালিকদের।

একদিকে দেশীয় মার্কেট গুলোতে ভারতীয় শাড়ীর অবাধ প্রবেশ, সুতার দাম বৃদ্ধি, পাওয়ার লুম তাঁত মেশিনের দাপট, থ্রি পিস এর প্রতি নারীদের আগ্রহ, সরকারি কোন পদক্ষেপ না থাকা প্রভৃতি কারনেই তাঁত শিল্প তার জৌলুস হারিয়ে ফেলেছে বলে তাঁতীদের অভিমত।

বর্তমানে তাঁত পল্লীতে তৈরি হচ্ছে মনোমুগ্ধকর হাইব্রিড, সুতি ও সিল্ক জামদানি, বালুচুরি, ধানসিঁড়ি, আনারকলি, শফট সিল্ক, রেশম, তশর, কাতান, একতারি, দোতারি, প্রভৃতি টাঙ্গাইল শাড়ী তৈরী হচ্ছে বলে জানিয়েছেন শাড়ী ব্যবসায়ীরা।

সিরাজগঞ্জ জেলার শাহাদাত পুর থেকে টাঙ্গাইলে দেলদুয়ার উপজেলার পাথরাইল ইউনিয়নের চন্ডীতে কাজ করতে আসা তাঁত শ্রমিক শাহীন আলম জানান, আমরা দীর্ঘ দিন ধরে তাঁত শিল্পে কাজ করছি। এখন অনেক তাঁত বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে বর্তমানে আমাদের কর্মসংস্থান কম। তাঁত শাড়ীর দামও কমে গেছে। সরকারের কাছে দাবী, বিদেশী শাড়ী যেন আর না আসে।আমাদের পক্ষে এই শিল্পে কাজ করে জীবন ধারন করাই কষ্টকর হয়ে পড়ছে।

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া ইউনিয়নের ধুলুটিয়া গ্রামের তাঁত মালিক সুরুজ মিঞা জানান, বর্তমানে শাড়ীতে পয়সা কম, তার পরেও ব্যবসাটা ধইরা রাখছি।সুতার দাম আর কর্মচারীর মুজুরিতে মিলে হিসাব করে দেখা যায় শাড়ীর লাভ কম।

একটা শাড়ী তৈরী করতে ২ থেকে ৩ দিন সময় লাগে। একটা শাড়ী তৈরী করতে ২ হাজার থেকে ২২ শো টাকা খরচ হলে আড়াই হাজার টাকা বিক্রি করা যায়। শাড়ী প্রতি লাভ থাকে ২ থেকে ৩ শত টাকা মাত্র।

শাড়ী ব্যবসায়ী মন্টু বসাক জানান, অনেক গরীর তাঁতী আছে তাদের তাঁতীদের তাঁত বন্ধ হয়ে গেছে। ক্ষতি দিয়ে কাপড় বিক্রি করে পুঁজি শেষ করে ফেলেছে।

দেশের বাইরে থেকে যে শাড়ী আসে, তার ট্যাক্স দ্বিগুন করে দিলে টাঙ্গাইল শাড়ীর ঐতিহ্যটা টিকে থাকতে পারে।

সামনে ঈদ আমরা শাড়ী তৈরীতে পুঁজি বিনিয়োগ করতে সাহস পাচ্ছি না। কারন যদি পুঁজি ফেরত না আসে। বাপ-দাদা এই ব্যবসা টিকিয়ে রাখাই কঠিন হয়ে পড়ছে।

টাঙ্গাইল তাঁত বোর্ড বেসিক সেন্টারের লিয়াজোঁ অফিসার মোঃ রবিউল ইসলাম জানান, আমরা জানি টাঙ্গাইল তাঁত শাড়ীর বাজার কিছুটা নিম্ন মূখী। শুধু বিদেশী শাড়ী নয়, মানুষের পোশাক, বিশেষ করে থ্রি পিস ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় শাড়ীর উপর তার প্রভাব পড়েছে।

তবে সরকার এই বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। সম্প্রতি একটি প্রকল্প অনুমোদিত হয়েছে। যার মাধ্যমে তাঁত মালিকদের স্পল্প সুদে ঋন দেয়া যাবে। আশা করি এতে, তাঁত মালিকরা ঘুরে দাঁড়াতে পারবে। এ ছাড়া আমরা বিভিন্ন ধরনের সাহায্য সহযোগিতা দিতে সব সময় প্রস্তুত আছি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840