সংবাদ শিরোনাম:
বীরমুক্তিযোদ্ধা হাবেলের স্বীকৃতি পেতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে পরিবার

বীরমুক্তিযোদ্ধা হাবেলের স্বীকৃতি পেতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে পরিবার

প্রতিদিন প্রতিবেদক: পিতার মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি জন্য সন্তান ও স্বামীর স্বীকৃতির পেতে স্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয় সহ স্থানীয় কমান্ডারের দ্বারে দ্বারে দীর্ঘ ৪৮ বছর যাবৎ ঘুরছেন। মুক্তিযুদ্ধের সকল প্রকার কাগজপত্র ও প্রমাণাদি থাকা সত্বেও দীর্ঘ ৪৮ বছর ভিবিন্ন দ্বারে দ্বারে ঘুরে ভাতা সহ সকল প্রকার সুযোগ সুবিদা থেকে বঞ্চিত টাঙ্গাইল সদর উপজেলার হুগড়া ইউনিয়নের বীরমুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম (হাবেল)-এর পরিবার।

রেজাউল করিম হুগড়া গ্রামের মৃত আজগর আলীর ছেলে। মুক্তিযুদ্ধের পর স্থানীয় সকল কমান্ডারের স্বাক্ষরিত সার্টিফিকেট রয়েছে এই পরিবারের কাছে। দরিদ্র হওয়ায় বীরমুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম (হাবেল) মৃত্যুর পর ইউনিয়ন, সদর ও জেলা কমান্ডাররা তাকে চিনেন না বলে তার পরিবারকে জানান। একজন মুক্তিযোদ্ধার যে সমস্ত কাগজপত্র থাকা কথা সবই রয়েছে তাদের।

কাগজপত্র দেখে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়কে বিষয়টি বিবেচনা করার জন্য সুপারিশ করেছেন টাঙ্গাইল-৫ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো: ছানোয়ার হোসেন। মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম (হাবেল) -এর ছেলে মো: ওমর ফারুক (৩৪) জানান, ২০০৫ সালে তার বাবা মারা যান। এরপর মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয় সহ বিভিন্ন প্রশাসনের দপ্তরে পিতার মুক্তিযুদ্ধের সকল কাগজপত্র সহ আবেদন করেছি।

কয়েক বছর বিভিন্ন দপ্তরে ঘুরাঘুরির পর মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় থেকে বিষয়টি যাচাই বাচাইয়ের জন্য টাঙ্গাইল সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে দায়িত্ব দেয়া হয়। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অফিসে গেলে সেখান থেকে জানানো হয় যে, তার বাবার যাচাই বাচাই হয়নি আবেদনটি “গ” সিরিয়ালে রয়েছে।

এ বিষয়ে তারা, জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের সাথে যোগাযোগ করেছেন। এতে তাদের কোন অগ্রগতি হচ্ছে না। মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম-এর দরিদ্র পরিবার জেলা ও সদর উপজেলা প্রশাসন সহ মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতি আকুল আবেদন জানিয়েছেন অতি দ্রুত মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম (হাবেল) কে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে অন্তভূক্ত করার জন্য।

সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আতিকুল ইসলাম জানান, তাদের আবেদন পেয়েছি। রেজাউল করিম (হাবেল) পরিবারের সাক্ষাতকার নেওয়া হয়েছে। অনলাইনে তাদের আবেদনও রয়েছে। যাচাই-বাচাই প্রক্রিয়াধীন।

উল্লেখ্য, মহান মুক্তিযুদ্ধে ১১ ডিসেম্বর কাদেরীয়া বাহিনীর নেতৃত্বে টাঙ্গাইল হানাদারমুক্ত হয়। টাঙ্গাইল সদর উপজেলার হুগড়া ইউনিয়নের বীরমুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম (হাবেল) ছাত্র জীবনে মুক্তিযুদ্ধে জাপিয়ে পরেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে এস.এস.সি পাস করে চট্রগ্রাম জুটমিলে ডিলম্যান হিসেবে চাকুরীতে যোগদান করেন।

এসময় তার মুক্তিযোদ্ধের সার্টিফিকেট হিসেবে ছিল “স্বরাষ্ট্র মন্ত্রানালয় স্বাধীনতা সংগ্রামের সনদপত্র” এতে স্বরাষ্ট্র সচিব ও আঞ্চলিক অধিনায়কের স্বাক্ষর ও সীল রয়েছে। এছাড়াও “গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার জিলা মুজিব বাহিনী, টাংগাইল” নামেও একটি সার্টিফিকেট রয়েছে।

এতে টাঙ্গাইল জেলা মুজিব বাহিনীর প্রধান আলমগীর খান-এর স্বাক্ষর রয়েছে। পারিবারিক কারনে যুদ্ধের পর বিভিন্ন স্থানে পরিবার নিয়ে চাকুরীতে কর্মব্যস্থ ছিলেন। দীর্ঘ দিন চাকুরীতে থাকার পর ২০০০ সালে কোম্পানী বন্ধ হয়ে যায় তখন তিনি নিজ গ্রামের বাড়ী সদর উপজেলার হুগড়া গ্রামে পরিবার নিয়ে ফিরে এসে বসবাস করতে থাকেন। এরপর ২০০৫ সালে তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পর তার সন্তানরা দেশের মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকায় পিতার নাম অন্তরভূক্ত করার জন্য কাগজপত্র নিয়ে বিভিন্ন স্থানে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840