সংবাদ শিরোনাম:
ভূঞাপুরে ফলদা ইউপি সচিবের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ

ভূঞাপুরে ফলদা ইউপি সচিবের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ

মোঃ আব্দুর রহীম মিঞা, ভূঞাপুর: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ফদলা ইউনিয়ন পরিষদের সচিব সামাউন কবিরের বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই। তার কাছে সব অনিয়মই যেন নিয়মের পরিনত হয়েছে বলে অভিযোগ করেন এলাকাবাসী। ফলদা ইউনিয়ন পরিষদ সচিবের বিরুদ্ধে জন্ম নিবন্ধন ও নাম-বয়স সংশোধনী সনদ প্রদানে নির্ধারিত ফি’র চেয়ে বেশি অর্থ আদায়ের অভিযোগ রয়েছে। সচিবের এ বাণিজ্যে নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তবে ইউপি সচিব বললেন অন্য কথা। তিনি জানান, ফলদা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ সাইদুল ইসলাম তালুকদার দুদু তার দুর্নীতির সহযোগিতা না করায় তিনি আমার নামে এসব মিথ্যা অভিযোগ করাচ্ছেন। এছাড়াও তিনি তার সন্ত্রাসী দ্বারা আমাকে শারিরীক নির্যাতন করেছেন।

জানা যায়, শিশুর জন্ম থেকে ৪৫ দিন পর্যন্ত সরকারি নিয়মানুযায়ী জন্ম নিবন্ধনের কোন ফি নেওয়া হয় না। তবে শিশুর ৫ বছর পর্যন্ত ২৫ টাকা ও ৫ বছরের উপরে সব বয়সীদের ৫০ টাকা ফি নেওয়ার নিয়ম করে দিয়েছে সরকার। তবে সরকারের এই নিয়মকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে উপজেলার ৩নং ফলদা ইউনিয়ন পরিষদ সচিব সামাউন কবির সরকারি বেঁধে দেওয়া টাকার জায়গায় নিজেই নতুন নিয়ম করেছেন বলে জানান এলাকাবাসী। সে নিয়মে প্রতি জন্ম সনদে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা ও জন্ম নিবন্ধনে নাম ভুল হলে সংশোধন বাবদ ৫০০ থেকে ১২০০ টাকা পর্যন্ত ফি আদায় করছেন বলে অভিযোগ স্থানীয় ভুক্তভোগীদের।

জন্ম-নিবন্ধন নিতে আসা কয়েকজন ভুক্তভোগীর সঙ্গে আলাপকালে তারা জানিয়েছেন, জন্মনিবন্ধন আনতে গেলে নানা কাগজপত্রের ভুল ধরেন এবং তাদের কাছ থেকে সরকারি নির্ধারিত টাকার চেয়ে বেশি টাকা দাবি করেন। ধুবলিয়া গ্রামের মোঃ রমিজুল ইসলাম খান অভিযোগ করে বলেন, জন্ম নিবন্ধন করতে সচিব ৫ শত টাকা নিয়েছে। কিন্ত তারপরও আমার ভুল জন্ম নিবন্ধন করে দিয়েছে। তার মত নানা রকম অভিযোগ আনেন মমিনপুর গ্রামের আসমা খাতুন, ফলদা পূর্ব পাড়া গ্রামের জনতা খাতুন ও মোমিনপুর এলাকার ছায়েদ আলী।

গ্রাম পুলিশ মোঃ ছায়েদ আলী জানায়, টাকা না দিলেই কাগজ হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলেন উপজেলায় যোগাযোগ করেন। তবে ইউনিয়ন পরিষদে এ অভিযোগ নতুন নয়। সরকারি নিয়ম উপেক্ষা করে ইউপি সচিব সামাউন কবির জন্ম নিবন্ধন সনদে অতিরিক্ত ফি আদায় করেন বলে অনেকেই অভিযোগ করেছেন। তবে জন্ম নিবন্ধন মানেই ভোগান্তি। এটা দেখারও কেউ নেই বলে জানান স্থানীয়রা।

এলাকাবাসী আরো বলেন, ফলদা ইউনিয়ন পরিষদের সচিব দীর্ঘদিন যাবত ছুটিতে আছেন। ফলে দীর্ঘদিন অফিসে না আসায় চরম ভোগান্তির স্বীকার হচ্ছে সাধারণ জনগন।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, রবিবার ৮ মে সচিব মোঃ সামাউন কবির অফিসে উপস্থিত নেই। তার খোঁজ নিয়ে জানা যায় তার বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ থাকায় তিনি গত ২৬ এপ্রিলের পর থেকে ইউনিয়ন পরিষদে আসেন না। পরে ইউপি সচিবের সাথে যোগাযোগ করা হলে জানা যায় তিনি শারিরীকভাবে নির্যাতনের স্বীকার হয়ে ছুটিতে আসেন। তার নিরাপত্তার অভাবে তিনি অফিসে আসতে পারছেন না।

ইউনিয়ন পরিষদের উদ্দোক্তা আব্দুল খালেক বলেন, সচিব দীর্ঘদিন না আসায় চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে মানুষ। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, টাকা ছাড়া কোন কাজ করেন না তিনি। এছাড়াও ছুটিতে যাওয়া আগে অনলাইন ব্যতীত ৬ থেকে ৭ শত জনের ভূয়া জন্ম নিবন্ধনের কাজ করে গেছেন সচিব সামাউন।

ফলদা ইউনিয়নের ঝনঝনিয়া এলাকার বাসিন্দা জাহিদুল খান বলেন, তিনি নিজে তো আসেন না, যাও সপ্তাহে এক দিন আসেন জন্ম নিবন্ধন ফি নেন ২০০ টাকা। আবার মৃত্যু সনদ- জন্ম সনদ- জন্ম নিবন্ধন মিলে নেন ৪০০ টাকা। তার পর ঘুরতে হয় দিনের দিনের দিন। এই হলো ফলদা ইউনিয়ন পরিষদের অবস্থা।

সচিব মোঃ সামাউন কবির নিয়মিত অফিসের না আসার বিষয় বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তার দুর্নীতির সহযোগিতা না করায় চেয়ারম্যান সাইদুল ইসলাম তালুকদার পরিষদের মেম্বার ও এলাকার সন্ত্রাসী দিয়ে আমাকে শারীরিক নির্যাতন করায় আমার নিরাপত্তার কারনে আমি অফিসে যাওয়া বন্ধ করেছি। আর আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট বিষয়টি অবগত করে ছুটিতে আছি।

ফলদা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ সাইদুল ইসলাম তালুকদার দুদু জানান, সচিবে সঙ্গে আমার কোন বিরোধ নেই। পরিষদে কাজ করতে আসা জনগনের সঙ্গে তার খারাপ আচরন, ভূয়া জন্ম নিবন্ধন, সরকারী নির্ধারিত ফির চাইতে অতিরিক্ত ফি আদায় করাসহ নানা অভিয়োগ রয়েছে সচিবের বিরুদ্ধে। সচিব দীর্ঘদিন অফিসে আসেন না জানাতে চাইলে তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত সচিব ছাড়াই কাজ সারতে হচ্ছে আমাকে। নিয়মিত সচিব অফিস না আসায় এলাকার জনগন চরম ভোগাক্তি স্বীকার হচ্ছে। কাজও সঠিক সময়ে শেষ করা যায় না। কেন আসে না তা আমার জানা নেই। তাকে মারধরের বিষয়ে আমাকে কিছু জানায় নি। তবে বিষয়টি লোকমুখে শুনেছি। আমি তার বিষয়ে পরিষদের মেম্বারদের নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারে সাথে কথা বলে তাকে অবগত করেছি।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাঃ ইসরাত জাহান বলেন, সচিবের উপর হামলার অভিযোগ রয়েছে। সচিব বর্তমানে ছুটিতে আছে বলে জেনেছি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840