ভূঞাপুরে শিয়ালের আক্রমণে একই পরিবারের ৩ জনসহ আহত ১১

ভূঞাপুরে শিয়ালের আক্রমণে একই পরিবারের ৩ জনসহ আহত ১১

প্রতিদিন প্রতিবেদক ভূঞাপুর : ভূঞাপুর উপজেলার বাগবাড়ি গ্রামে একই পরিবারের ৩ জনসহ ১১ জন আহত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৪ই নভেম্বর) সন্ধ্যার দিকে বাগবাড়ি শীলপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।শিয়ালের আক্রমণে আহত ১১ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

এদের মধ্যে ৪ জনের অবস্থা গুরুতর হওয়াতে তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। আহতরা হলো- উপজেলার বাগবাড়ি শীলপাড়া গ্রামের দুই বছরের শিশু বৃষ্টি, রমা রানী(বৃষ্টির মা), গীতা রানী (বৃষ্টির দাদী, একই গ্রামের জয়নব বেগম, লাকি আক্তার, রোজিনা বেগম, কুলসুম, হাবিবুর রহমান, নুরজাহান, মুন্নাফ ও দেলোয়ার হোসেন।

জানা যায়, রমা রানী তার মেয়ে বৃষ্টিকে কোলে নিয়ে তাদের ঘরের বাড়ান্দায় বসেছিলেন।এমন সময় একটি শিয়াল তাদেরকে আক্রমণ করে। রমা রানী ছাড়ানোর অনেক চেষ্টা করে কিন্তু ছাড়াতে পারেনি। পরে রমা রানীর শাশুড়ি গীতা রানী তাদেরকে বাঁচানোর জন্য এগিয়ে গেলে শিয়ালটি তাকেও আক্রমণ করে। এতে সেও গুরুত্বর আহত হয়।

পরে শিয়ালটি পালানোর সময় সামনে যাকে পেয়েছে তাকেই আক্রমণ করে এবং কামড়িয়ে আহত করে।এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান বাবলু মুঠো বলেন, আমার গোবিন্দাসী ইউনিয়নে বাগবাড়ি গ্রামে শিয়ালের আক্রমণে একই পরিবারের তিন সদস্যসহ ১১জন আহত হয়।

এর মধ্যে ৪ জনকে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ভূঞাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত আবাসিক মেডিকেল অফিসার তৌফিক এলাহী মুঠো ফোনে বলেন, শিয়ালে কামড়ের ইনজেকশন হাসপাতালে সরবরাহ নেই।অনেকেই ইনজেকশন বাইরে থেকে এনে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি চলে গেছেন।

ভূঞাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত  আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা.কাজল মুঠো ফোনে বলেন, উপজেলার বাগবাড়ি এলাকায় গীতা রানীর শিশু মেয়ে বৃষ্টি বাড়ির উঠানে খেলাধুলা করছিল।

এ সময় একটি শিয়াল শিশুটিকে খেয়ে ফেলার উদ্দেশ্য এগিয়ে আসে। পরে শিশুটির মা গীতা শিয়াল দেখে এগিয়ে আসলে তার উপর শিয়াল জাপিয়ে পড়ে। এতে সে গুরুত্বর আহত হয়।

পরে শিয়ালটি পালানোর সময় সামনে যাকে পেয়েছে তাকেই কামড়িয়ে আহত করেছে। এতে ১১জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে ৪ জনকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, শিয়াল কামড়ের ইনজেকশন হাসপাতালে সরবরাহ নেই। অনেক বাইরে থেকে তা এনে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি চলে গেছেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840