সংবাদ শিরোনাম:
মেয়ে হত্যার বিচার চাইতে গিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় বাবা-মা

মেয়ে হত্যার বিচার চাইতে গিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় বাবা-মা

প্রতিদিন প্রতিবেদক: টাঙ্গাইলে রূপা আক্তার নামের এক গৃহবধূ হত্যার বিচার চাইতে গিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন তার বাবা-মা। তাদের অভিযোগ, রূপার স্বামী মিঠুন প্রভাবশালী হওয়ায় স্থানীয় নেতাকর্মী ও পুলিশের যোগসাজসে হত্যার ঘটনাটি আত্মহত্যা বলে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে। এ ঘটনায় মামলা করতে গেলে কালিহাতী থানা পুলিশ মামলা গ্রহণ করেনি, উল্টো দুই লাখ টাকা উৎকোচ না দেয়ায় ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন রিপোর্টও আটকে রয়েছে। মেয়ের হত্যার বিচার ও পরিবারের নিরাপত্তার দাবি চেয়ে বুধবার ২৪ আগস্ট দুপুরে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন নিহত রূপার বাবা ছানোয়ার হোসেন। ছানোয়ার হোসেন জেলার বাসাইল উপজেলার কাউলজানী মধ্যপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ছানোয়ার হোসেন জানান, তার মেয়ে রূপার সাথে ৮ প্রায় বছর আগে কালিহাতী উপজেলার তেজপুর গ্রামের মোজাম্মেল তালুকদারের ছেলে মিঠুন তালুকদারের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর মিঠুনকে বিদেশ যাওয়ার জন্য দুই লাখ টাকা দেয়া হয়। মিঠুন এক বছর পর বিদেশ থেকে বাড়ি ফিরে আসেন। এরপর মিঠুন এক পর্যায়ে মাদকাসক্ত হয়ে পড়ে। বিভিন্ন সময় যৌতুক দাবিতে মিঠুন রূপাকে মাঝে মধ্যেই মারধর করত। বিষয়টি কাউকে বললে রূপার মুখ এসিড দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়ার হুমকিও দেয়া হত। এক পর্যায়ে রূপাকে তালাক দিয়ে বাড়ি নিয়ে আসা হয়।

ছানোয়ার হোসেন আরও জানান, তালাকের প্রায় ছয় মাস পর ফুঁসলিয়ে আবার রূপাকে বিয়ে করে মিঠুন। দেড় মাস সংসার করার পর রূপাকে যৌতুকের দাবিতে পুণরায় মারধর শুরু করে। এক পর্যায়ে চলতি বছরের ১৭ মার্চ মিঠুনসহ তার পরিবারের লোকজন রূপাকে মারধর করে। ওইদিন তারা রাতের কোনও এক সময় রূপাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রেখে আত্মহত্যার প্ররোচনা চালায়। পর দিন খবর পেয়ে তারা (রূপার বাবা-মা) রূপার স্বামীর বাড়ি গিয়ে রূপার লাশ উঠানে পড়ে রয়েছে। এসময় রূপার বাম হাতের কব্জির রগ কাটা দেখতে পায় তারা। এ ঘটনায় কালিহাতী থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নেয়নি। পুলিশ ওইদিন ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন রিপোর্টের অপেক্ষা করতে বলেন। পরে আদালতে রূপার স্বামী মিঠুনকে প্রধান আসামী করে মামলা দায়ের করলে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়।

ছানোয়ার হোসেন বলেন, ‘ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনের রিপোর্টের বিষয়ে জানতে কালিহাতী থানার এসআই আল আমিনের কাছে গেলে তিনি দুই লাখ টাকা দাবি করেন। টাকা না দেওয়ায় পাঁচ মাস অতিবাহিত হলে আজও পর্যন্ত ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনের রিপোর্ট পাইনি। এমতাবস্তায় মামলা তুলে নিতে আমাদের বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিচ্ছে মিঠুনের পরিবার। বর্তমানে আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমার মেয়ে হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত করে আসামীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’ ময়নাতদন্তের রিপোর্টের জন্য দুই লাখ টাকা দাবি করার বিষয়ে কালিহাতী থানার এসআই আল আমিন বলেন, ‘তাদের কাছে কোনও প্রকার টাকা চাওয়া হয়নি। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট তাদের দেয়া হয়েছে।’

টাঙ্গাইলের পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) এসআই ফরিদ মিয়া বলেন, ‘দায়িত্ব পাওয়ার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলমান রয়েছে।’

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840