সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের পাঠাগারে বেলা’র বই প্রদান টাঙ্গাইলে সাংবাদিকদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার বিতরণ ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে সকালে যানজট বিকেলে স্বাভাবিক ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের এলেঙ্গা থেকে সেতু পূর্ব পাড় পর্যন্ত বেড়েছে যানবাহনের চাপ, চলছে ধীর গতিতে সখীপুরে জেলা প্রশাসকের অর্থায়নে আশ্রয়ণ প্রকল্পে বৈদ্যতিক পাখা বিতরণ মধুপুরে মাদক দ্রব্যের অপব্যবহার রোধে কর্মশালা মেয়াদোত্তীর্ণ ভ্যাকসিনে ১৪০০ হাঁসের মৃত্যু, অভিযোগ খামারীর ইয়াবাসহ মাদক কারবারিকে আটক করেছে র‌্যাব প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে আনন্দ শোভাযাত্রা গোপালপুরে বিদ্যুৎপৃষ্টে যুবক নিহত
যমুনা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের মহোৎসব

যমুনা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের মহোৎসব

বিশেষ প্রতিবেদক: যমুনা নদীতে জেগে ওঠা চর ও ফসলি জমি কেটে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন আর বিক্রির মহোৎসবে মেতেছে স্থানীয় প্রভাবশালী মহল। অবৈধ এই বালু উত্তোলন বন্ধে উপজেলা প্রশাসন অভিযান পরিচালনা করলেও এদের মধ্যে অন্যতম প্রভাবশালী ‘বালু খোকার’ বালু উত্তোলন ও বিক্রি বন্ধ করতে পারেনি বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। তবে খোকার বিরুদ্ধে ভয়ে মুখ খুলতেও নারাজ তারা।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, এ বালু উত্তোলন নিয়ে বেশি সমালোচনা শুরু হলে প্রশাসন হঠাৎ হঠাৎ লোক দেখানো অভিযান পরিচালনা করে। কিন্তু একদিনের জন্যও এই অবৈধ বালু উত্তোলন ও বিক্রি বন্ধ করতে পারেননি প্রশাসন। তারা আরো জানান, এটি বাদে আশেপাশের সব বালু ঘাট এখন বন্ধ রয়েছে। কিন্তু বালু খোকার অবৈধ বালু উত্তোলনের বিশাল কর্মযজ্ঞ বন্ধ করতে ব্যর্থ প্রশাসন।

সরেজমিনে উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের কুকাদাইর-জিগাতলা এলাকার গিয়ে দেখা যায়, যমুনা নদীর অংশে অবৈধভাবে জেগে উঠা চর কেটে বালু উত্তোলন ও বিক্রি চলছে দেদারসে। এছাড়াও নিষিদ্ধ বাংলা ড্রেজার বসিয়ে বালুর পাহাড় গড়ে তোলা হয়েছে রীতিমত।

নাম প্রকাশ না শর্তে একাধিক ব্যক্তি জানান, অবৈধ বালু ব্যবসায়ী খোকা সরকারি দলের প্রভাবশালী লোক, তার ভাই সরকারি দলের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও গাবসারা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি। এ প্রভাবে এক যুগের বেশি সময় ধরে শীত ও বর্ষা সব মৌসুমে বাংলা ড্রেজার আর মাটিকাটার ভেকু বসিয়ে দিন-রাত হাজার হাজার ট্রাক বালু বিক্রি করে আসছেন তিনি।

স্থানীয়দের অভিযোগ, জেগে ওঠা চর কেটে ফেলায় প্রতি বছরই নদী ভাঙনের শিকার হতে হচ্ছে। নিষিদ্ধ বাংলা ড্রেজার বসিয়ে যত্রতত্র বালু উত্তোলন করায় বর্ষায় নদীর গতিপথ বাধাগ্রস্থ হয়ে ওই এলাকায় প্রবল ভাঙন দেখা দিচ্ছে। এছাড়া বালুবাহী ড্রাম ট্রাকগুলো অতিরিক্ত ওজন নিয়ে চলাচলের ফলে সড়কগুলি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। শুধু তাই নয়, বেপরোয়া ট্রাক চলাচল করায় প্রতিনিয়তই দুর্ঘটনা ঘটছে। এছাড়া ধুলোবালিতে চারপাশ অন্ধকার হয়ে থাকে। গাছ ও ফসলের ক্ষতি হচ্ছে। বাতাসে ওড়া বালু মানুষের চোখ-মুখে গিয়ে ঠান্ডাজনিত রোগসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। স্থানীয়রা একাধিকবার অভিযোগ দিলেও কোন সুফল পাননি ভুক্তভোগিরা।

অবৈধ বালু উত্তোলনের অনুমতি আছে কি না জানতে চাইলে ক্ষিপ্ত হয়ে জাহিদুল ইসলাম খোকা মুঠোফোনে জানান, বালু উত্তোলনের কথা কে আপনাকে বলছে। আমি বেকি জানি। পত্রিকায় চাকরি করেন তাতে কি। পত্রিকায় লেখালেখি করেন, অসুবিধা কি। পারলে আপনি নিউজ করেন। আমি কোন ভয় পাই না। আমার অনুমতি আছে।

অবৈধ বালু উত্তোলকারী খোকার ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইশরাত জাহান বলেন- প্রশাসন কাউকে বালু উত্তোলনের অনুমতি দেয়নি। এরআগে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের অভিযোগে তার ঘাট থেকে ৩ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। এছাড়াও যমুনা নদী থেকে অবৈধভাবে চর ও ফসলি জমি কেটে বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের অভিযান চলমান।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840