যুদ্ধ না করেও বীর মুক্তিযোদ্ধা লতিফ তালুকদার !

যুদ্ধ না করেও বীর মুক্তিযোদ্ধা লতিফ তালুকদার !

মুক্তিযোদ্ধা

বিশেষ প্রতিবেদক : হান স্বাধীনতা যুদ্ধের ৫০ বছর পেরিয়ে গেছে। এখনো মুক্তিযোদ্ধা পরিচয়ে অনেক অমুক্তিযোদ্ধা বিভিন্ন স্থানে মুক্তিযুদ্ধের নাম ভাঙ্গিয়ে ফায়দা লুটে নিচ্ছেন। এসব নামধারী মুক্তিযোদ্ধা যত্রতত্র মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে পরিচয় দিয়ে সাধারন মানুষকে নানাভাবে হয়রানী ও প্রতারনা করে আসছেন। আর এতে একদিকে যেমন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানহানী হচ্ছে অপরদিকে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে তারা বিতর্কিত করছেন। এমনি এক অমুক্তিযোদ্ধার সন্ধান মিলেছে টাঙ্গাইলে। শহরের আকুর টাকুর পাড়ার বাসিন্দা মোঃ আব্দুল লতিফ তালুকদার নামের এই ব্যাক্তি দীর্ঘদিন ধরে মুক্তিযোদ্ধা পরিচয় দিয়ে টাঙ্গাইল দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। মুক্তিযুদ্ধ না করেও তিনি মুক্তিযোদ্ধা সেজেছেন। আর এই পরিচয়ে তিনি আত্মীয়স্বজনসহ বিভিন্ন মানুষকে অকারনে নানাভাবে হয়রানী ও নির্যাতন করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
সম্প্রতি অমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল লতিফ তালুকদার ওরফে মাখনের এক নিকট আত্মীয় তাকে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা আখ্যা দিয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে লিখিত অভিযোগ দেন। লিখিত এ অভিযোগের একটি কপি টাঙ্গাইল প্রতিদিন পত্রিকা কতৃপক্ষের হাতে আসে। যেহেতু বিষয়টি স্পর্শকাতর সে কারনে এ ব্যপারে সটিক তথ্য বের করতে পত্রিকার পক্ষ থেকে একটি টিম গঠন করা হয়।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মুক্তিযোদ্ধাদের কোন তালিকাতেই আব্দুল লতিফ তালুকদারের নাম নেই। মুক্তিযোদ্ধাদের লাল মুক্তিবার্তা, মুক্তিযোদ্ধাদের সমন্বিত তালিকা, মুক্তিযোদ্ধা তথ্য ব্যবস্থাপনা সিস্টেম, মুক্তিযোদ্ধাদের বর্তমান সনদের তালিকা, মুক্তিযোদ্ধাদের স্মার্ট কার্ডের তালিকা,বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সরকারী গেজেট ও মুক্তিযোদ্ধা ভাতার তালিকায় আব্দুল লতিফ তালূকদারের নাম পাওয়া যায়নি। এরপর সাংবাদিকরা মুক্তিযোদ্ধাদের অনলাইনে যে তালিকা রয়েছে সেখানেও অনুসন্ধান করেন। সেখানেও তার নাম পাওয়া যায়নি। কোথাও নাম না পেয়ে সাংবাদিকরা টাঙ্গাইল জেলার সকল মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা সংগ্রহ করেন। এ তালিকাতেও আব্দুল লতিফ তালুকদারের নাম পাওয়া যায়নি।
এদিকে আব্দুল লতিফ তালুকদারকে একজন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা উল্লেখ করে যে ব্যাক্তি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন তাতে দেখা যায়, মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গনে তিনি যুদ্ধ করেছেন এমন কোন ঘটনার প্রমান পাননি তার কোন স্বজন এমনকি এলাকার কোন লোকজন। অথচ মুক্তিযোদ্ধার পরিচয়ে সারা টাঙ্গাইল তিনি দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। তার নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন অনেক নিরীহ মানুষ। ছোটখাটো ঘটনায় তার আত্মীয়স্বজন ও পরিচিতজনেরা মামলাসহ নানা নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তার নির্যাতনের হাত থেকে সহোদর ভাইয়েরাও রেহাই পাচ্ছেননা। বিভিন্নজনের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ করা হয়েছে লিখিত ওই অভিযোগে। মানুষকে অযথা হয়রানী করতে কথায় কথায় মামলা দায়ের করেন এই আব্দুল লতিফ তালুকদার। এ কারনে সে এখন নিকটজনদের কাছে একজন মামলাবাজ হিসেবেও পরিচিত। আর এসব অপকর্মের মুল হাতিয়ার হলো মুক্তিযোদ্ধা পরিচয়। বিভিন্ন লোকের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার নথিপত্র ঘেঁটে দেখা যায়, সেখানে আব্দুল লতিফ তালুকদার নিজেকে একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিচয় দিয়েছেন। মামলার নথিপত্রে বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিচয় দেয়ার কারনে পুলিশ প্রশাসন থেকে শুরু করে বিচারাঙ্গনে অতিরিক্ত সুবিধা পাবার আশা করেন তিনি। আর এই অতিরিক্ত সুবিধা পাবার উদ্দেশ্যে সুকৌশলে তিনি নিজেকে বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।
মুক্তিযোদ্ধা পরিচয়ধারী আব্দুল লতিফ তালুকদার সম্পর্কে জানতে প্রতিবেদকের কথা হয় ৭১-এর মুক্তিযুদ্ধে রণাঙ্গনের বেশ কয়েকজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সাথে। তারা বলেন, লতিফ তালূকদার কোনদিন মুক্তিযুদ্ধ করেননি। কোথাও তার নামও নেই। এ ব্যপারে মুক্তিযুদ্ধে বিশাল কাদেরিয়া বাহিনীর গোয়েন্দা ইউনিটের অন্যতম প্রধান বীর মুক্তিযোদ্ধা বছির উদ্দিন (ব্যারিষ্টার বাচ্চু) প্রতিবেদককে জানান, আমি ব্যাক্তিগতভাবে লতিফ তালুকদারকে চিনি। তবে সে মুক্তিযুদ্ধ করেছেন বলে আমার জানা নেই। বেশ কয়েক বছর আগে মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় নাম অর্ন্তভুক্ত করার জন্যে আবেদন নিয়ে ঘুরাঘুরি করতে দেখেছি। কিন্ত যতদুর জানি এখনো পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় তান নাম নেই।
এ ব্যপারে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ টাঙ্গাইল জেলা ইউনিটের সাবেক কমান্ডার ফজলুল হক বীর প্রতীক বলেন, কেউ নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা পরিচয় দিতে পারেন। তবে সে সত্যিকারে মুক্তিযোদ্ধা কিনা সেটাই দেখার বিষয়। তিনি বলেন, সামাজিকভাবে তাকে চিনি। তবে সে কোন মুক্তিযোদ্ধা নন। ২০১৯ সালের দিকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তালিকাভুক্ত হওয়ার জন্যে আবেদন করেছিলেন। কিন্ত এখনো সে তালিকাভুক্ত হননি। অমুক্তিযোদ্ধাদের ব্যপারে সকলের সোচ্ছার হওয়া দরকার বলেও মনে করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক বীর প্রতীক।
এ ব্যাপারে আব্দুল লতিফ তালুকদারের সাথে মুঠোফোনে কথা হয় প্রতিবেদকের। তিনি প্রতিবেদককে বলেন, আমার মুক্তিযুদ্ধের সনদ আছে। তবে কোন তালিকায় আমার নাম উঠেনি। মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকায় নাম উঠানোর জন্যে আবেদন করেছি। এখন সেটা আপিলে আছে। এ অবস্থায় কোথাও মুক্তিযোদ্ধার পরিচয় দেয়া যায় কিনা জানতে চাইলে, আব্দুল লতিফ তালুকদার প্রতিবেদককে বলেন, সরকার আমাকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি না দিলেও আমার কিছু যায় আসেনা। তিনি বলেন, অনেক রাজাকার মুক্তিযোদ্ধা হয়েছে। পঞ্চাশ বছর বয়সী দুই হাজার মানুষ মুক্তিযোদ্ধা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840