শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২০ দিন ধরে উড়ছে জাতীয় পতাকা

শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২০ দিন ধরে উড়ছে জাতীয় পতাকা

প্রতিদিন প্রতিবেদকঃ দেশে পতাকা উত্তোলনের নিয়ম অনুযায়ী, সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা যাবে। সন্ধ্যার আগেই পতাকা নামিয়ে ফেলতে হবে। কিন্তু টাঙ্গাইলে এর ব্যত্তয় ঘটেছে শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ। মূল ভবনের সামনে প্রায় ২০ দিন ধরে জাতীয় পতাকা উড়ছে। কিন্তু দেখার কেউ নেই।
গত বিশদিন জাতীয় পতাকার এই অবমাননা সংশ্লিষ্ট কারো নজরে আসেনি। সর্বশেষ গত রাতেও এই স্থানে পতাকা উড়তে দেখা যায়। এই বিষয়ে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষের কোন বক্তব্য পায়নি সংবাদ মাধ্যমের কেউ।
সরেজমিনে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, জাতীয় পতাকা পৎ পৎ করে উড়ছে। সে সময় মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কাউকে পাওয়া যায়নি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেশ কয়েকজন এ্যাম্বুলেন্স চালক জানান, জাতীয় পতাকাটি রোজার ঈদের আগে উত্তোলন করা হয়। এর পর আর তা নামানো হয়নি। আমরা প্রতিদিনই পতাকাটি উড়তে দেখি।
প্রত্যক্ষদর্শী রাকিব বলেন, রাতে পতাকা টানিয়ে রাখা মানে বাংলাদেশের পতাকাকে অবমাননা করা। আর পতাকা অবমাননা করা মানে, আমাদের দেশকে অবমাননা করার শামিল।
এ ব্যাপারে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং টাঙ্গাইল জেলা পরিষদের প্রশাসক ফজলুর রহমান খান ফারুক বলেন, এ রকম হওয়া উচিত না।
জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ও টাঙ্গাইল কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি আনিসুর রহমান (দাদুভাই) বলেন, ৩০ লক্ষ শহীদ, ২ লক্ষ মা-বোনের ইজ্জত/সম্ভ্রম আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমাদের এ স্বাধীন দেশ, স্বাধীন পতাকা। এই পতাকার অবমাননা করা মানে জাতিকে অবমাননা করা।
এই বিষয়ে শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক প্রফেসর ডা. মোহাম্মদ আলী খান মুঠো ফোনে প্রতিবেদককে বলেন আমার অফিসের আউটসোর্সিংয়ের নজরুল নামের একজন কর্মচারীকে পতাকা উঠানো ও নামানোর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সে অসুস্থ, তাই হয়ত এই ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনার জন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত।
টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গনি বলেন, এটি একটি অন্যায়, এই ঘটনায় কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840