সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের পাঠাগারে বেলা’র বই প্রদান টাঙ্গাইলে সাংবাদিকদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার বিতরণ ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে সকালে যানজট বিকেলে স্বাভাবিক ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের এলেঙ্গা থেকে সেতু পূর্ব পাড় পর্যন্ত বেড়েছে যানবাহনের চাপ, চলছে ধীর গতিতে সখীপুরে জেলা প্রশাসকের অর্থায়নে আশ্রয়ণ প্রকল্পে বৈদ্যতিক পাখা বিতরণ মধুপুরে মাদক দ্রব্যের অপব্যবহার রোধে কর্মশালা মেয়াদোত্তীর্ণ ভ্যাকসিনে ১৪০০ হাঁসের মৃত্যু, অভিযোগ খামারীর ইয়াবাসহ মাদক কারবারিকে আটক করেছে র‌্যাব প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে আনন্দ শোভাযাত্রা গোপালপুরে বিদ্যুৎপৃষ্টে যুবক নিহত
শ্রমিক লীগ নেতা রেজাউলকে কোপানোর প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

শ্রমিক লীগ নেতা রেজাউলকে কোপানোর প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

প্রতিদিন প্রতিবেদকঃ টাঙ্গাইলে জেলা শ্রমিক নেতা রেজাউলকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ হয়েছে। মঙ্গলবার ২৩ শে নভেম্বর বিকেলে টাঙ্গাইল শহীদ মিনার শ্রমিকলীগের উদ্যোগে হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে সমাবেশের আয়োজন করা হয়। এতে বক্তব্য দেন, শহর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি গোলাম কিবরিয়া বড় মনি, জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল লতিফ, শ্রমিক লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর আমিনুর রহমান, সদর থানা যুবলীগের সভাপতি আবু সাইম তালুকদার, শহর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নুর মোহাম্মদ সিকদার মানিক প্রমুখ। পরে শহীদ মিনার থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে গুরত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে গিয়ে শেষ হয়।

উল্ল্যেখ,২১ শে নভেম্বর রোববার রাতে টাঙ্গাইল শহরের নতুন বাস টার্মিনাল এলাকায় সন্ত্রাসী হামলার শিকার হন জেলা শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল করিম (৩৮)। হামলাকারীরা তাঁর হাত, পা, মেরুদণ্ডসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়। তিনি এখন সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন। টাঙ্গাইল শহর যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও রেজাউলের বন্ধু সেলিম সিকদার জানান, রেজাউল জীবন–মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রয়েছে।

হামলার শিকার রেজাউল শহরের দেওলা এলাকার মো. আজাদ আলমগীরের ছেলে। শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হওয়ার আগে তিনি জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি ছিলেন। দলীয় নেতা–কর্মীরা বলছেন, ২০১৪ সালে ফারুক আহমেদ হত্যার বিচারের দাবিতে আমানুর ও তাঁর ভাইদের বিরুদ্ধে যে আন্দোলন শুরু হয়, সেখানে রেজাউল সক্রিয় ছিলেন।

পারিবারিক সূত্র জানায়, তাঁরা বর্তমানে রেজাউলের চিকিৎসা নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। তাই এখনো মামলা করা হয়নি।

টাঙ্গাইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর মোশারফ হোসেন বলেন, রেজাউলের ওপর হামলায় জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করা গেছে। তাঁদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। রেজাউলের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। তাঁরা চিকিৎসা নিয়ে ব্যস্ত থাকায় এখনো মামলা করতে আসেননি।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840