সংবাদ শিরোনাম:
ভূঞাপুরে চড়াই উৎরাইয়ের মধ্য দিয়ে সবার মনোনয়ন বৈধ কালিহাতীতে পৌলীতে রেল সেতুর দুই পাশে বালু বিক্রির মহোৎসব মাদরাসা ছাত্রীর প্রেমের টানে ও ঘর বাঁধতে টাঙ্গাইলে আরেক ছাত্রী মধুপুরে জৈব কৃষি ব্যবস্থাপনা বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত তীব্র গরম ও তাপদাহে অতিষ্ঠ মধুপুরবাসী বাড়ছে নানা রোগ সখীপুরে প্রকৃতি ও শান্তি সংঘের উদ্যোগে গাছের চারা বিতরণ টাঙ্গাইলের বাসাইল থেকে ৪৯ কেজি গাঁজা সহ ০৪ মাদক ব্যবসায়ী আটক পৌর উদ্যানের শতবর্ষী গাছ কাটার প্রতিবাদে মানববন্ধন  টাঙ্গাইলে পারিবারিক কলহে পিতাকে পিটিয়ে আহত করেছে ছেলে সিরাজগঞ্জে পুলিশের উপর হামলা, মদ ও অস্ত্রসহ আ.লীগ নেতার স্ত্রী আটক
সখিপুর খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও অফিস সহকারির বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ

সখিপুর খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও অফিস সহকারির বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ

প্রতিদিন প্রতিবেদক সখিপুর: সখিপুর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কনক কান্তি দেবনাথ ও খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি,এলএসডি) আসাদুজ্জামান অফিস সহকারি মাসুদ রানা সহ গুদাম কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে সরকারি ধান ক্রয়ে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।

স্থানীয় কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয়ের সরকারি নির্দেশনা থাকার পরও উপজেলা খাদ্য বিভাগ ও গুদাম কর্মকর্তারা ধান ব্যবসায়ী, দালাল-ফড়িয়াদের সাথে যোগসাজস করে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে স্থানীয় কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় না করে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ধান ক্রয় করার অভিযোগ রয়েছে।

জানা যায়, উপজেলা কৃষি বিভাগ প্রথম দফায় ৫১৩ মেট্রিক টন এবং দ্বিতীয় দফায় ৮৫৪ মেট্রিক টনসহ মোট ১৩৬৭ মোট্রিক টন ধান ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে।

কৃষকদের কাছ থেকে চিটা ও ময়লামুক্ত ১৪ ভাগ আর্দ্রতার ধান সংগ্রহ করে সংরক্ষণের বিধি বিধান থাকলেও খাদ্য গুদাম কর্মকর্তাদের স্বেচ্ছাচারিতায় তা মানা হয়নি। খাদ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এক হাজার ৪০ টাকা মণ দরে গত (৭ মে) থেকে ধনবাড়ী উপজেলার প্রান্তিক কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় শুরু হয়ে আগামী (৩১ আগস্ট) পর্যন্ত ক্রয় করার কথা।

খাদ্য গুদাম কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, গত (৭ মে) থেকে গত (১৮ আগস্ট) পর্যন্ত প্রকৃত কৃষকদের দফায়-দফায় হয়রানি করে যতসামান্য ধান ক্রয় করলেও গত (১৯ আগস্ট) থেকে (২৪ আগস্টের) মধ্যে তড়িঘড়ি করে মোটা অংকের উৎকোচের বিনিময়ে রাতের আধাঁরে মোট ১৩৬৭ মোট্রিক টন নিম্নমানের ধান ক্রয় করে গুদামজাত করা হয়েছে।

সাধারন জনগনকে দেখানোর জন্য বুধবার (২১আগষ্ট) দালাল-ফরিয়াদের কৃষক বানিয়ে লটারির ব্যবস্থা করেছিল উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক। স্থানীয় সংসদ সদস্য এ্যাড.জোয়াহেরুল ইসলাম ভিপি জেয়াহের ও উপজেলা প্রশাসন খাদ্য গুদামে প্রভাবশালী চক্রকে পাশ কাটিয়ে সরাসরি যাতে তালিকাভুক্ত প্রকৃত কৃষক ধান বিক্রি করতে পারে সে বিষয়ে তৎপর থাকলেও উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কনক কান্তি দেবনাথ ও খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান, মাসুদ রানার ছত্রছায়ায় গড়ে ওঠা একটি সিন্ডিকেট সরব থাকায় এমপি ও প্রশাসনের সব উদ্যোগ ভেস্তে যায়।

উপজেলার বাগবেড় গ্রামের কৃষক আনোয়ার হোসেন আনন্দ ,পাথার গ্রামের কৃষক নজরুল ইসলাম, আব্দুল গফুর সহ স্থানীয় কৃষকরা অভিযোগ করেন, ধান ক্রয় অভিযান শুরু হলে স্থানীয় কৃষকরা ধান দেয়ার জন্য নমুনা নিয়ে উপজেলা খাদ্যগুদাম সাবেক কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ এর কাছে ধানের মান ও আর্দ্রতা পরীক্ষা করাতে গেলে ধানের মান ভালো না এমন অজুহাতে প্রকৃত কৃষকদের বারবার ফিরিয়ে দিয়ে হয়রানি করতে থাকে।

অথচ সেই ধানই কৃষকের কাছ থেকে না কিনে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে টন প্রতি ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা উৎকোচের বিনিময়ে গুদামে সরবরাহ করেছে স্থানীয় প্রভাবশালী দালাল ফড়িয়ারা।

ফলে কৃষকরা খাদ্যগুদামে ধান সরবরাহ করতে না পেরে ন্যাযমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। উপজেলার কৃষকরা অভিযোগ করে বলেন, গুদামে ধান সংগ্রহে মান যাচাইয়ের নামে হয়রানি করা হচ্ছে। অপরদিকে টাকার বিনিময়ে নিম্নমানের ধান দিয়ে গুদাম ভর্তি করা হচ্ছে।

সোমবার (২৬ আগস্ট) ও বুধবার(২৮ আগষ্ট) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সরেজমিন খাদ্যগুদাম ঘুরে দেখা যায়, দালাল ফঁড়িয়াদের মাধ্যমে সরবরাহকৃত ধান যাচাই-বাছাই না করে তাৎক্ষণিকভাবে ব্যাক ডেটে গুদামজাত করা হচ্ছে। কিন্তু কৃষকদের পক্ষ থেকে ধান নিয়ে আসা হলে ওই ধান নিয়ে নানা রকম জটিলতা ও তালবাহানা করে কৃষকদের ধান পুনরায় রোদে শুকিয়ে নিয়ে আসার কথা বলে হয়রানি করা হচ্ছে।

পাথারপুর গ্রামের আব্দুল গফুর বলেন, বারবার রোদে শুকিয়ে ফ্যানের বাতাসে ধান ও চিটা পৃথক করে ৩০ মণ ধান নিয়ে গত তিন মাস যাবৎ খাদ্যগুদামে ঘুরতেছি। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট), সোমবার (২৬ আগস্ট) বুধবার(২৮আগষ্ট)খাদ্যগুদামে এসে ঘুষ না দিতে পারায় ধান বিক্রি করতে পারিনি।

খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান তার বিরুদ্ধে কৃষকদের আনিত এসব অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, উপজেলা কৃষি বিভাগ থেকে সরবারহকৃত কৃষকদের তালিকা মোতাবেক ধান সংগ্রহ করা হচ্ছে।

গুদামে কোনো সিন্ডিকেট নেই। সরকারি বিধি মোতাবেকই ধান ক্রয় করা হচ্ছেএ ব্যাপারে সখিপুর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কনক কান্তি দেবনাথ বলেন, এতো বড় প্রতিষ্ঠানে শতভাগ স্বচ্ছতা নিয়ে কাজ করা যায় না।

কিছুটা ত্রুটি, বিচ্যুতি হতেই পারে। আর কে কৃষক, কে ব্যবসায়ী এটাতো আমার জানার বিষয় না। কৃষি তালিকা অনুযায়ী ধান ক্রয় করা হয়েছে। প্রকৃত কৃষকদের ধান ফেরত দিয়ে রাতের আধাঁরে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ধান ক্রয়ের ব্যাপারে জানতে চাইলে- তিনি সদোত্তর না দিয়ে বলেন, বন্ধের দিন এবং রাতেও ধান কিনার বিধান রয়েছে।

এ ব্যাপারে সখিপুর উপজেলা নির্বাহী মো.আমিনুর রহমান জানান, খাদ্য বিভাগের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অবশ্যই খতিয়ে দেখা হবে

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840