সখীপুর নলুয়া বাছেত খান বিদ্যালয় শিক্ষকদের ব্যাপক কোচিং বানিজ্য

সখীপুর নলুয়া বাছেত খান বিদ্যালয় শিক্ষকদের ব্যাপক কোচিং বানিজ্য

প্রতিদিন প্রতিবেদক সখীপুর : সখিপুর উপজেলার নলুয়া বাছেত খান উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষকদের ব্যাপক কোচিং বানিজ্য চলছে। নাম মাত্র বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের পড়ানো হয়।

এমপিও ভুক্ত এ বিদ্যালয়ের ষোল জন্ শিক্ষকের মধ্যে আট জন শিক্ষক কোচিং বানিজ্যের সাথে জড়িত।

বিদ্যালয়ের প্রায় নয় শত শিক্ষার্থী মধ্যে প্রায় সাত শত শিক্ষার্থীই শিক্ষকদের কোচিং বানিজ্যের স্বীকার।

এদের মধ্যে কেউ কেউ বিদ্যালয়ের কক্ষগুলোতে আবার কেউ তাদের নিজ বাড়ীতে এবং অনেকে অন্য কোচিংয়ের সাথে নিজেকে জড়িয়ে কোচিং বানিজ্যের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

যদি শিক্ষার্থী তাদের কথা অনুযায়ী কোচিং করেন তাহলে পরীক্ষায় সহযোগিতা করে উত্তির্ণ করা হয়। আর যদি তাদের কোচিং না করেন তাহলে সেই শিক্ষার্থীর সাথে বিদ্যালয়ের ক্লাশে খারাব আচরন সহ স্কুল পরীক্ষায় অকৃতকার্য করে দেওয়া হয়। যে কারনে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা শিক্ষকদের কাছে জিম্মি হয়ে পরেছে।

এমপিও ভুক্ত এ বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের চাপে শিক্ষার্থীরা বাধ্যতা মুলক কোচিং সেন্টারে একাধিক বিষয় পড়াতে হচ্ছে।

প্রতি বিষয়ে ৭/৮ শত টাকা করে প্রতি শিক্ষার্থীর পেছনে মাসে ৬/১০ হাজার টাকা দিতে হচ্ছে অভিভাবকদের। কোচিং পড়াতে ব্যর্থ হলে শিক্ষকরা শিক্ষার্থীকে ভালো চোখে দেখে না পরিক্ষায় নম্বর কম দেয়, স্কুলে অনিয়মিত ও অমনোযোগী বলে অভিভাবকদের জানান।

এ বিষয়ে জেলা ও উপজেলা শিক্ষা অফিসে একাধিক অভিযোগ করলে কোন সুফল পাওয়া যায়নি বলে জানান অভিভাবকরা।

দেশের প্রচলিত আইনে শিক্ষা মন্ত্রনালয় কর্তৃক কোচিং বানিজ্য নিয়ন্ত্রনে ২০১২ শিক্ষা নীতিমালা করলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অবাধে কোচিং বানিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে।

সরেজমিনে অনুসন্ধানে নলুয়া বাছেত খান উচ্চ বিদ্যালয় গিয়ে এ সব তথ্য দেখা ও জানা যায়।

বিদ্যালয়ে কোচিং বানিজ্যের সাথে জরিতরা হলো, সহকারী শিক্ষক (গনিত) মোঃ হান্নান। বিদ্যালয়ের পেছনে তার নিজস্ব হোষ্টেলে কোচিং সেন্টার খোলেছেন। সেখানে হোষ্টেলে শিক্ষার্থীদের রেখে কোচিং পড়ানো হয়।

সহকারী শিক্ষক (ইংরেজী) মোঃ বাবুল মিয়া আড়াইলা পাড়া গ্রামের মৃত রুস্তম মাস্টারের বাড়ীতে কোচিং সেন্টার পরিচালনা করছেন।

নীতিমালা অমান্য করে কোচিং বানিজ্যের বিষয়ে তিনি জানান, শিক্ষার্থীদের আবেদন ও স্কুল ম্যানেজিং কমিটি ও প্রধান শিক্ষকের অনুমতি ক্রমে এ কোচিং পড়ানো হয়।

সহকারী শিক্ষক (ইংরেজী) সুজেয় কুমার রানা তার নলুয়া নিজ বাসায় কোচিং সেন্টার তৈরী করে শিক্ষার্থীদের কোচিং করান।

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক (কৃষি) সুমন মিয়া তার নলুয়া নিজ বাসায় কোচিং সেন্টার তৈরী করে শিক্ষার্থীদের দেদারছে পড়াচ্ছেন।

নলুয়া বাছেত খান উচ্চ বিদ্যালয়ের এমপিও ভুক্ত ষোল জন্য শিক্ষকের মধ্যে আট জন শিক্ষক কোচিং বানিজ্যের সাথে জরিতরা হলো গণিত শিক্ষক মোঃ আব্দুল হান্নান ও মিজানুর রহমান, ইংরেজী শিক্ষক মোঃ বাবুল মিয়া, কৃষি শিক্ষক মোঃ সুমন রানা, ইংরেজী শিক্ষক সুজেয় কুমার রানা ও ইসমাইল হোসেন, শিক্ষক শাহজাহান, বিজ্ঞান শিক্ষক মোঃ কবির হোসেন।

এদের মধ্যে চার জন শিক্ষকদের নিজস্ব কোচিং সেন্টার ও ছাত্র হোষ্টেল রয়েছে।

বাকী পাঁচ জন শিক্ষক বিদ্যালয়ে সহ বিচ্ছিন্ন ভাবে শিক্ষা নীতিকে উপেক্ষা করে কোচিং বানিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে।

শিক্ষকদের আবাসিক হোষ্টেলে থেকে কোচিং পড়া নবম-শ্রেনী ছাত্র ক্যাবিনেট সদস্য স্বাধীন খান ও দশম-শ্রেনীর ছাত্র ক্যাবিনেটের প্রধান সদস্য হাবিবুর রহমান সহ অন্যান্য শিক্ষার্থীরা জানান, হোষ্টেলের সীট ও খাবার খুবই নিম্ম মানের।এক কক্ষে ২১ জন থাকার চৌকি এবং পড়ার চেয়ার টেবিল ও কোচিং পড়ার জন্য ব্লাকবোর্ড রয়েছে।

থাকা খাওয়া বাবদ প্রথম মাসে ৬০০০ (ছয়) হাজার টাকা পরবর্তী মাস থেকে ৪০০০ (চার) হাজার টাকা দিতে হয় এবং কোচিংয়ের বেতন আলাদা দিতে হয়।

ক্লাস অনুসারে প্রতি সাবজেক্টে ৫০০/৭০০ টাকা নেয় কোচিং শুরু হয় সকাল সাড়ে ৬টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত। প্রতিদিন ৫ ব্যাচ কোচিং হয় সকাল সাড়ে ৬ টা থেকে সাড়ে ৭ টা পর্যন্ত প্রথম ব্যাচ, সাড়ে ৭টা থেকে ৯ টা পর্যন্ত দ্বিতীয় ব্যাচ কোচিং সেন্টার হয়। সকাল ৯ টা থেকে ১০টা পর্যন্ত তৃতীয় ব্যাচ স্কুল ক্লাশ রুমে কোচিং করান।

স্কুল ছুটি হয় বিকাল ৪ টার পরপরই কোচিং শুরু হয়ে রাত ৯টা পর্যন্ত, তিন ব্যাচ কোচিং করান।

এলাকাবাসীর অভিযোগ বাছেত খান উচ্চ বিদ্যালয়ের কয়েকজন এমপিও ভুক্ত শিক্ষক অদৃশ্য খুটির জোরে সিন্ডিকেট করে বেপরোয়া ভাবে কোচিং বানিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে।

২০১৩ইং সনে অভিভাবকগনের অভিযোগে প্রেক্ষিতে বিভিন্ন মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মফিজুল ইসলাম কোচিং বানিজ্যের সাথে জড়িত শিক্ষকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে চাইলে শিক্ষকরা আর কোন দিন কোচিং বানিজ্য করবে না এই মমের্ স্ব হস্তে স্বাক্ষরিত অঙ্গিকার করেন।

এরপর ২০১৮ সনে নির্বাচনের মাধ্যমে স্কুলে পুরাতন ম্যানেজিং কমিটি বিদায় নেওয়া ও নতুন ম্যানেজিং কমিটি দায়িত্ব গ্রহনের পর পুর্বের কোচিং বানিজ্যের শিক্ষকগন ঐক্যবদ্ধ হয়ে শিক্ষার্থীদের কোচিংয়ে বাধ্য করনের কৌশল হিসাবে ক্লাসে অমনোযোগী, গাফিলতির অনিয়মিত ক্লাসের মাধ্যমে ৭০% শিক্ষার্থীকে কোচিংয়ের আওতায় আনেন।

দেশের প্রচলিত শিক্ষা আইনের যা চরম অবমাননা, শিক্ষা নীতিকে উপেক্ষা করে।

সহকারী শিক্ষক মোঃ বাবুল মিয়া জানান, বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্যদের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের লিখিত অনুমতি ক্রমে কোচিং চালানো হচ্ছে।

হোষ্টেল ও কোচিং বানিজ্য সম্পর্কে বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্যদের সভাপতি হাবিবুর রহমান জানান, আমি কোন শিক্ষককে লিখিত কোন অনুমতি দেইনি। শিক্ষানীতির বাহিরে আমি কোন কাজ করি না এবং অন্যকেও সমর্থন দেব না।

বিদ্যালয় পরিচালনা পর্যদের সদস্য আনোয়ার হোসেন জানান, কোচিং এর বিষয়ে শিক্ষকরা আমার কোন অনুমতি নেয় নাই। শিক্ষানীতি অনুযায়ী কোচিং বানিজ্যের শিক্ষকদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির ব্যাবস্হা করা হবে।

বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্যদের সদস্য মামুন খান জানান, কোচিং ও হোষ্টেল করার বিষয়ে শিক্ষকগন আমাকে জানানোর প্রয়োজন মনে করে নাই, আমরা বাধা দিলেও মানে না তদন্তপুর্বক দোষীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবী জানাচ্ছি।

সরেজমিনে তদন্ত করে দোষীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির জোর দাবী স্হানীয় এলাকাবাসী ও শিক্ষার্থী অভিভাবকদের।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840