সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে গণধর্ষণ মামলায় চার জনের যাবজ্জীবন

টাঙ্গাইলে গণধর্ষণ মামলায় চার জনের যাবজ্জীবন

প্রতিদিন প্রতিবেদক : ধনবাড়ীতে চলন্তবাসে এক পোশাক শ্রমিক গণধর্ষণ মামলায় বাসের চালক ও তিন সহকারী সহ চার আসামীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। একই সাথে প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে অর্থদন্ড করা হয়।

বুধবার (২২ মে) দুপুরে টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিচারক বেগম খালেদা ইয়াসমিন গৃহবধু গণধর্ষণ মামলার তিন আসামীর উপস্থিতিতে এ দন্ডদেশ প্রদান করেন। মামলার অপর এক আসামী পলাতক রয়েছে।

দন্ডপ্রাপ্তরা হলো, বাসের চালক ধনবাড়ী উপজেলার ফকিরবাড়ি গ্রামের হাবিবুর রহমান ওরফে নয়ন (২৮), তাঁর সহকারী একই উপজেলার দয়ারামবাড়ি গ্রামের আবদুল খালেক ওরফে ভুট্টু (২৩), চাতুটিয়া গ্রামের আশরাফুল (২৬) ও নিজবর্নি গ্রামের রেজাউল করিম ওরফে জুয়েল (৩৮)।

এ মামলার দন্ডপ্রাপ্ত বাসের কন্টাকটার রেজাউল করিম ওরফে জুয়েল (৩৮) পলাতক রয়েছে।

রায় ঘোষণার পর দণ্ডিত হাবিবুর, খালেক ও আশরাফুলকে টাঙ্গাইল কারাগারে পাঠানো হয়। অপর আসামী রেজাউল করিম জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর থেকে পলাতক রয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন
ট্রাইবুনালের বিশেষ পিপি নাসিমুল আক্তার নাসিম।

তাকে সহায়তা করেন মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা টাঙ্গাইল জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট আতাউর রহমান আজাদ।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) একেএম নাছিমুল আক্তার জানান, গাজীপুরের চন্দ্রা এলাকায় পোশাক তৈরির কারখানায় কর্মরত এক নারী শ্রমিক তাঁর খালার বাড়ি ধনবাড়ীতে বেড়াতে যান।

২০১৬ সালের ১ এপ্রিল ভোর পাঁচটার দিকে ওই নারী ধনবাড়ী বাসস্ট্যান্ড থেকে তাঁর কর্মস্থলে যাওয়ার জন্য বিনিময় সার্ভিসের একটি বাসে ওঠেন। এ সময় বাসে আর কোনো যাত্রী ছিলেন না। বাসটি ধনবাড়ী থেকে ছাড়ার পরপরই চালক ও সহকারীরা পর্যায়ক্রমে ওই নারীকে ধর্ষণ করেন।

পরে বাসটি মধুপুর পর্যন্ত এসে ঢাকার দিকে না গিয়ে ময়মনসিংহ সড়কের বন এলাকায় ওই পোশাক শ্রমিককে নামিয়ে দিয়ে যান। পরে ওই পোশাকশ্রমিক অন্য একটি গাড়িতে করে কর্মস্থলে গিয়ে তাঁর স্বামীকে পুরো ঘটনা জানান।

ওই দিনই স্বামীসহ টাঙ্গাইলে গিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন ওই নারী। পুলিশ বাসের চালক ও সহকারীদের আটক করে। ওই নারীর স্বামী বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন। তদন্ত শেষে পুলিশ ২০১৬ সালের ১১ মে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়।

মামলার বিবরনে জানা যায়, ২০১৬ সালের ১ এপ্রিল কালিয়াকৈরের মৌচাকে কর্মরত এক গার্মেন্টস কর্মী টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী বাসস্ট্যান্ড থেকে ভোর পাঁচটার দিকে ‘বিনিময় পরিবহনের’ একটি বাসে কালিকৈরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়।

এসময় বাসে যাত্রী না থাকার সুযোগে বাসটি কিছুদূর যাওয়ার পর কন্টাকটার বাসের জানালা দরজা বন্ধ করে দেয়। পরে গাড়ির চালক হাবিবুর রহমান নয়ন তাঁকে পিঁছনের ছিটে নিয়ে জোর পূর্বক গণধর্ষন করে।

পালা ক্রমে বাসের কন্টাকটার ও হেলপার গণধর্ষন করে। পরে বাসটি ঢাকা না গিয়ে টাঙ্গাইল ময়মনসিংহ রোডের একটি ফাঁকা জায়গায় ওই গৃহবধুকে নামিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়।

পরে ওই গৃহবধু মধুপুর সাসস্ট্যান্ড এসে তাঁর স্বামীকে বিষয়টি জানালে স্বামী তাঁকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত বাসের চালক, হেলপার ও সুপার ভাইজারকে ঐদিনই গ্রেপ্তার করে।

গৃহবধু স্বামী বাদী হয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় ৯ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন।

পরে পুলিশ তদন্ত শেষে  চার জনকে আসামী করে চার্জশিস্ট দিয়ে ছয়জনকে অব্যহতি প্রদান করে।

গ্রেপ্তারকৃত তিন আসামী আদালতে স্বীকাররোক্তি জবানবন্দী প্রদান করেন।
গৃহবধুকে আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দী প্রদান করা হয়। জবানবন্দীতে গৃহবধু আশরাফুল নামের আরো একজনের নাম উল্লেখ করে।

এতে মোট আসামীর সংখ্যা দাড়ায় ১০ জন। এ মামলায় বাদীসহ ৯ জন আদালতে স্বাক্ষী প্রদান করে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840