সংবাদ শিরোনাম:
ভূঞাপুরে স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ

ভূঞাপুরে স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা (টিএইচও) ডা. মহী উদ্দিন আহমেদের বিরুদ্ধে ওই হাসপাতালের বাবুর্চি (কুক) শ্লীলতাহানির অভিযোগ এনেছেন। এছাড়া ওই বাবুর্চির ভাগ্নিকেও অনৈতিক প্রস্তাবসহ হাসপাতালে পরিছন্নতাকর্মী হিসেবে চাকরি দেওয়ার কথা বলে ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ারও অভিযোগ উঠেছে টিএইচও’র বিরুদ্ধে।

এসব বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর লিখিত অভিযোগও করেছেন ওই বাবুর্চি।

অভিযোগে জানা গেছে, ভূঞাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ডা. মো. মহী উদ্দিন হাসপাতালের বাবুর্চি (কুক) ও তার ভাগ্নিকে হাসপাতালের তার (টিএইচও) কোয়ার্টারে যেতে বলেন। পরে ওই বাবুর্চি ও তার ভাগ্নি স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কোয়ার্টারে গেলে তাদের দুইজনকেই অনৈতিক প্রস্তাব দেন তিনি। পরে তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় বাবুর্চিকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেন টিএইচও ডা. মহী উদ্দিন। কিন্তু পরে শ্লীলতাহানি করতে না পেরে তিনি মারধর করেন বাবুর্চিকে। পরে ওই বাবুর্চি চিৎকার করে টিএইচও’র রুমে ফাঁসি দিতে গেলে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করেন।

এর আগে হাসপাতালে স্বাস্থ্য সুরক্ষা কর্মসূচি (এসএসকে) অস্থায়ী ভিত্তিতে উস্বাক/ ভূঞা/ এসএসকে/ ট্রেন্ডার/ জনবল ন্যাস্তকরণ/২০২১/১১৭২ স্মারকে দুই দফায় দেড় লাখ টাকার বিনিময়ে ওই বাবুর্চির ভাগ্নিকে হাসপাতালের পরিছন্নতাকর্মী হিসেবে নিয়োগপত্র দেন টিএইচও। পরে তাকেও চাকরির কথা বলে অনৈতিক প্রস্তাব দেন তিনি।

অভিযোগকারী বাবুর্চি (কুক) বলেন, হাসপাতালের টিএইচও আমাকে ও আমার ভাগ্নিকে অনৈতিক প্রস্তাব দেওয়ার পাশাপাশি আমার শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেছেন। এছাড়া আমার ভাগ্নিকে হাসপাতালে পরিছন্নতাকর্মীর চাকরি দেওয়ার কথা বলে দুই দফায় দেড় লাখ টাকা নেন তিনি। তিনি ভাগ্নিকে নিয়োগপত্র দেন ঠিকই, কিন্তু পরে দেখি, সেই নিয়োগপত্র ভুয়া। আসলে অন্যজনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। পরে ঘটনার বিচার চেয়ে গত ৮ আগস্ট জেলা প্রশাসক, জেলা সিভিল সার্জন ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগ অস্বীকার করে ভূঞাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মহী উদ্দিন বলেন, ওই নারী কেন বা কার প্ররোচণায় এমন অভিযোগ করেছেন, তা জানি না।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইশরাত জাহান বলেন, যেহেতু ঘটনাটি স্পর্শকাতর, তাই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অভিযোগটি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর পাঠিয়ে দিয়েছি।

জেলা সিভিল সার্জন আবুল ফজল মোহাম্মদ সাহবুদ্দিন খান বলেন, ভূঞাপুর হাসপাতালের বাবুর্চির (কুক) লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এটার বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গনি বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পরই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জেলা সিভিল সার্জনকে বলা হয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840