রেজিস্ট্রার ভিসি হওয়ায় অভিনন্দন ও প্রতিবাদ

রেজিস্ট্রার ভিসি হওয়ায় অভিনন্দন ও প্রতিবাদ

প্রতিদিন প্রতিবেদক মাভাবিপ্রবি : শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) রেজিস্ট্রার রেজাউল করিম বিশ্ববিদ্যালয়ের রুটিন ভিসির দায়িত্ব পাওয়ায় অভিনন্দন জানিয়েছে বাংলাদেশ আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স ফেডারেশন। একই সাথে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রনালয়, ইউসিজিসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন তারা।

বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ফেডারেশনের সভাপতি আমিরুল ইসলাম এবং মহাসচিব মীর মোর্শেদুর রহমান সাক্ষরিত এক অভিনন্দন বার্তায় এসব তথ্য জানানো হয়।

অপরদিকে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এ রেজিষ্ট্রার শেখ রেজাউল করিমকে উপাচার্য এর রুটিন দায়িত্ব দেওয়ায় প্রতিবাদ জানিয়েছে মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সমিতির সভাপতি সভাপতি প্রফেসর ড. মুহাম্মদ শাহীন উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. মোঃ মাসুদার রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রতিবাদে এ তথ্য জানানো হয়।

আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স ফেডারেশনের অভিনন্দন বার্তায় বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতিমুক্ত সমাজব্যবস্থা গড়ার লক্ষ্যে যে কাজ করে যাচ্ছেন তার সমর্থনে বাংলাদেশ আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স ফেডারেশনের প্রায় ১৬ হাজার সদস্য নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এরই অংশ হিসাবে শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান রেজিস্ট্রার শেখ রেজাউল করিমকে ভাইস-চ্যান্সেলর পদের রুটিন দায়িত্ব প্রদান করেছেন বর্তমান সরকার। অভিনন্দন বার্তায় আরো বলা হয়, জননেত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতিমুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সমাজ ব্যবস্থা গঠন করার জন্য বাংলাদেশ আন্তঃবিশ্বদ্যালয় অফিসার্স ফেডারেশনের সদস্যবৃন্দ সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করতে দ্বিধা করবে না।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে ১৯৭১ সালে যেমন বাংলার মানুষ স্বাধীনতা অর্জন করেছিলেন, ঠিক তেমনি বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার ডাকে সাড়া দিয়ে বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় সমূহ থেকে দুর্নীতির মুল উৎপাটন করে আমরা দুর্নীতিমুক্ত সমাজ ও ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মানে কাজ করতে চাই।

উল্লেখ্য, গত ২০ সেপ্টেম্বর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর পদ শূন্য হওয়ায় পরবর্তী ভাইস-চ্যান্সেলর নিযুক্ত না হওয়া পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার শেখ রেজাউল করিমকে ভিসি পদের রুটিন দায়িত্ব দেওয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি প্রতিবাদে বলা হয়, ‘শেখ রেজাউল করিম বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তা।

ইতোপূর্বে উপাচার্যের শূন্য পদে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে উপাচার্যের দায়িত্ব প্রদানের মতো ঘটনা কখনো ঘটেনি। একজন কর্মকর্তার পক্ষে কথনো প্রথিতযশা গবেষক ও শিক্ষকের রুটিন দায়িত্ব পালন সম্ভব নয়।

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি মনে করে যে, এ ধরনের আদেশ উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয় ধারনার সাথে শুধু অসংগতিপূর্ণই নয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ পদ উপাচার্য পদের প্রতিও অবমাননাকর।

এ ধরনের পদক্ষেপে উচ্চ শিক্ষা ব্যবস্থায় শিক্ষা, গবেষণা ও প্রশাসনিক কার্যক্রমের সমন্বয়হীনতা ও বিশৃংখলা তৈরীর যে আশংকা দেখা দিয়েছে তাতে আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। এ ধরনের ঘটনা শিক্ষা ও গবেষণার সুযোগ সংকুচিত করে বর্তমান জাতীয় উন্নয়নের ধারাকেও নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করবে।

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি এ ধরনের ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছে এবং একই সাথে অন্যান্য সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি যারা প্রতিবাদ জানিয়েছেন তাদের প্রতি সংহতি প্রকাশ করছে।

বিষয়টি অনুধাবন ও সার্বিক বিষয় পর্যালােচনা করে জারীকৃত আদেশটি প্রত্যাহার করে অনতিবিলম্বে একজন দক্ষ ও যোগ্য শিক্ষাবিদকে উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ করার জন্য জোড় দাবী জানাচ্ছে।

একই সাথে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন উক্ত বিষয়টি আমলে নিয়ে যথোপযুক্ত সমাধানে কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে প্রত্যাশা করছে।’

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840