অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

প্রতিদিন প্রতিবেদক : মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই মোমিননগর এলাকায় ভূমি দস্যু শওকত আদালতের স্থিতাবস্থা অমাণ্য করে ব্যক্তি মালিকানাধীন জায়গায় প্রভাব খাঁটিয়ে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করেছে ।

একই সাথে ওই জমির মালিককে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয় রানি করা হচ্ছে বলে শনিবার (২৭জুন) দুপুরে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন উপজেলার গোড়াই সোহাগপাড়া গ্রামের খোরশেদ আলম।

অভিযোগকারী খোরশেদ আলমের পক্ষে তার ভাতিজা আবু সাদেক মোহাম্মদ মুসা সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জানান, মির্জাপুরে যুঁই যুথি ফিলিং স্টেশনের মালিক হুমায়ূন কবির ও তার ছোট ভাই শওকত আলী মালিকানাধীন জায়গায় প্রভাব খাঁটিয়ে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করেছেন।

এছাড়াও গোড়াই মোমিননগর মৌজায় ১২ শতাংশ জায়গায় ১৯৮৬ সালে প্রস্তাবিত মার্কেটের প্ল্যান অনুমোদন করে তারা মার্কেট, বাসা-বাড়ি নির্মাণ করে ভাড়াটিয়ার মাধ্যমে ভোগ দখল করছেন। তবে ওই জমিটি নিয়ে ২০০২ সালে মির্জাপুরের সিনিয়র জজ আদালতে বাটোয়ারা মামলা দায়ের করেন একই গ্রামের হুমায়ুন কবির।

২০১২ সালে ওই জমি জবর দখল করার চেষ্টা করেন তিনি। তখন খোরশেদ আলম স্থাপনা নির্মাণে স্থিতাবস্থা চেয়ে একই আদালতে আবেদন করেন। আদালত ২০১২ সালের ২৪ জানুয়ারি মামলা নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত স্থিতাবস্থা বজায় রাখার নির্দেশ দেন।

কিন্তু সে নির্দেশ অমান্য করে উপজেলার গোড়াই সোহাগপাড়া গ্রামের মৃত সোবন আলীর ছেলে হুমায়ুন কবির, শওকত আলী, মৃত নওয়াব আলীর ছেলে সহিদুর রহমান, আব্দুল কাদের, আমছের আলী, মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে আব্দুল মালেক ও মৃত বোরহান উদ্দিনের ছেলে খায়রুল ইসলাম বাবু অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ করেছে।

ওই জমি নিয়ে মির্জাপুর থানায় পাল্টাপাল্টি সাধারণ ডায়েরিও করা হয়। থানা থেকে তদন্ত কর্মকর্তা আদালতের মামলা নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত স্থাপনা নির্মাণ বন্ধের নির্দেশ দেন।

আবু সাদেক মোহাম্মদ মুসা সংবাদ সম্মেলনে বলেন, হমায়ুন কবির গংরা আদালতের আদেশ অমান্য করে স্থাপনা নির্মাণ অব্যাহত রেখেছে। সেই সাথে তারা রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে আমাদের নানাভাবে হয়রানি করছে। তাদের ভয়ে আমরা প্রায় ১২ দিন ধরে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি।

অভিযোগ অস্বীকার করে হুমায়ুন কবির জানান, এই জমি সংক্রান্ত কোন মামলাই করেননি তিনি। তার নিজ জমিতেই স্থাপনা নির্মাণ করছেন। এছাড়াও স্থাপনা নির্মাণাধীন ওই জমির উপর আদালতের কোন স্থিতাবস্থা নেই বলেও জানান তিনি।

শওকত আলীর সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, এসব ভিত্তিহীন ও মিথ্যা কথা। খোরশেদ আলমের বাবা আমার বাবাকে লিখে দিয়েছিল।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840